রাজশাহী , রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না? আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর অধিকার আমার নেই ফের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম, দৃশ্যমান পদক্ষেপ চান কোটা আন্দোলনকারীরা আবাসন এবং হসপিটালিটি খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী চীন : প্রধানমন্ত্রী ব্যারিকেড ভেঙে ফেলেছেন শিক্ষার্থীরা, যাচ্ছেন বঙ্গভবনের দিকে ট্রাম্পের ওপর হামলা নির্বাচনী প্রচারণায় কতটা প্রভাব ফেলবে? পূর্বঘোষিত গণপদযাত্রায় অংশ নিতে জড়ো হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা ৭ অঞ্চলে সন্ধ্যার মধ্যে ঝড়ের আভাস কানে গুলিবিদ্ধ ট্রাম্প, বলছেন– যুক্তরাষ্ট্রে এমন হামলা অবিশ্বাস্য মামলা তুলে নিতে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম কোটা আন্দোলনকারীদের কোটা আন্দোলন : গণপদযাত্রা ও রাষ্ট্রপতিকে স্মারকলিপি দেবেন শিক্ষার্থীরা ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার : প্রধানমন্ত্রী পেনশন স্কিম নিয়ে ভুল বোঝাবুঝি দূর হয়েছে : ওবায়দুল কাদের ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা সরকার চাইলে কোটা পরিবর্তন করতে পারবে, হাইকোর্টের রায় প্রকাশ ব্যারিকেড ভেঙে ‘ভুয়া ভুয়া’ স্লোগান, উত্তাল শাহবাগ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ আন্দোলনকে বেগবান করতে জনসংযোগ, সমন্বয় করে কর্মসূচির ঘোষণা আজ চলমান কোটা আন্দোলন নিয়ে ছাত্রলীগের সংবাদ সম্মেলন কোটা আন্দোলনকারীদের জন্য আদালতের দরজা সবসময় খোলা

এবার শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তি চেয়ে ক্লাস বর্জনের ঘোষণা

  • আপডেটের সময় : ১০:৩৭:৩৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ১০৮ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: এবার ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের একদল শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার হওয়া শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তি দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে।

শনিবার (৮ ডিসেম্বর) রাজধানীর বেইলি রোডে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির সামনে পোস্টার ও প্ল্যাকার্ড নিয়ে বিক্ষোভ করেন তারা। কর্মসূচিতে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা বলেন, শিক্ষক হাসনা হেনাকে মুক্তি না দিলে রোববার (৯ ডিসেম্বর) থেকে সব শ্রেণির ক্লাস বর্জন করা হবে।

Trulli

এর আগে নব শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীকে আত্মহত্যায় প্ররোচণা দেওয়ার মামলায় গত বুধবার (৫ ডিসেম্বর) রাজধানীর উত্তরা থেকে হাসনা হেনাকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ। এই শ্রেণিশিক্ষক এখন কারাগারে রয়েছেন।

গত ৩ ডিসেম্বর দুপুরে রাজধানীর শান্তিনগরে নিজেদের বাসায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে অরিত্রী অধিকারী (১৫)। অরিত্রীর বাবার ভাষ্যে, ২ ডিসেম্বর পরীক্ষা চলাকালে অরিত্রীর কাছ থেকে একটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনার পর স্কুল কর্তৃপক্ষ তার মা-বাবাকে স্কুলে ডেকে তাকে টিসি দেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানায়। তখন মা-বাবার সঙ্গে ‘অনভিপ্রেত আচরণ’ হয়েছে মনে করে স্কুল থেকে অরিত্রী বাসায় ফিরে ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দেয়। পরে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় ৪ ডিসেম্বর রাতে রাজধানীর পল্টন থানায় ‘আত্মহত্যার প্ররোচণাকারী’ হিসেবে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন অরিত্রীর বাবা। আসামি তিনজন হলেন প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখার প্রধান জিনাত আক্তার ও শ্রেণি শিক্ষিকা হাসনা হেনা।

অরিত্রী ও তার অভিভাবকদের লাঞ্ছিত করার বিচার দাবিতে টানা কয়েকদিন ক্লাস বর্জনের পাশাপাশি বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থীরা। এরমধ্যে হাসনা হেনাকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়। পরে শিক্ষকদের আশ্বাসে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন স্থগিত করে।

কিন্তু শুক্রবার (৭ ডিসেম্বর) থেকে শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তির দাবিতে ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের বর্তমান ও সাবেক ছাত্রীদের ব্যানারে আরেকদল শিক্ষার্থী বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু করে। শনিবারও বিক্ষোভ করে ক্লাস বর্জনের ঘোষণা দেয় তারা।

