রাজশাহী , শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার ‘টিউলিপ’ভীতি

  • আপডেটের সময় : ১২:৪০:০৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১ ডিসেম্বর ২০১৮
  • ৮৪ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্ক: নতুন কোন সরকার ক্ষমতায় এলে আগের সরকারের নেয়া নানা কর্মসূচি বা বরাদ্দ দেয়া অনেক প্রোজেক্ট বাতিল করে দেয়, অথবা বরাদ্দ কমিয়ে দেয়া হয়৷ এমন ঘটনা বেশ কয়েকবার ঘটেছে আমাদের দেশে৷ দেশের উন্নয়নও বাধাগ্রস্থ হয় এসব সিদ্ধান্তে। তবে ২০০১ সালে বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পরে এমনই এক কাণ্ড ঘটিয়েছিল তারা, যেটার কারণে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও ভাবমূর্তির সংকটে পড়তে হয়েছিল বাংলাদেশকে৷

শুধু তাই নয়, চুক্তি বাতিলের কারণে বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছিল নেদারল্যান্ডের একটি প্রতিষ্ঠান, পরে বিশাক অঙ্কের জরিমানা গুণতে হয়েছে সরকারকে৷ আর এতসব কাণ্ড ঘটেছিল শুধুমাত্র প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর অশিক্ষা আর অদ্ভুত একগুঁয়েমির কারণে। চলুন তাহলে, শোনা যাক সেই গল্প৷

Trulli

আওয়ামী লীগ যখন ১৯৯৬ সালে সরকার গঠন করেছিল, তখন সরকারী উদ্যোগে দশ হাজার স্কুলে কম্পিউটার দেয়ার একটা উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। সেই উদ্যোগের কথা জানতে পেরে নেদারল্যান্ড সরকারের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয়েছিল বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে। এই উদ্যোগে তারা সহযোগী হতে চেয়েছিল। বিনিময়ে তাদের শর্ত ছিল, কম্পিউটারগুলো নেদারল্যান্ড থেকে কিনতে হবে৷ সেভাবেই কথাবার্তা এগিয়ে যাচ্ছিল। নেদারল্যান্ডের একটা বড় কম্পিউটার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ‘টিউলিপ কম্পিউটার্স‘ এর সঙ্গে কম্পিউটার কেনার ব্যাপারে চুক্তিও হয়ে গিয়েছিল। এটা ২০০০-২০০১ সালের কথা৷

এরপরেই ক্ষমতার পালাবদল হলো বাংলাদেশে৷ নির্বাচনে জিতে সরকার গঠণ করলো বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট৷ ২০০২ সালের এপ্রিলে মন্ত্রীসভার এক বৈঠকে এই চুক্তির কথাটা উঠলো। প্রায় আট হাজার শিক্ষককে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দেয়া হবে, দশ হাজার কম্পিউটার বাংলাদেশে আসবে, এই ব্যাপারগুলো তখন মোটামুটি চূড়ান্ত। সরকার পরিবর্তিত হওয়ায় মন্ত্রীসভার বৈঠকে এই চুক্তিটার কথা আবার তোলা হয়েছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতার জন্যে। বৈঠকে অনুমোদন দেয়া হলেই শেষ হয়ে যাবে সব ফর্মালিটিজ৷ এরপরে শুধু কয়েকটা স্বাক্ষরের ব্যাপার৷

কিন্ত মন্ত্রীসভার সেই বৈঠকে হুট করেই এই চুক্তির বিরোধিতা করে বসলেন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া! তার এক কথা, এই চুক্তি বাতিল করতে হবে৷ কারণ কি? এই প্রতিষ্ঠানের নামের মধ্যে ‘টিউলিপ’ আছে, আর টিউলিপ হচ্ছে শেখ রেহানার মেয়ের নাম। শুনে চোখ কপালে উঠলো শিক্ষামন্ত্রী ওসমান ফারুক এবং শিক্ষাসচিবের৷ তারা খালেদা জিয়াকে বোঝালেন, এই চুক্তিটা এভাবে বাতিল করার অধিকার বাংলাদেশ সরকারের নেই। করতে গেলে টিউলিপ কম্পিউটার্স বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে।

