রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ শহীদুল্লাহ হলের সামনে ফের সংঘর্ষ, ৪ ককটেল বিস্ফোরণ চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাবিতে কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, আহত অন্তত ৮০ ঢাবিতে আন্দোলনকারী-ছাত্রলীগ মুখোমুখি, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না?

নেত্রকোনায় কৃষকলীগ নেতা হত্যায় গ্রেফতার ৩

  • আপডেটের সময় : ০৪:৪৮:৩৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ১১৪ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

নেত্রকোনা প্রতিনিধি: নেত্রকোনায় কৃষকলীগ নেতা এ.কে.এম মাসুদ ফারুক (৫৩) হত্যা মামলায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত ছয়জন আসামি গ্রেফতার হয়েছেন।

সোমবার (০৩ ডিসেম্বর) দুপুরে নেত্রকোনা থেকে একজনকে ও দিবাগত রাত তিনটায় ঢাকা থেকে দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়। এদের মধ্যে নেত্রকোনা শহর থেকে আসাদুজ্জামান রিয়াদ ও ঢাকার বাড্ডা থেকে মো. কাউসার তালুকদার ও মো. সাফায়েত গ্রেফতার হন।

Trulli

রিয়াদ নেত্রকোনা সদরের প্রতাপপুর এলাকার মো. জানু মিয়ার ছেলে, কাউসার বালুয়াখালি গ্রামের মৃত সম্রাট তালুকদারের ছেলে ও একই এলাকার মো. উমর আলী’র ছেলে সাফায়েত।

একই মামলায় এর আগে গ্রেফতার অপর তিনজন হলেন নেত্রকোনা সদরের বালুয়াখালি গ্রামের মো. শাহজাহান তালুকদার সবুজ, তার স্ত্রী সেলিনা আক্তার এবং ছোট ভাই রফিকুল ইসলাম তালুকদারের স্ত্রী মোসাম্মৎ স্বপ্না পারভীন।

নেত্রকোনা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বোরহান উদ্দিন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, জমিজমা সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জেরে বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) সন্ধ্যায় নেত্রকোনা শহরের রাজুর বাজার এলাকার বালুয়াখালি গ্রামে কৃষকলীগ নেতা মাসুদকে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

মাসুদ নেত্রকোনার বাহির চাপড়া এলাকার মৃত আব্দুল মুকিবের ছেলে। তিনি জেলা কৃষক লীগের সদস্য ও পৌর কমিটির সাবেক আহ্বায়ক ছিলেন। হামলায় মাসুদের দেহ থেকে হাত-পা বিচ্ছিন্ন ও ক্ষত-বিক্ষত করে দেন প্রতিপক্ষের লোকজন। পরে তার মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

এ ঘটনায় শনিবার (০১ ডিসেম্বর) দিবাগত রাতে নিহতের ছোটভাই আবুল খায়ের মঈন ফারুক একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় ২০ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাতদের আসামি করা হয়।

Adds Banner_2024

নেত্রকোনায় কৃষকলীগ নেতা হত্যায় গ্রেফতার ৩

আপডেটের সময় : ০৪:৪৮:৩৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ ডিসেম্বর ২০১৮

নেত্রকোনা প্রতিনিধি: নেত্রকোনায় কৃষকলীগ নেতা এ.কে.এম মাসুদ ফারুক (৫৩) হত্যা মামলায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত ছয়জন আসামি গ্রেফতার হয়েছেন।

সোমবার (০৩ ডিসেম্বর) দুপুরে নেত্রকোনা থেকে একজনকে ও দিবাগত রাত তিনটায় ঢাকা থেকে দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়। এদের মধ্যে নেত্রকোনা শহর থেকে আসাদুজ্জামান রিয়াদ ও ঢাকার বাড্ডা থেকে মো. কাউসার তালুকদার ও মো. সাফায়েত গ্রেফতার হন।

Trulli

রিয়াদ নেত্রকোনা সদরের প্রতাপপুর এলাকার মো. জানু মিয়ার ছেলে, কাউসার বালুয়াখালি গ্রামের মৃত সম্রাট তালুকদারের ছেলে ও একই এলাকার মো. উমর আলী’র ছেলে সাফায়েত।

একই মামলায় এর আগে গ্রেফতার অপর তিনজন হলেন নেত্রকোনা সদরের বালুয়াখালি গ্রামের মো. শাহজাহান তালুকদার সবুজ, তার স্ত্রী সেলিনা আক্তার এবং ছোট ভাই রফিকুল ইসলাম তালুকদারের স্ত্রী মোসাম্মৎ স্বপ্না পারভীন।

নেত্রকোনা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বোরহান উদ্দিন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, জমিজমা সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জেরে বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) সন্ধ্যায় নেত্রকোনা শহরের রাজুর বাজার এলাকার বালুয়াখালি গ্রামে কৃষকলীগ নেতা মাসুদকে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

মাসুদ নেত্রকোনার বাহির চাপড়া এলাকার মৃত আব্দুল মুকিবের ছেলে। তিনি জেলা কৃষক লীগের সদস্য ও পৌর কমিটির সাবেক আহ্বায়ক ছিলেন। হামলায় মাসুদের দেহ থেকে হাত-পা বিচ্ছিন্ন ও ক্ষত-বিক্ষত করে দেন প্রতিপক্ষের লোকজন। পরে তার মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

এ ঘটনায় শনিবার (০১ ডিসেম্বর) দিবাগত রাতে নিহতের ছোটভাই আবুল খায়ের মঈন ফারুক একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় ২০ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাতদের আসামি করা হয়।