বিক্ষোভে অংশ নেওয়া একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী আনিকা ইশরাফ সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আমাদের শিক্ষক হাসনা হেনাকে মুক্তি না দিলে রোববার (৯ ডিসেম্বর) সব শ্রেণীর ক্লাস বর্জন করবো। বর্তমানে ভিকারুননিসা নূন স্কুলে বার্ষিক পরীক্ষা চলছে।

বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা অরিত্রীর মৃত্যুর ঘটনায় সুষ্ঠু বিচার চেয়ে বলেন, ঘটে যাওয়া এই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় শিক্ষক হাসনা হেনার কোনো দায় নেই। তাদের হাতে থাকা বিভিন্ন পোস্টারে লেখা আছে- ‘হাসনা হেনা আপার মুক্তি চাই’, ‘জাতির কারিগর কেন কারাগারে’, ‘লিখতে শিখিয়েছে যে হাত, সে কেন খাবে জেলের ভাত’ ইত্যাদি।

Adds Banner_2024
জনপ্রিয় পোস্ট
Adds Banner_2024

বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ নেতার মায়ের মৃত্যুতে শোক

Adds Banner_2024

এবার শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তি চেয়ে ক্লাস বর্জনের ঘোষণা

আপডেটের সময় : ১০:৩৭:৩৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধি: এবার ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের একদল শিক্ষার্থী গ্রেপ্তার হওয়া শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তি দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে।

শনিবার (৮ ডিসেম্বর) রাজধানীর বেইলি রোডে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির সামনে পোস্টার ও প্ল্যাকার্ড নিয়ে বিক্ষোভ করেন তারা। কর্মসূচিতে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা বলেন, শিক্ষক হাসনা হেনাকে মুক্তি না দিলে রোববার (৯ ডিসেম্বর) থেকে সব শ্রেণির ক্লাস বর্জন করা হবে।

Trulli

এর আগে নব শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীকে আত্মহত্যায় প্ররোচণা দেওয়ার মামলায় গত বুধবার (৫ ডিসেম্বর) রাজধানীর উত্তরা থেকে হাসনা হেনাকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ। এই শ্রেণিশিক্ষক এখন কারাগারে রয়েছেন।

গত ৩ ডিসেম্বর দুপুরে রাজধানীর শান্তিনগরে নিজেদের বাসায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে অরিত্রী অধিকারী (১৫)। অরিত্রীর বাবার ভাষ্যে, ২ ডিসেম্বর পরীক্ষা চলাকালে অরিত্রীর কাছ থেকে একটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনার পর স্কুল কর্তৃপক্ষ তার মা-বাবাকে স্কুলে ডেকে তাকে টিসি দেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানায়। তখন মা-বাবার সঙ্গে ‘অনভিপ্রেত আচরণ’ হয়েছে মনে করে স্কুল থেকে অরিত্রী বাসায় ফিরে ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দেয়। পরে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় ৪ ডিসেম্বর রাতে রাজধানীর পল্টন থানায় ‘আত্মহত্যার প্ররোচণাকারী’ হিসেবে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন অরিত্রীর বাবা। আসামি তিনজন হলেন প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখার প্রধান জিনাত আক্তার ও শ্রেণি শিক্ষিকা হাসনা হেনা।

অরিত্রী ও তার অভিভাবকদের লাঞ্ছিত করার বিচার দাবিতে টানা কয়েকদিন ক্লাস বর্জনের পাশাপাশি বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থীরা। এরমধ্যে হাসনা হেনাকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়। পরে শিক্ষকদের আশ্বাসে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন স্থগিত করে।

কিন্তু শুক্রবার (৭ ডিসেম্বর) থেকে শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তির দাবিতে ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের বর্তমান ও সাবেক ছাত্রীদের ব্যানারে আরেকদল শিক্ষার্থী বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু করে। শনিবারও বিক্ষোভ করে ক্লাস বর্জনের ঘোষণা দেয় তারা।

বিক্ষোভে অংশ নেওয়া একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী আনিকা ইশরাফ সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আমাদের শিক্ষক হাসনা হেনাকে মুক্তি না দিলে রোববার (৯ ডিসেম্বর) সব শ্রেণীর ক্লাস বর্জন করবো। বর্তমানে ভিকারুননিসা নূন স্কুলে বার্ষিক পরীক্ষা চলছে।

বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা অরিত্রীর মৃত্যুর ঘটনায় সুষ্ঠু বিচার চেয়ে বলেন, ঘটে যাওয়া এই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় শিক্ষক হাসনা হেনার কোনো দায় নেই। তাদের হাতে থাকা বিভিন্ন পোস্টারে লেখা আছে- ‘হাসনা হেনা আপার মুক্তি চাই’, ‘জাতির কারিগর কেন কারাগারে’, ‘লিখতে শিখিয়েছে যে হাত, সে কেন খাবে জেলের ভাত’ ইত্যাদি।