রাজশাহী , মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

‘কাফনের কাপড়’ পরে আমরণ অনশনে শিক্ষার্থীরা, দাবি মেনে নিলো রামেবি

Adds Banner_2024

রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (রামেবি) নার্সিং অনুষদে সৃষ্ট ভয়াবহ সেশনজট নিরসনের দাবিতে ‘কাফনের কাপড়’ পরে আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করেছেন শিক্ষার্থীরা। গতকাল বুধবার দুপুর ১২টা থেকে রামেবির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ দপ্তরের সামনে তারা এ কর্মসূচি শুরু করেন। এসময় বৃষ্টি শুরু হলেও সেখানে অবস্থান নিয়ে দাবি আদায়ে নানা স্লোগান দিতে থাকেন তারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রামেবি ও পরীক্ষা গ্রহণ কমিটির উদাসীনতার কারণে ১৮টি নার্সিং কলেজে তৈরি হয়েছে ভয়াবহ সেশনজট। কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবে চললে ২০১৯-২০ সেশনের বিএসসি-ইন-নার্সিং কোর্সের শিক্ষার্থীরা চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে রেজিস্টার্ড নার্স পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারতেন। কিন্তু সেশনজটের কারণে সেটি আর হচ্ছে না। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের চূড়ান্ত পরীক্ষা গ্রহণ করে ফলাফল প্রকাশ করলেও ৬ মাস পিছিয়ে থেকে তাদের কোর্স সম্পন্ন হবে। অথচ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নার্সিং অনুষদে সেশনজট নিরসন হয়ে ইতোমধ্যে পরীক্ষাও সম্পন্ন হয়েছে।

Trulli

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘স্যরেরা শুধু করোনার দোহাই দেন। কিন্তু করোনা তো সারাদেশেই ছিল। ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেটে পরীক্ষা নেয়া গেলে রামেবিতে কেন নেয়া যাবে না? আমরা যখন আসি, মৌখিকভাবে আশ্বস্ত করা হয়, কিন্তু বাস্তবে সেটির প্রতিফল হয় না। আমরা ওয়েবসাইটে পরীক্ষার রুটিন দেখতে চাই এবং সেপ্টেম্বর মাসের ভেতরে পরীক্ষা গ্রহণ করে ফলাফল প্রকাশ করতে হবে।’ এ দিনের অনশন কর্মসূচিতে রাজশাহী, রংপুর, দিনাজপুর ও লালমনিরহাট সরকারি নার্সিং কলেজসহ রামেবি অধিভুক্ত অন্যান্য বেসরকারি নার্সিং কলেজের শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন।

তবে অনশনের খবর পেয়ে প্রথমে রামেবির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর ডা. আনোয়ার হাবিব এবং পরবর্তীতে উপাচার্য প্রফেসর ডা. মো. মোস্তাক হোসেন শিক্ষার্থীদের কাছে আসেন। এ সময় তারা শিক্ষার্থীদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর ডা. আনোয়ার হাবিব বলেন, ‘আমি বেঁচে থাকলে সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যেই পরীক্ষা গ্রহণ ও ফলাফল প্রকাশ করবো।’

এ সময় উপাচার্য প্রফেসর ডা. মোস্তাক হোসেন বলেন, ‘যাতে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরীক্ষা নেয়া ও রেজাল্ট দেয়া যায়, আমরা সেই ব্যবস্থা করব।’

অবশ্য এর পরপরই রামেবির ওয়েবসাইটে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর ডা. আনোয়ার হাবিব স্বাক্ষরিত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ‘২০২৩ সালের বিএসসি-ইন-নার্সিং (বেসিক) ১ম, ২য়, ৩য় ও ৪র্থ বর্ষের পরীক্ষা আগামী ৭ সেপ্টেম্বর-২০২৪ তারিখ থেকে শুরু হবে। পরীক্ষা গ্রহণ শেষে সম্ভাব্য অক্টোবর-২০২৪ এর ১ম সপ্তাহের মধ্যে ফলাফল ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রকাশ করা হবে। ফরম পূরণের সময়সূচি পূর্ণাঙ্গ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে যথাসময়ে প্রকাশ করা হবে।’

