রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের

সিলেট রুটে চলন্ত ট্রেনে ‘পাথর নিক্ষেপ’ আতঙ্ক

  • আপডেটের সময় : ১০:১৭:১৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ১০৪ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: চলন্ত ট্রেনে যাত্রীদের জন্য বড় আতঙ্কের নাম ‘পাথর নিক্ষেপ’। ২০১৩ সালে সীতাকুণ্ডে চলন্ত ট্রেনে দুষ্কৃতিকারীদের ছোড়া পাথরের আঘাতে প্রীতি দাশ নামের এক প্রকৌশলী নিহত হওয়ার পর একের পর এক এ ধরনের ঘটনা ঘটতে থাকে।

শুধু ২০১৭ সালে দেড় শতাধিক পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে সারাদেশে। দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নিরাপদ রুট হিসেবে ঢাকা-সিলেট রেলপথকে বিবেচনা করা হলেও এবার সে রুটেও এ আতঙ্ক দেখা গেছে।

Trulli

শুক্রবার (৭ ডিসেম্বর) রাতে সিলেট থেকে ঢাকাগামী উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় স্টেশনের কাছে একের পর এক পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। এতে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন যাত্রীরা।

যাত্রীরা জানান, কুলাউড়া স্টেশন ছেড়ে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে ট্রেনটি পৌঁছালে একের পর এক পাথর ছুড়তে থাকে দুষ্কৃতিকারীরা। এতে ট্রেনের কাঁচের জানালা ভেঙে গেলেও বড় ধরনের ক্ষতির হাত থেকে বেঁচে যান যাত্রীরা। তাদের ভাষ্যমতে প্রায় তিন মিনিট ধরে ধারাবাহিকভাবে পাথর আসতে থাকে।

ট্রেনের যাত্রী চীনা আন্তর্জাতিক বেতারের বাংলাদেশ মনিটরকারী দিদারুল ইকবাল বলেন, ট্রেনে চড়ে সিলেট থেকে ঢাকা যাচ্ছিলাম। ট্রেনটি মৌলভীবাজারের কুলাউড়া স্টেশন থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার ছেড়ে আসার পর দুষ্কৃতিকারীরা চলন্ত রেলের বগিকে লক্ষ্য করে একের পর এক পাথর নিক্ষেপ করতে থাকে। ঘটনাচক্রে একটি পাথর প্রথম শ্রেণির বগিতে অবস্থানরত আমাদের পাশের জানালায় আঘাত হানে। জানালার পাশেই ছিল আমার স্ত্রী তাছলিমা আক্তার লিমা এবং ছেলে লাবীব ইকবাল, ওই সময় তারা সিটে হেলান দিয়ে ঘুমিয়ে থাকায় অল্পের জন্য বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পায়। আমি ছিলাম তাদের পাশাপাশি অপর পাশের অন্য জানালার কাছে। দুষ্কৃতিকারীদের ছোড়া পাথর আমাদের কারো গায়ে না লাগলেও জানালার ভাঙা কাঁচের টুকরো এসে আমার গায়ে লাগে।

এ ঘটনার পর সিলেট রুটের রেল যাত্রীদের মধ্যে নতুন করে পাথর নিক্ষেপ আতঙ্ক বেড়েছে। দেশব্যাপী একই কায়দায় সংঘঠিত এই পাথর সন্ত্রাসের কোনো সদস্যকে আইনের আওতায় এনে এর কারণ জানা যায়নি এখনও। এ অবস্থায় ট্রেনের যাত্রীদের বিশেষভাবে নিরাপদ থাকার কথা বলা হলেও আক্রমণ ঠেকানো যাচ্ছে না। দেশের অন্যান্য এলাকায় বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হলেও নিরাপদ রুট হিসেবে সিলেট অঞ্চলে তার কোনো ব্যবস্থা নেই। ফলে বর্তমানে এই রুটের যাত্রীদের মধ্যেও পাথর নিক্ষেপ আতঙ্ক শুরু হয়েছে।

এ বিষয়ে কুলাউড়া রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল মালেক জানান, আমাদের কাছে এ সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ আসেনি। সিলেট রুটে এরকম কোনো ঘটনা এর আগে আমাদের নলেজে আসেনি। এমন কিছু ঘটে থাকলে তা একেবারে নতুন। আমরা খোঁজ নিয়ে এলাকাটি চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেব।

কুলাউড়া জংশনের স্টেশন মাস্টার মফিজুল ইসলাম বলেন, এই রকম কোনো ঘটনা এর আগে আমরা এ রুটে শুনিনি। দেশের অন্যান্য জায়গায় আমরা এরকম ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। এবার যদি সিলেট রুটে তা ঘটে তাহলে রাতের যাত্রীদের মধ্যে অ্যাওয়ারনেস বিল্ড করতে হবে। আমরা সে অনুযায়ী কাজ করবো।

