রাজশাহী , শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ শুনেই ছুটে এলো খরগোশের দল

  • আপডেটের সময় : ০৮:৫৭:২০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪
  • ১৩ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গণভবন যেন চিরায়ত বাংলার এক খামারবাড়ি। শাকসবজি, ফুল-ফল, পশু-পাখি, মাছ; কী নেই সেখানে। প্রধানমন্ত্রী শুধু রাষ্ট্রপ্রধানের গুরুদায়িত্বই সামলান না, খোঁজ-খবর রাখেন এসবেরও। কখনো কখনো নিজের হাতে পশু-পাখিকে খাবার দেন, কাছে নিয়ে আদর করেন পরম মমতায়।

শনিবার (১৫ জুন) প্রধানমন্ত্রীকে আবারো এমন মমতাময়ী রূপে দেখলো বাংলা। গণভবনে এক অনুষ্ঠান শেষে পশু-পাখির খোঁজ-খবর নিচ্ছিলেন তিনি। হেঁটে হেঁটে সেসব দেখছিলেন। যখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খরগোশের থাকার ঘরের সামনে দিয়ে যাচ্ছিলেন, তখন তার কণ্ঠ শুনেই এক দৌড়ে চলে আসে অনেকগুলো খরগোশ। অবলা প্রাণীগুলো একটু আদর পেতে ছুটে আসে বিশ্বস্ত ও মমতাময়ী মনিবের কাছে।

Trulli

খরগোশগুলো কাছে এলে প্রধানমন্ত্রী নিজ হাতে তাদেরকে গাজর খেতে দেন। হাতে নিয়ে কোলে তুলে পরম মমতায় আদর বুলিয়ে দেন তাদের পিঠে। এ এক অপরূপ দৃশ্য, যেমন চিরায়ত বাংলার মমতাময়ী মায়ের চিত্র।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই দৃশ্য ছড়িয়ে পড়লে বঙ্গবন্ধুকন্যার মমতাময়ী আচরণের প্রশংসা করে নেটদুনিয়া। সবাই গর্ববোধ করেন, একজন প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপ্রধানের ব্যস্ত দায়িত্বের মধ্যেও গণভবনে এভাবে একটি খামারবাড়ি গড়ে তুলেছেন এবং তাদের যত্ন নেন, খোঁজ খবর রাখেন। এতে শিক্ষণীয় অনেক কিছু আছে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবনে আষাঢ় মাসের প্রথম দিনে বাংলাদেশ কৃষক লীগের তিন মাসব্যাপী বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। ১৯৮৪ সাল থেকে বাংলাদেশ কৃষক লীগ আষাঢ়ের প্রথম দিন থেকে সারাদেশে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করে আসছে।

একই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী দেশব্যাপী বৃক্ষরোপণ অভিযানে অবদানের জন্য কৃষক লীগের বেশ কয়েকজন নেতাকে পুরস্কৃত করেন এবং নেতাকর্মীদের মাঝে গাছের চারা বিতরণ করেন।

কর্মসূচি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী গণভবনে তিনটি গাছের চারা রোপণ করেন। তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালে সরকারে আসার পর গণভবনে ২ হাজারের মতো গাছ লাগিয়েছিলাম। এর আগের গাছগুলো জাতির পিতার হাতে লাগানো। এর পর আমরা বিভিন্ন ধরনের ফলের গাছ লাগাই এবং লাগাচ্ছি। এখানে বিভিন্ন ধরনের ফসল উৎপাদন করে দেখছি, ভালোই হয়। হাঁস-মুরগি-গরু-ছাগল সবই আছে আমাদের।

সরকারপ্রধান বলেন, ‘এখন গণভবন প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন এবং একইসঙ্গে একটি খামার বাড়িতে পরিণত হয়েছে।’

Adds Banner_2024

প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ শুনেই ছুটে এলো খরগোশের দল

আপডেটের সময় : ০৮:৫৭:২০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গণভবন যেন চিরায়ত বাংলার এক খামারবাড়ি। শাকসবজি, ফুল-ফল, পশু-পাখি, মাছ; কী নেই সেখানে। প্রধানমন্ত্রী শুধু রাষ্ট্রপ্রধানের গুরুদায়িত্বই সামলান না, খোঁজ-খবর রাখেন এসবেরও। কখনো কখনো নিজের হাতে পশু-পাখিকে খাবার দেন, কাছে নিয়ে আদর করেন পরম মমতায়।

শনিবার (১৫ জুন) প্রধানমন্ত্রীকে আবারো এমন মমতাময়ী রূপে দেখলো বাংলা। গণভবনে এক অনুষ্ঠান শেষে পশু-পাখির খোঁজ-খবর নিচ্ছিলেন তিনি। হেঁটে হেঁটে সেসব দেখছিলেন। যখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খরগোশের থাকার ঘরের সামনে দিয়ে যাচ্ছিলেন, তখন তার কণ্ঠ শুনেই এক দৌড়ে চলে আসে অনেকগুলো খরগোশ। অবলা প্রাণীগুলো একটু আদর পেতে ছুটে আসে বিশ্বস্ত ও মমতাময়ী মনিবের কাছে।

Trulli

খরগোশগুলো কাছে এলে প্রধানমন্ত্রী নিজ হাতে তাদেরকে গাজর খেতে দেন। হাতে নিয়ে কোলে তুলে পরম মমতায় আদর বুলিয়ে দেন তাদের পিঠে। এ এক অপরূপ দৃশ্য, যেমন চিরায়ত বাংলার মমতাময়ী মায়ের চিত্র।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই দৃশ্য ছড়িয়ে পড়লে বঙ্গবন্ধুকন্যার মমতাময়ী আচরণের প্রশংসা করে নেটদুনিয়া। সবাই গর্ববোধ করেন, একজন প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপ্রধানের ব্যস্ত দায়িত্বের মধ্যেও গণভবনে এভাবে একটি খামারবাড়ি গড়ে তুলেছেন এবং তাদের যত্ন নেন, খোঁজ খবর রাখেন। এতে শিক্ষণীয় অনেক কিছু আছে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবনে আষাঢ় মাসের প্রথম দিনে বাংলাদেশ কৃষক লীগের তিন মাসব্যাপী বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। ১৯৮৪ সাল থেকে বাংলাদেশ কৃষক লীগ আষাঢ়ের প্রথম দিন থেকে সারাদেশে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করে আসছে।

একই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী দেশব্যাপী বৃক্ষরোপণ অভিযানে অবদানের জন্য কৃষক লীগের বেশ কয়েকজন নেতাকে পুরস্কৃত করেন এবং নেতাকর্মীদের মাঝে গাছের চারা বিতরণ করেন।

কর্মসূচি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী গণভবনে তিনটি গাছের চারা রোপণ করেন। তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালে সরকারে আসার পর গণভবনে ২ হাজারের মতো গাছ লাগিয়েছিলাম। এর আগের গাছগুলো জাতির পিতার হাতে লাগানো। এর পর আমরা বিভিন্ন ধরনের ফলের গাছ লাগাই এবং লাগাচ্ছি। এখানে বিভিন্ন ধরনের ফসল উৎপাদন করে দেখছি, ভালোই হয়। হাঁস-মুরগি-গরু-ছাগল সবই আছে আমাদের।

সরকারপ্রধান বলেন, ‘এখন গণভবন প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন এবং একইসঙ্গে একটি খামার বাড়িতে পরিণত হয়েছে।’