Adds Banner_2024

‘কাফনের কাপড়’ পরে আমরণ অনশনে শিক্ষার্থীরা, দাবি মেনে নিলো রামেবি

আপডেটের সময় : ০৬:৫৯:৩৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪

রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (রামেবি) নার্সিং অনুষদে সৃষ্ট ভয়াবহ সেশনজট নিরসনের দাবিতে ‘কাফনের কাপড়’ পরে আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করেছেন শিক্ষার্থীরা। গতকাল বুধবার দুপুর ১২টা থেকে রামেবির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ দপ্তরের সামনে তারা এ কর্মসূচি শুরু করেন। এসময় বৃষ্টি শুরু হলেও সেখানে অবস্থান নিয়ে দাবি আদায়ে নানা স্লোগান দিতে থাকেন তারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রামেবি ও পরীক্ষা গ্রহণ কমিটির উদাসীনতার কারণে ১৮টি নার্সিং কলেজে তৈরি হয়েছে ভয়াবহ সেশনজট। কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবে চললে ২০১৯-২০ সেশনের বিএসসি-ইন-নার্সিং কোর্সের শিক্ষার্থীরা চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে রেজিস্টার্ড নার্স পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারতেন। কিন্তু সেশনজটের কারণে সেটি আর হচ্ছে না। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের চূড়ান্ত পরীক্ষা গ্রহণ করে ফলাফল প্রকাশ করলেও ৬ মাস পিছিয়ে থেকে তাদের কোর্স সম্পন্ন হবে। অথচ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নার্সিং অনুষদে সেশনজট নিরসন হয়ে ইতোমধ্যে পরীক্ষাও সম্পন্ন হয়েছে।

Trulli

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘স্যরেরা শুধু করোনার দোহাই দেন। কিন্তু করোনা তো সারাদেশেই ছিল। ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেটে পরীক্ষা নেয়া গেলে রামেবিতে কেন নেয়া যাবে না? আমরা যখন আসি, মৌখিকভাবে আশ্বস্ত করা হয়, কিন্তু বাস্তবে সেটির প্রতিফল হয় না। আমরা ওয়েবসাইটে পরীক্ষার রুটিন দেখতে চাই এবং সেপ্টেম্বর মাসের ভেতরে পরীক্ষা গ্রহণ করে ফলাফল প্রকাশ করতে হবে।’ এ দিনের অনশন কর্মসূচিতে রাজশাহী, রংপুর, দিনাজপুর ও লালমনিরহাট সরকারি নার্সিং কলেজসহ রামেবি অধিভুক্ত অন্যান্য বেসরকারি নার্সিং কলেজের শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন।

তবে অনশনের খবর পেয়ে প্রথমে রামেবির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর ডা. আনোয়ার হাবিব এবং পরবর্তীতে উপাচার্য প্রফেসর ডা. মো. মোস্তাক হোসেন শিক্ষার্থীদের কাছে আসেন। এ সময় তারা শিক্ষার্থীদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর ডা. আনোয়ার হাবিব বলেন, ‘আমি বেঁচে থাকলে সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যেই পরীক্ষা গ্রহণ ও ফলাফল প্রকাশ করবো।’

এ সময় উপাচার্য প্রফেসর ডা. মোস্তাক হোসেন বলেন, ‘যাতে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরীক্ষা নেয়া ও রেজাল্ট দেয়া যায়, আমরা সেই ব্যবস্থা করব।’

অবশ্য এর পরপরই রামেবির ওয়েবসাইটে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর ডা. আনোয়ার হাবিব স্বাক্ষরিত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ‘২০২৩ সালের বিএসসি-ইন-নার্সিং (বেসিক) ১ম, ২য়, ৩য় ও ৪র্থ বর্ষের পরীক্ষা আগামী ৭ সেপ্টেম্বর-২০২৪ তারিখ থেকে শুরু হবে। পরীক্ষা গ্রহণ শেষে সম্ভাব্য অক্টোবর-২০২৪ এর ১ম সপ্তাহের মধ্যে ফলাফল ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রকাশ করা হবে। ফরম পূরণের সময়সূচি পূর্ণাঙ্গ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে যথাসময়ে প্রকাশ করা হবে।’