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা

Adds Banner_2024

সিলেট রুটে চলন্ত ট্রেনে ‘পাথর নিক্ষেপ’ আতঙ্ক

আপডেটের সময় : ১০:১৭:১৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৮

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: চলন্ত ট্রেনে যাত্রীদের জন্য বড় আতঙ্কের নাম ‘পাথর নিক্ষেপ’। ২০১৩ সালে সীতাকুণ্ডে চলন্ত ট্রেনে দুষ্কৃতিকারীদের ছোড়া পাথরের আঘাতে প্রীতি দাশ নামের এক প্রকৌশলী নিহত হওয়ার পর একের পর এক এ ধরনের ঘটনা ঘটতে থাকে।

শুধু ২০১৭ সালে দেড় শতাধিক পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে সারাদেশে। দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নিরাপদ রুট হিসেবে ঢাকা-সিলেট রেলপথকে বিবেচনা করা হলেও এবার সে রুটেও এ আতঙ্ক দেখা গেছে।

Trulli

শুক্রবার (৭ ডিসেম্বর) রাতে সিলেট থেকে ঢাকাগামী উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় স্টেশনের কাছে একের পর এক পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। এতে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন যাত্রীরা।

যাত্রীরা জানান, কুলাউড়া স্টেশন ছেড়ে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে ট্রেনটি পৌঁছালে একের পর এক পাথর ছুড়তে থাকে দুষ্কৃতিকারীরা। এতে ট্রেনের কাঁচের জানালা ভেঙে গেলেও বড় ধরনের ক্ষতির হাত থেকে বেঁচে যান যাত্রীরা। তাদের ভাষ্যমতে প্রায় তিন মিনিট ধরে ধারাবাহিকভাবে পাথর আসতে থাকে।

ট্রেনের যাত্রী চীনা আন্তর্জাতিক বেতারের বাংলাদেশ মনিটরকারী দিদারুল ইকবাল বলেন, ট্রেনে চড়ে সিলেট থেকে ঢাকা যাচ্ছিলাম। ট্রেনটি মৌলভীবাজারের কুলাউড়া স্টেশন থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার ছেড়ে আসার পর দুষ্কৃতিকারীরা চলন্ত রেলের বগিকে লক্ষ্য করে একের পর এক পাথর নিক্ষেপ করতে থাকে। ঘটনাচক্রে একটি পাথর প্রথম শ্রেণির বগিতে অবস্থানরত আমাদের পাশের জানালায় আঘাত হানে। জানালার পাশেই ছিল আমার স্ত্রী তাছলিমা আক্তার লিমা এবং ছেলে লাবীব ইকবাল, ওই সময় তারা সিটে হেলান দিয়ে ঘুমিয়ে থাকায় অল্পের জন্য বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পায়। আমি ছিলাম তাদের পাশাপাশি অপর পাশের অন্য জানালার কাছে। দুষ্কৃতিকারীদের ছোড়া পাথর আমাদের কারো গায়ে না লাগলেও জানালার ভাঙা কাঁচের টুকরো এসে আমার গায়ে লাগে।

এ ঘটনার পর সিলেট রুটের রেল যাত্রীদের মধ্যে নতুন করে পাথর নিক্ষেপ আতঙ্ক বেড়েছে। দেশব্যাপী একই কায়দায় সংঘঠিত এই পাথর সন্ত্রাসের কোনো সদস্যকে আইনের আওতায় এনে এর কারণ জানা যায়নি এখনও। এ অবস্থায় ট্রেনের যাত্রীদের বিশেষভাবে নিরাপদ থাকার কথা বলা হলেও আক্রমণ ঠেকানো যাচ্ছে না। দেশের অন্যান্য এলাকায় বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হলেও নিরাপদ রুট হিসেবে সিলেট অঞ্চলে তার কোনো ব্যবস্থা নেই। ফলে বর্তমানে এই রুটের যাত্রীদের মধ্যেও পাথর নিক্ষেপ আতঙ্ক শুরু হয়েছে।

এ বিষয়ে কুলাউড়া রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল মালেক জানান, আমাদের কাছে এ সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ আসেনি। সিলেট রুটে এরকম কোনো ঘটনা এর আগে আমাদের নলেজে আসেনি। এমন কিছু ঘটে থাকলে তা একেবারে নতুন। আমরা খোঁজ নিয়ে এলাকাটি চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেব।

কুলাউড়া জংশনের স্টেশন মাস্টার মফিজুল ইসলাম বলেন, এই রকম কোনো ঘটনা এর আগে আমরা এ রুটে শুনিনি। দেশের অন্যান্য জায়গায় আমরা এরকম ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। এবার যদি সিলেট রুটে তা ঘটে তাহলে রাতের যাত্রীদের মধ্যে অ্যাওয়ারনেস বিল্ড করতে হবে। আমরা সে অনুযায়ী কাজ করবো।