রাজশাহী , সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
নোটিশ :
পবিত্র ইদুল আযহা উপলক্ষে আগামী ১৬ জুন ২০২৪ থেকে ২১ জুন ২০২৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলার জনপদের সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। ২২ জুন ২০২৪ তারিখ থেকে পুনরায় সকল কার্যক্রম চালু থাকবে। ***ধন্যবাদ**

সোনালী ব্যাংকের আট কর্মকর্তার বিভিন্ন মেয়াদে সাজা

  • আপডেটের সময় : ১২:২২:১০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৪৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ফরিদপুর প্রতিনিধি: অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে গোপালগঞ্জ সোনালী ব্যাংক প্রধান শাখার হেড ক্যাশিয়ারসহ আট কর্মকর্তাকে যাবজ্জীবন সাজাসহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন ফরিদপুরের বিশেষ জজ আদালতের বিচারক।

আজ বুধবার বেলা ১১টার দিকে বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মো. মতিয়ার রহমান এ আদেশ দেন। রায় ঘোষণার সময় ছয়জন আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণার পর পরই আসামিদের জেলহাজতে পাঠানো হয়।

Trulli

দুর্নীতি দমন কমিশনের কৌঁসুলি অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান জানান, সোনালী ব্যাংক গোপালগঞ্জ শাখার পেনশন হোল্ডার ও ভুয়া পেনশন হোল্ডারদের নাম দেখিয়ে ৪৭ লাখ ২ হাজার ৬২৮ টাকা ৩৮ পয়সা সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ওই শাখার তৎকালীন হেড ক্যাশিয়ার শওকত হোসেন মোল্লাসহ আটজনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন আদালত। এর মধ্যে প্রধান আসামি শওকত হোসেন মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড একই সাথে অনাদায়ে আরো ১৭ বছর, একই সাথে ৪৮ লাখ ২ হাজার ৬২৮ টাকা জরিমানা আদায়, অনাদায়ে আরো ১ বছর ৪ মাস কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। বাকি সাতজনকে ১৮ বছর সশ্রম কারাদণ্ড একই সাথে ৯০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড এবং অনাদায়ে আরো এক বছর কারাদণ্ড প্রধান করেন আদালত।

তিনি বলেন, এর আগে ২০০৩ সালের ৮ ডিসেম্বর ওই শাখার ব্যবস্থাপক আব্দুস সোহবান বাদী হয়ে গোপালগঞ্জ সদর থানায় ১০ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করে। এর মধ্যে দুই আসামি মারা গেছেন। এই মামলাটি তদন্ত করেছেন ফরিদপুর দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আবুল বাশার।

Adds Banner_2024

সোনালী ব্যাংকের আট কর্মকর্তার বিভিন্ন মেয়াদে সাজা

আপডেটের সময় : ১২:২২:১০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৯

ফরিদপুর প্রতিনিধি: অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে গোপালগঞ্জ সোনালী ব্যাংক প্রধান শাখার হেড ক্যাশিয়ারসহ আট কর্মকর্তাকে যাবজ্জীবন সাজাসহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন ফরিদপুরের বিশেষ জজ আদালতের বিচারক।

আজ বুধবার বেলা ১১টার দিকে বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মো. মতিয়ার রহমান এ আদেশ দেন। রায় ঘোষণার সময় ছয়জন আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণার পর পরই আসামিদের জেলহাজতে পাঠানো হয়।

Trulli

দুর্নীতি দমন কমিশনের কৌঁসুলি অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান জানান, সোনালী ব্যাংক গোপালগঞ্জ শাখার পেনশন হোল্ডার ও ভুয়া পেনশন হোল্ডারদের নাম দেখিয়ে ৪৭ লাখ ২ হাজার ৬২৮ টাকা ৩৮ পয়সা সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ওই শাখার তৎকালীন হেড ক্যাশিয়ার শওকত হোসেন মোল্লাসহ আটজনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন আদালত। এর মধ্যে প্রধান আসামি শওকত হোসেন মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড একই সাথে অনাদায়ে আরো ১৭ বছর, একই সাথে ৪৮ লাখ ২ হাজার ৬২৮ টাকা জরিমানা আদায়, অনাদায়ে আরো ১ বছর ৪ মাস কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। বাকি সাতজনকে ১৮ বছর সশ্রম কারাদণ্ড একই সাথে ৯০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড এবং অনাদায়ে আরো এক বছর কারাদণ্ড প্রধান করেন আদালত।

তিনি বলেন, এর আগে ২০০৩ সালের ৮ ডিসেম্বর ওই শাখার ব্যবস্থাপক আব্দুস সোহবান বাদী হয়ে গোপালগঞ্জ সদর থানায় ১০ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করে। এর মধ্যে দুই আসামি মারা গেছেন। এই মামলাটি তদন্ত করেছেন ফরিদপুর দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আবুল বাশার।