তাছাড়া নেদারল্যান্ড ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশ, বাংলাদেশ প্রতিবছর বড় অঙ্কের বৈদেশীক সাহায্য পায় তাদের কাছ থেকে, এগুলোও বললেন। খালেদা জিয়ার এক কথা, এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করতে হবে৷ তাকে কেউ বুঝিয়েছে, এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে শেখ রেহানার সম্পর্ক আছে। শিক্ষামন্ত্রী আর শিক্ষাসচিব তখন মন্ত্রীপরিষদের মূখ্য সচিবের কাছে গেলেন, তিনি আবার খালেদা জিয়ার খুব আস্থাভাজন ছিলেন।

মূখ্য সচিবও বোঝালেন প্রধানমন্ত্রীকে, টিউলিপ কম্পিউটার্স নেদারল্যান্ডের প্রতিষ্ঠান, এটার সঙ্গে শেখ রেহানা কিংবা শেখ হাসিনার দূর দূরান্তের সম্পর্কও নেই৷ কিন্ত কে শোনে কার কথা! তখন তাকে বলা হলো, এই চুক্তি বাতিল করতে গেলে বিরাট অঙ্কের ক্ষতিপূরণ দিতে হতে পারে বাংলাদেশ সরকারকে। এতকিছু বলেও গলানো গেল না খালেদা জিয়ার, তিনি নিজের অবস্থানে অনড় রইলেন। তার কথা একটাই, এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করা যাবে না।

চুক্তি বাতিল হয়ে গেল। চুক্তির ধারা মোতাবেক ৪.২ মিলিয়ন পাউন্ড বা বত্রিশ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চাইলো টিউলিপ কম্পিউটার্স৷ সেটা দিতেও রাজী ছিল না খালেদা জিয়ার সরকার। মন্ত্রীসভার বেশ কয়েকজন বোঝানোর চেষ্টা করলেন তাকে, তিনি বুঝতে চাইলেন না কিছুই। ফলে যা হবার তা-ই হলো, আদালতে গেল টিউলিপ কম্পিউটার্স, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ দাবী করে মামলা করলো প্রতিষ্ঠানটি।

আদালতের রায়ে টিউলিপ কম্পিউটার্সের প্রাপ্য ক্ষতিপূরণের টাকা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল বাংলাদেশ সরকারকে। সেটা দিতেও গড়িমসি করছিল তৎকালীন সরকার৷ যথাসময়ে ক্ষতিপূরণ না দেয়ায় নেদারল্যান্ড সরকার বাংলাদেশকে দেয়া অর্থসাহায্য পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছিল। ফলে বঞ্চিত হয়েছিল এদেশের অসহায় মানুষ। আর এতসব কাণ্ড ঘটেছিল শুধুমাত্র একজন ব্যাক্তির অশিক্ষা, ভ্রান্ত ধারণা, জেদী আর একগুঁয়ে মনোভাবের কারণে৷ তার দলের, তার মন্ত্রীসভার সদস্যরাই তাকে বোঝানোর চেষ্টা করেছেন, তিনি বুঝতে চাননি৷ টিউলিপ কম্পিউটার্সের সঙ্গে যে শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপের কোন সম্পর্ক নেই, এই সাধারণ জিনিসটাই তার মাথায় ঢোকানো যায়নি।

গালগল্প করছি ভাববেন না৷ এই ঘটনাটার প্রায় পুরোটাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুখ থেকে শোনা। ২০১৪ সালে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে ডিজিটাল সেন্টার উদ্যোক্তা সম্মেলনে টিউলিপ কম্পিউটারের এই ঘটনাটা বলেছিলেন তিনি। খালেদা জিয়ার এই জেদ, এই একগুঁয়েমির ফলাফলটা বাংলাদেশ ভোগ করেছে, দেশের সাধারণ মানুষ ভুক্তভোগী হয়েছে৷ কারণ বৈদেশীক সাহায্য বন্ধ হলে অসহায় মানুষগুলোর হকটাই মারা যায়। বৈদেশীক অঙ্গনে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হবার ব্যাপারটা তো আছেই৷ চুক্তি অনুযায়ী সেই কম্পিউটারগুলো এলে তথ্য প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ এখন অনেকটাই এগিয়ে থাকতে পারতো৷ অন্তত পাঁচটা বছর পিছিয়ে তো আমরা পড়েছিই৷ শিক্ষাটা যার ভেতরে নেই, শিক্ষার গুরুত্ব তিনি বা তারা কি করে অনুভব করবেন বলুন

