রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ শহীদুল্লাহ হলের সামনে ফের সংঘর্ষ, ৪ ককটেল বিস্ফোরণ চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাবিতে কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, আহত অন্তত ৮০ ঢাবিতে আন্দোলনকারী-ছাত্রলীগ মুখোমুখি, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না?

এখানে বিক্ষোভ করে লাভ নেই

  • আপডেটের সময় : ০৬:৫৯:৩১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৮৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: বিএনপির চেয়ারপারসন কারাবন্দী খালেদা জিয়ার রাজধানীর গুলশানের কার্যালয়ে আজ রোববার সকালেও দলীয় মনোনয়নবঞ্চিত প্রার্থীর সমর্থকদের বিক্ষোভ চলছে। গতকাল শনিবার বিক্ষোভ চলাকালে ভেতর থেকে মাইকিং করে শান্ত থাকতে বলা হয়েছিল। আজ বলা হয়েছে, ‘এখানে বিক্ষোভ করে লাভ নেই।’ ভেতরের সেই ঘোষণাকারী কে, গতকালের মতো আজও তা জানা যায়নি।

গতকাল সন্ধ্যায় মনোনয়ন না পাওয়া এহছানুল হক মিলন, তৈমুর আলম খন্দকার ও সেলিমুজ্জামান সেলিমের অনুসারী কর্মী-সমর্থকেরা গুলশান কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করেন এবং কার্যালয় ভাঙচুর করেন। তাঁরা কার্যালয়ের প্রধান ফটকে লাথি মারেন, ধাক্কা দেন, ইটপাটকেল ছুড়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। তাঁদের ছোড়া ইটের আঘাতে কার্যালয়ের জানালার কাচ ভেঙে যায়। রাতেও তাঁদের এই বিক্ষোভ চলছিল।

Trulli

বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে গতকাল রাতে মাইকিং করে বলা হয়েছিল, ‘আপনারা ধৈর্য ধরুন, শান্ত থাকুন। আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া কারাগারে, তারেক রহমান বিদেশে। এ অবস্থায় আপনারা সবাই ধৈর্য ধরুন। আপনারা দলের পরীক্ষিত নেতা-কর্মী।’

আজ সকাল সাড়ে ১০টা থেকে মুন্সিগঞ্জ-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী শেখ আবদুল্লাহ এবং কুমিল্লা-৪ আসনে মঞ্জুরুল আহসান মুন্সির সমর্থকেরা বিক্ষোভ করতে থাকেন। তাঁরা স্লোগান দিতে থাকেন, ‘অবৈধ মনোনয়ন মানি না, মানব না।’

মুন্সিগঞ্জ-১ আসেন শাহ মোয়াজ্জেমকে মনোনয়ন দিয়েছে বিএনপি। আর এর প্রতিবাদে গতকাল মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে আবদুল্লাহর সমর্থকেরা বিক্ষোভ দেখান। কাল বিকেলে কুচিয়ামোড়া কলেজ গেট এলাকায় শাহ মোয়াজ্জেমের গাড়িবহরে হামলা করে দুষ্কৃতকারীরা। এ সময় বহরের পাঁচটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয় এবং ১১ জন সমর্থক আহত হন।

আজ সকালে আবদুল্লাহর শ দুয়েক সমর্থক গুলশানের কার্যালয়ে এসে বিক্ষোভ শুরু করেন।

আজকের বিক্ষোভে শামিল হন কুমিল্লা-৪ আসনে মঞ্জুরুল আহসান মুন্সির সমর্থকেরা। এই আসেন ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল জেএসডির আবদুল মালেক রতনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। বিক্ষোভকারীদের একজন বলছিলেন, ‘মঞ্জুরুল আহসান মুন্সি চারবারের নির্বাচিত সাংসদ। বারবার তিনি দলকে জিতিয়েছেন। সেখানে একজন অচেনা লোককে মনোনয়ন দেওয়া হলো। এটা মানা যায় না।’

আজ বিক্ষোভ চলার সময় বেলা ১১টার পর কার্যালয়ের ভেতর থেকে মাইকে ঘোষণা আসে, ‘এখানে বিক্ষোভ করে লাভ নেই। এখান থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয় না।’

