রাজশাহী , শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

বিএনপির রাজনীতি থেকে পদত্যাগ করলেন মনির খান

  • আপডেটের সময় : ০১:০৮:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ১১৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: বিএনপির সব ধরনের সাংগঠনিক পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন সংগীতশিল্পী মনির খান। তিনি বলেছেন, ‘আমি জনগণের দাবিতে, আমার ভক্তদের দাবিতে রাজনীতির মাঠ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে আবার সংগীতচর্চা শুরু করবো। মাঝখানে যে কয়টা দিন, যে কয়টা বছর রাজনীতির সঙ্গে সংযুক্ত থেকেছি, এটি আমার জীবনের অ্যাক্সিডেন্ট ছিল। আমার ভুল ছিল।’ রবিবার (৯ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের ‌কনফারেন্স লাউঞ্জে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বিএনপি থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

মনির খান বলেন, ‘আমি বাংলাদেশের একজন জাতীয় সংগীতশিল্পী। শহীদ জিয়ার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে খালেদা জিয়ার আহ্বানে সাড়া দিয়ে জিয়া সাংস্কৃতিক সংগঠনের (জিসাস) মহাসচিব হিসেবে দলে যোগদান করি।

Trulli

পরবর্তীতে আমার সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে অনুপ্রাণিত হয়ে আমাকে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থার (জাসাস) সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপির সহ-সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। সংগীত কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি আমি দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করায় খালেদা জিয়া আমাকে আমার নির্বাচনি এলাকায় কাজ করার নির্দেশ দেন। আমি সবসময় এলাকার সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও জনসাধারণের পাশে থেকে আমার নির্বাচনি এলাকার জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করেছি।’

আজ বিভিন্ন অজুহাতে আমার এলাকার জনগণকে এবং আমাকে জাতীয় নির্বাচন থেকে সরিয়ে দেওয়া হলো। এ অবস্থায় আমার নির্বাচনি এলাকার জনগণের প্রাণের দাবির সঙ্গে একাকার হয়ে আমি বিএনপির সব ধরনের সাংগঠনিক পদ থেকে ইস্তফা দিলাম।’

তিনি বলেন, ‘আমি জনগণের দাবিতে, আমার ভক্তদের দাবিতে রাজনীতির মাঠ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে আবার সংগীতচর্চা শুরু করবো। মাঝখানে যে কয়টা দিন, যে কয়টা বছর রাজনীতির সঙ্গে সংযুক্ত থেকেছি, এটি আমার জীবনের অ্যাক্সিডেন্ট ছিল। আমার ভুল ছিল। এই ভুলের জন্য আমি বাংলাদেশের সকল মানুষের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি অতীতের মতো আগামীতেও সাধারণ নাগরিক হিসেবে আমার এলাকার জনগণ ও দেশবাসীর পাশে থাকবো। আমি আজ থেকে কোনও দলের অন্তর্ভুক্ত নয়, একজন সংগীতশিল্পী হিসেবে আগের মতো সংগীত কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাবো। আমি সকলের দোয়া চাই। আমি গানের মানুষ, প্রাণ খুলে গান গাইতে চাই।’

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘আমি আর কখনোই দলে ফিরবো না। আমি আমার নিজ জীবন এবং সংগীতচর্চা নিয়ে থাকবো।’

Adds Banner_2024

বিএনপির রাজনীতি থেকে পদত্যাগ করলেন মনির খান

আপডেটের সময় : ০১:০৮:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধি: বিএনপির সব ধরনের সাংগঠনিক পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন সংগীতশিল্পী মনির খান। তিনি বলেছেন, ‘আমি জনগণের দাবিতে, আমার ভক্তদের দাবিতে রাজনীতির মাঠ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে আবার সংগীতচর্চা শুরু করবো। মাঝখানে যে কয়টা দিন, যে কয়টা বছর রাজনীতির সঙ্গে সংযুক্ত থেকেছি, এটি আমার জীবনের অ্যাক্সিডেন্ট ছিল। আমার ভুল ছিল।’ রবিবার (৯ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের ‌কনফারেন্স লাউঞ্জে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বিএনপি থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

মনির খান বলেন, ‘আমি বাংলাদেশের একজন জাতীয় সংগীতশিল্পী। শহীদ জিয়ার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে খালেদা জিয়ার আহ্বানে সাড়া দিয়ে জিয়া সাংস্কৃতিক সংগঠনের (জিসাস) মহাসচিব হিসেবে দলে যোগদান করি।

Trulli

পরবর্তীতে আমার সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে অনুপ্রাণিত হয়ে আমাকে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থার (জাসাস) সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপির সহ-সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। সংগীত কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি আমি দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করায় খালেদা জিয়া আমাকে আমার নির্বাচনি এলাকায় কাজ করার নির্দেশ দেন। আমি সবসময় এলাকার সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও জনসাধারণের পাশে থেকে আমার নির্বাচনি এলাকার জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করেছি।’

আজ বিভিন্ন অজুহাতে আমার এলাকার জনগণকে এবং আমাকে জাতীয় নির্বাচন থেকে সরিয়ে দেওয়া হলো। এ অবস্থায় আমার নির্বাচনি এলাকার জনগণের প্রাণের দাবির সঙ্গে একাকার হয়ে আমি বিএনপির সব ধরনের সাংগঠনিক পদ থেকে ইস্তফা দিলাম।’

তিনি বলেন, ‘আমি জনগণের দাবিতে, আমার ভক্তদের দাবিতে রাজনীতির মাঠ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে আবার সংগীতচর্চা শুরু করবো। মাঝখানে যে কয়টা দিন, যে কয়টা বছর রাজনীতির সঙ্গে সংযুক্ত থেকেছি, এটি আমার জীবনের অ্যাক্সিডেন্ট ছিল। আমার ভুল ছিল। এই ভুলের জন্য আমি বাংলাদেশের সকল মানুষের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি অতীতের মতো আগামীতেও সাধারণ নাগরিক হিসেবে আমার এলাকার জনগণ ও দেশবাসীর পাশে থাকবো। আমি আজ থেকে কোনও দলের অন্তর্ভুক্ত নয়, একজন সংগীতশিল্পী হিসেবে আগের মতো সংগীত কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাবো। আমি সকলের দোয়া চাই। আমি গানের মানুষ, প্রাণ খুলে গান গাইতে চাই।’

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘আমি আর কখনোই দলে ফিরবো না। আমি আমার নিজ জীবন এবং সংগীতচর্চা নিয়ে থাকবো।’