Adds Banner_2024

খালেদা জিয়ার ‘টিউলিপ’ভীতি

আপডেটের সময় : ১২:৪০:০৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১ ডিসেম্বর ২০১৮

জনপদ ডেস্ক: নতুন কোন সরকার ক্ষমতায় এলে আগের সরকারের নেয়া নানা কর্মসূচি বা বরাদ্দ দেয়া অনেক প্রোজেক্ট বাতিল করে দেয়, অথবা বরাদ্দ কমিয়ে দেয়া হয়৷ এমন ঘটনা বেশ কয়েকবার ঘটেছে আমাদের দেশে৷ দেশের উন্নয়নও বাধাগ্রস্থ হয় এসব সিদ্ধান্তে। তবে ২০০১ সালে বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পরে এমনই এক কাণ্ড ঘটিয়েছিল তারা, যেটার কারণে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও ভাবমূর্তির সংকটে পড়তে হয়েছিল বাংলাদেশকে৷

শুধু তাই নয়, চুক্তি বাতিলের কারণে বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছিল নেদারল্যান্ডের একটি প্রতিষ্ঠান, পরে বিশাক অঙ্কের জরিমানা গুণতে হয়েছে সরকারকে৷ আর এতসব কাণ্ড ঘটেছিল শুধুমাত্র প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর অশিক্ষা আর অদ্ভুত একগুঁয়েমির কারণে। চলুন তাহলে, শোনা যাক সেই গল্প৷

Trulli

আওয়ামী লীগ যখন ১৯৯৬ সালে সরকার গঠন করেছিল, তখন সরকারী উদ্যোগে দশ হাজার স্কুলে কম্পিউটার দেয়ার একটা উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। সেই উদ্যোগের কথা জানতে পেরে নেদারল্যান্ড সরকারের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয়েছিল বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে। এই উদ্যোগে তারা সহযোগী হতে চেয়েছিল। বিনিময়ে তাদের শর্ত ছিল, কম্পিউটারগুলো নেদারল্যান্ড থেকে কিনতে হবে৷ সেভাবেই কথাবার্তা এগিয়ে যাচ্ছিল। নেদারল্যান্ডের একটা বড় কম্পিউটার নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ‘টিউলিপ কম্পিউটার্স‘ এর সঙ্গে কম্পিউটার কেনার ব্যাপারে চুক্তিও হয়ে গিয়েছিল। এটা ২০০০-২০০১ সালের কথা৷

এরপরেই ক্ষমতার পালাবদল হলো বাংলাদেশে৷ নির্বাচনে জিতে সরকার গঠণ করলো বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট৷ ২০০২ সালের এপ্রিলে মন্ত্রীসভার এক বৈঠকে এই চুক্তির কথাটা উঠলো। প্রায় আট হাজার শিক্ষককে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দেয়া হবে, দশ হাজার কম্পিউটার বাংলাদেশে আসবে, এই ব্যাপারগুলো তখন মোটামুটি চূড়ান্ত। সরকার পরিবর্তিত হওয়ায় মন্ত্রীসভার বৈঠকে এই চুক্তিটার কথা আবার তোলা হয়েছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতার জন্যে। বৈঠকে অনুমোদন দেয়া হলেই শেষ হয়ে যাবে সব ফর্মালিটিজ৷ এরপরে শুধু কয়েকটা স্বাক্ষরের ব্যাপার৷

কিন্ত মন্ত্রীসভার সেই বৈঠকে হুট করেই এই চুক্তির বিরোধিতা করে বসলেন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া! তার এক কথা, এই চুক্তি বাতিল করতে হবে৷ কারণ কি? এই প্রতিষ্ঠানের নামের মধ্যে ‘টিউলিপ’ আছে, আর টিউলিপ হচ্ছে শেখ রেহানার মেয়ের নাম। শুনে চোখ কপালে উঠলো শিক্ষামন্ত্রী ওসমান ফারুক এবং শিক্ষাসচিবের৷ তারা খালেদা জিয়াকে বোঝালেন, এই চুক্তিটা এভাবে বাতিল করার অধিকার বাংলাদেশ সরকারের নেই। করতে গেলে টিউলিপ কম্পিউটার্স বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে।