এ ঘোষণা শোনার পর বিক্ষোভকারীরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে কার্যালয়ের ফটকে লাথি দিতে শুরু করেন। বেলা সাড়ে ১১টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিক্ষোভ চলছিল।

Adds Banner_2024

এখানে বিক্ষোভ করে লাভ নেই

আপডেটের সময় : ০৬:৫৯:৩১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধি: বিএনপির চেয়ারপারসন কারাবন্দী খালেদা জিয়ার রাজধানীর গুলশানের কার্যালয়ে আজ রোববার সকালেও দলীয় মনোনয়নবঞ্চিত প্রার্থীর সমর্থকদের বিক্ষোভ চলছে। গতকাল শনিবার বিক্ষোভ চলাকালে ভেতর থেকে মাইকিং করে শান্ত থাকতে বলা হয়েছিল। আজ বলা হয়েছে, ‘এখানে বিক্ষোভ করে লাভ নেই।’ ভেতরের সেই ঘোষণাকারী কে, গতকালের মতো আজও তা জানা যায়নি।

গতকাল সন্ধ্যায় মনোনয়ন না পাওয়া এহছানুল হক মিলন, তৈমুর আলম খন্দকার ও সেলিমুজ্জামান সেলিমের অনুসারী কর্মী-সমর্থকেরা গুলশান কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করেন এবং কার্যালয় ভাঙচুর করেন। তাঁরা কার্যালয়ের প্রধান ফটকে লাথি মারেন, ধাক্কা দেন, ইটপাটকেল ছুড়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। তাঁদের ছোড়া ইটের আঘাতে কার্যালয়ের জানালার কাচ ভেঙে যায়। রাতেও তাঁদের এই বিক্ষোভ চলছিল।

Trulli

বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে গতকাল রাতে মাইকিং করে বলা হয়েছিল, ‘আপনারা ধৈর্য ধরুন, শান্ত থাকুন। আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া কারাগারে, তারেক রহমান বিদেশে। এ অবস্থায় আপনারা সবাই ধৈর্য ধরুন। আপনারা দলের পরীক্ষিত নেতা-কর্মী।’

আজ সকাল সাড়ে ১০টা থেকে মুন্সিগঞ্জ-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী শেখ আবদুল্লাহ এবং কুমিল্লা-৪ আসনে মঞ্জুরুল আহসান মুন্সির সমর্থকেরা বিক্ষোভ করতে থাকেন। তাঁরা স্লোগান দিতে থাকেন, ‘অবৈধ মনোনয়ন মানি না, মানব না।’

মুন্সিগঞ্জ-১ আসেন শাহ মোয়াজ্জেমকে মনোনয়ন দিয়েছে বিএনপি। আর এর প্রতিবাদে গতকাল মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে আবদুল্লাহর সমর্থকেরা বিক্ষোভ দেখান। কাল বিকেলে কুচিয়ামোড়া কলেজ গেট এলাকায় শাহ মোয়াজ্জেমের গাড়িবহরে হামলা করে দুষ্কৃতকারীরা। এ সময় বহরের পাঁচটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয় এবং ১১ জন সমর্থক আহত হন।

আজ সকালে আবদুল্লাহর শ দুয়েক সমর্থক গুলশানের কার্যালয়ে এসে বিক্ষোভ শুরু করেন।

আজকের বিক্ষোভে শামিল হন কুমিল্লা-৪ আসনে মঞ্জুরুল আহসান মুন্সির সমর্থকেরা। এই আসেন ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল জেএসডির আবদুল মালেক রতনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। বিক্ষোভকারীদের একজন বলছিলেন, ‘মঞ্জুরুল আহসান মুন্সি চারবারের নির্বাচিত সাংসদ। বারবার তিনি দলকে জিতিয়েছেন। সেখানে একজন অচেনা লোককে মনোনয়ন দেওয়া হলো। এটা মানা যায় না।’

আজ বিক্ষোভ চলার সময় বেলা ১১টার পর কার্যালয়ের ভেতর থেকে মাইকে ঘোষণা আসে, ‘এখানে বিক্ষোভ করে লাভ নেই। এখান থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয় না।’

এ ঘোষণা শোনার পর বিক্ষোভকারীরা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে কার্যালয়ের ফটকে লাথি দিতে শুরু করেন। বেলা সাড়ে ১১টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিক্ষোভ চলছিল।