spot_img

শরৎকাল  - বৃহস্পতিবার | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ২০শে মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি | ১৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শরৎকাল  - বৃহস্পতিবার | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ২০শে মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

spot_imgspot_imgspot_img

বিদায় সম্পাদক, বিনম্র শ্রদ্ধা

spot_img
- বিজ্ঞাপন - 01309003902 -

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশের ‘দৈনিক জনপদ’ এর সম্পাদক ছিলেন সদ্য প্রয়াত দেশবরণ্যে সাংবাদিক ও কলামিস্ট, বর্ষীয়ান লেখক সাহিত্যিক আব্দুল গাফফার চৌধুরী। জাতীয় নেতা শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামান ছিলেন এই দৈনিকের প্রকাশক। তথ্য-প্রযুক্তির উৎকর্ষতার যুগে বর্তমানে তা বাংলার জনপদ নামে প্রকাশিত হচ্ছে।

বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী ১৯৩৪ সালের ১২ ডিসেম্বর ব্রিটিশ শাসনামলে তৎকালীন অবিভক্ত ভারতের বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জের উলানিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা হাজি ওয়াহিদ রেজা চৌধুরী ও মা মোসাম্মৎ জহুরা খাতুন। তিন ভাই, পাঁচ বোনের মধ্যে বড় ভাই হোসেন রেজা চৌধুরী ও ছোট ভাই আলী রেজা চৌধুরী। বোনেরা হলেন মানিক বিবি, লাইলী খাতুন, সালেহা খাতুন, ফজিলা বেগম ও মাসুমা বেগম। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর গাফ্‌ফার চৌধুরী স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য যুক্তরাজ্যে যান এবং ২২ বছর বাংলাদেশে ফিরে আসতে পারেননি। তাঁর স্ত্রী সেলিমা চৌধুরী লন্ডনের একটি হাসপাতালে মারা যান। এই দম্পতির চার মেয়ে ও এক ছেলে।

পেশাগত কারণে জনপ্রিয় এই সাংবাদিক ও কলামিস্ট বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ ছিলেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ড নিয়ে ‘পলাশী থেকে ধানমন্ডি’ নামের একটি ফিল্মও প্রযোজনা করেন।

যুক্তরাজ্যে আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী নতুন দিন নামে একটি সংবাদপত্র চালু করেন। পেশাদার সাংবাদিক হিসেবে তিনি সাংবাদিকতা জীবনে ‘ডানপিটে শওকত’, ‘চন্দ্রদ্বীপের উপাখ্যান’, ‘নাম না জানা ভোরে’, ‘নীল যমুনা’, ‘শেষ রজনীর চাঁদ’ ও ‘পলাশী থেকে ধানমন্ডি’–এর মতো ৩৫টি গ্রন্থ রচনা করেছেন।

বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফফার চৌধুরী ভাষা আন্দোলনের স্মরণীয় গান `আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’-এর রচয়িতা। স্বাধীনতা যুদ্ধে মুজিবনগর সরকারে মাধ্যমে নিবন্ধিত স্বাধীন বাংলার প্রথম পত্রিকা ‘সাপ্তাহিক জয় বাংলার’ প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক ছিলেন তিনি। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পূর্বেও বাংলা সাহিত্যের ভুবনে তাঁর অবদান উল্লেখযোগ্য। সাংবাদিকতার পাশাপাশি গল্প, উপন্যাস, স্মৃতিকথা, ছোটদের উপন্যাসও লিখেছেন।

পেশাগত কাজে স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি ১৯৬৭ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পান। ২০০৯ সালে তিনি স্বাধীনতা পদকে ভূষিত হন। এছাড়াও একুশে পদক, ইউনেসকো সাহিত্য পুরস্কার, বঙ্গবন্ধু পদক, মানিক মিয়া পদক, সংহতি আজীবন সম্মাননা পুরস্কার পেয়েছেন।

উল্লেখ্য, স্থানীয় সময় গত বুধবার দিবাগত রাতে যুক্তরাজ্যের লন্ডনে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন বর্ষীয়ান লেখক, বিশিষ্ট সাংবাদিক ও জনপ্রিয় কলামিস্ট আবদুল গাফফার (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মুত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর।

সাংবাদিকতা ও সাহিত্য অঙ্গনে তাঁর অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি তাঁর কর্মের মাধ্যমে মানুষের হৃদয়ে বেচেঁ থাকবেন।’

‘দেশবরেণ্য সাংবাদিক ও কলামিস্ট বর্ষীয়ান লেখক আবদুল গাফ্ফার চৌধুরীর প্রয়াণে বাংলার জনপদের প্রকাশক, সম্পাদক ও বার্তা সম্পাদকসহ পরিবারের সকল সদস্যের পক্ষ থেকে জানাই বিনম্র শ্রদ্ধা।’

spot_img

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, banglarjanapad@gmail.com ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন BanglarJanapad আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বাধিক পঠিত

- বিজ্ঞাপন - 01309003902spot_img