তাছাড়া নেদারল্যান্ড ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশ, বাংলাদেশ প্রতিবছর বড় অঙ্কের বৈদেশীক সাহায্য পায় তাদের কাছ থেকে, এগুলোও বললেন। খালেদা জিয়ার এক কথা, এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করতে হবে৷ তাকে কেউ বুঝিয়েছে, এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে শেখ রেহানার সম্পর্ক আছে। শিক্ষামন্ত্রী আর শিক্ষাসচিব তখন মন্ত্রীপরিষদের মূখ্য সচিবের কাছে গেলেন, তিনি আবার খালেদা জিয়ার খুব আস্থাভাজন ছিলেন।

মূখ্য সচিবও বোঝালেন প্রধানমন্ত্রীকে, টিউলিপ কম্পিউটার্স নেদারল্যান্ডের প্রতিষ্ঠান, এটার সঙ্গে শেখ রেহানা কিংবা শেখ হাসিনার দূর দূরান্তের সম্পর্কও নেই৷ কিন্ত কে শোনে কার কথা! তখন তাকে বলা হলো, এই চুক্তি বাতিল করতে গেলে বিরাট অঙ্কের ক্ষতিপূরণ দিতে হতে পারে বাংলাদেশ সরকারকে। এতকিছু বলেও গলানো গেল না খালেদা জিয়ার, তিনি নিজের অবস্থানে অনড় রইলেন। তার কথা একটাই, এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করা যাবে না।

চুক্তি বাতিল হয়ে গেল। চুক্তির ধারা মোতাবেক ৪.২ মিলিয়ন পাউন্ড বা বত্রিশ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চাইলো টিউলিপ কম্পিউটার্স৷ সেটা দিতেও রাজী ছিল না খালেদা জিয়ার সরকার। মন্ত্রীসভার বেশ কয়েকজন বোঝানোর চেষ্টা করলেন তাকে, তিনি বুঝতে চাইলেন না কিছুই। ফলে যা হবার তা-ই হলো, আদালতে গেল টিউলিপ কম্পিউটার্স, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ দাবী করে মামলা করলো প্রতিষ্ঠানটি।

আদালতের রায়ে টিউলিপ কম্পিউটার্সের প্রাপ্য ক্ষতিপূরণের টাকা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল বাংলাদেশ সরকারকে। সেটা দিতেও গড়িমসি করছিল তৎকালীন সরকার৷ যথাসময়ে ক্ষতিপূরণ না দেয়ায় নেদারল্যান্ড সরকার বাংলাদেশকে দেয়া অর্থসাহায্য পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছিল। ফলে বঞ্চিত হয়েছিল এদেশের অসহায় মানুষ। আর এতসব কাণ্ড ঘটেছিল শুধুমাত্র একজন ব্যাক্তির অশিক্ষা, ভ্রান্ত ধারণা, জেদী আর একগুঁয়ে মনোভাবের কারণে৷ তার দলের, তার মন্ত্রীসভার সদস্যরাই তাকে বোঝানোর চেষ্টা করেছেন, তিনি বুঝতে চাননি৷ টিউলিপ কম্পিউটার্সের সঙ্গে যে শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপের কোন সম্পর্ক নেই, এই সাধারণ জিনিসটাই তার মাথায় ঢোকানো যায়নি।

গালগল্প করছি ভাববেন না৷ এই ঘটনাটার প্রায় পুরোটাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুখ থেকে শোনা। ২০১৪ সালে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে ডিজিটাল সেন্টার উদ্যোক্তা সম্মেলনে টিউলিপ কম্পিউটারের এই ঘটনাটা বলেছিলেন তিনি। খালেদা জিয়ার এই জেদ, এই একগুঁয়েমির ফলাফলটা বাংলাদেশ ভোগ করেছে, দেশের সাধারণ মানুষ ভুক্তভোগী হয়েছে৷ কারণ বৈদেশীক সাহায্য বন্ধ হলে অসহায় মানুষগুলোর হকটাই মারা যায়। বৈদেশীক অঙ্গনে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হবার ব্যাপারটা তো আছেই৷ চুক্তি অনুযায়ী সেই কম্পিউটারগুলো এলে তথ্য প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ এখন অনেকটাই এগিয়ে থাকতে পারতো৷ অন্তত পাঁচটা বছর পিছিয়ে তো আমরা পড়েছিই৷ শিক্ষাটা যার ভেতরে নেই, শিক্ষার গুরুত্ব তিনি বা তারা কি করে অনুভব করবেন বলুন