রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ শহীদুল্লাহ হলের সামনে ফের সংঘর্ষ, ৪ ককটেল বিস্ফোরণ চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাবিতে কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, আহত অন্তত ৮০ ঢাবিতে আন্দোলনকারী-ছাত্রলীগ মুখোমুখি, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না?

ভুয়া সনদে প্রধান শিক্ষকের চাকরী

  • আপডেটের সময় : ০১:১৪:২৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ নভেম্বর ২০১৮
  • ৯০ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার বাঁশবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে জাল সনদে চাকরী নিয়ে এমপিওভুক্ত হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এবিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় বরাবর ওই স্কুলের সহকারী শিক্ষক আব্দুল আওয়ালের করা এক অভিযোগ তদন্তে তার জাল সনদে চাকরি নেয়ার বিষয়টি ধরা পড়ে।

সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ (মাউশি) এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি কার্য বিবরণী সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এই ঘটনায় প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

Trulli

প্রকাশিত কার্য বিবরণীর চার নম্বর ক্রমিকে বলা হয়েছে, প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম (ইনডেক্স নম্বর ৫৪২৮৫৭) এর বিরুদ্ধে করা অভিযোগটি মাউশি‘র সহকারী পরিচালক (সেসিপ), মাধ্যমিক উইং মো. সবুজ আলম তদন্ত করেন। তদন্তে তিনি ভুয়া বিএড সনদে চাকরি নেয়ার তথ্য প্রমাণ পান।ওই কর্মকর্তার প্রতিবেদনের আলোকে জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮ অনুযায়ী বেসরকারি (স্কুল ও কলেজ) এর শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন-ভাতার সরকারি অংশ স্থগিত, কর্তণ, বাতিল ও ছাড়করণের নিমিত্তে গত ১৫ অক্টোবর পুনর্বিবেচনা কমিটির বৈঠকে শিক্ষক শহিদুল ইসলামের ইনডেক্স বাতিল এবং বেতন-ভাতা হিসেবে গৃহিত অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। গত ৫ নভেম্বর মাউশি’র ওয়েবসাইটে তা প্রকাশ করা হয়। এর আগেও শিক্ষক আওয়াল মাউশি‘র মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট একাধিক দফতরে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগকারী শিক্ষক আব্দুল আওয়াল জানান, ২০১১ সালের জুলাই মাসে বাঁশবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে একই উপজেলার রহিমানপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের তৎকালীন শরীরচর্চা শিক্ষক শহিদুল ইসলাম দারুল ইহসান ইউনিভার্সিটির জাল বিএড সনদ দিয়ে প্রধান শিক্ষকের চাকরি নেন। ওই সময় অভিজ্ঞতার সনদে শরীরচর্চার শিক্ষক বিষয়টিও তিনি গোপন রাখেন। পরে যাচাইয়ে দারুল ইহসান ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ এক পত্রের মাধ্যমে সনদটি তাদের অনুমোদিত নয় বলে জানায়।

এব্যাপারে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম বলেন, আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে তা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

Adds Banner_2024

ভুয়া সনদে প্রধান শিক্ষকের চাকরী

আপডেটের সময় : ০১:১৪:২৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ নভেম্বর ২০১৮

নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার বাঁশবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে জাল সনদে চাকরী নিয়ে এমপিওভুক্ত হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এবিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় বরাবর ওই স্কুলের সহকারী শিক্ষক আব্দুল আওয়ালের করা এক অভিযোগ তদন্তে তার জাল সনদে চাকরি নেয়ার বিষয়টি ধরা পড়ে।

সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ (মাউশি) এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত একটি কার্য বিবরণী সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এই ঘটনায় প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

Trulli

প্রকাশিত কার্য বিবরণীর চার নম্বর ক্রমিকে বলা হয়েছে, প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম (ইনডেক্স নম্বর ৫৪২৮৫৭) এর বিরুদ্ধে করা অভিযোগটি মাউশি‘র সহকারী পরিচালক (সেসিপ), মাধ্যমিক উইং মো. সবুজ আলম তদন্ত করেন। তদন্তে তিনি ভুয়া বিএড সনদে চাকরি নেয়ার তথ্য প্রমাণ পান।ওই কর্মকর্তার প্রতিবেদনের আলোকে জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮ অনুযায়ী বেসরকারি (স্কুল ও কলেজ) এর শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন-ভাতার সরকারি অংশ স্থগিত, কর্তণ, বাতিল ও ছাড়করণের নিমিত্তে গত ১৫ অক্টোবর পুনর্বিবেচনা কমিটির বৈঠকে শিক্ষক শহিদুল ইসলামের ইনডেক্স বাতিল এবং বেতন-ভাতা হিসেবে গৃহিত অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। গত ৫ নভেম্বর মাউশি’র ওয়েবসাইটে তা প্রকাশ করা হয়। এর আগেও শিক্ষক আওয়াল মাউশি‘র মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট একাধিক দফতরে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগকারী শিক্ষক আব্দুল আওয়াল জানান, ২০১১ সালের জুলাই মাসে বাঁশবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে একই উপজেলার রহিমানপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের তৎকালীন শরীরচর্চা শিক্ষক শহিদুল ইসলাম দারুল ইহসান ইউনিভার্সিটির জাল বিএড সনদ দিয়ে প্রধান শিক্ষকের চাকরি নেন। ওই সময় অভিজ্ঞতার সনদে শরীরচর্চার শিক্ষক বিষয়টিও তিনি গোপন রাখেন। পরে যাচাইয়ে দারুল ইহসান ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ এক পত্রের মাধ্যমে সনদটি তাদের অনুমোদিত নয় বলে জানায়।

এব্যাপারে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম বলেন, আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে তা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।