রাজশাহী , বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ

অসমাপ্ত ভালোবাসা

  • আপডেটের সময় : ০৬:৪৮:১৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯
  • ৮৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

সবনাজ_মোস্তারী_স্মৃতি: সময়টা ২০১২,রাজিব আর জুয়েল নবম শ্রেনীতে পড়ে।দুই বন্ধুর মারামারি আড্ডা সব কিছু মিলিয়ে ভালোই যাচ্ছিলো দিনগুলো।প্রতিদিনের মতই দুই বন্ধু স্কুলে এক সাথে যাচ্ছিলো।স্কুলের গেটে ঢুকতেই রাজিব একটা মেয়েকে দেখে। প্রথম দেখাতেই খুব ভালো লেগে যায় মেয়েটাকে। রাজিব মেয়েরটার খবর নিয়ে জানতে পারে মেয়েটির নাম সুবর্না। তাদের স্কুলে নতুন ভর্তি হয়েছে অষ্টম শ্রেনীতে।স্কুল ছুটির পর রাজিব আর জুয়েল দুই বন্ধু মিলে সুবর্নাকে ফলো করে তার বাড়ির চিনে ফেলে।তার পর থেকে রাজিব সুবর্নাকে রোজ ফলো করতো।ঝড় বৃষ্টি,রোদ,শীত সব কিছুকে উপেক্ষা করে ভোর বেলা সুবর্নার বাড়ির সামনে দাড়িঁয়ে থাকতো শুধু সুবর্নাকে দেখার জন্য।

আর সুবর্না যখন ভোর ৬ টাই প্রাইভেট যেতো রাজিবও যেতো তার পিছন পিছন।সুবর্নার প্রাইভেট শেষ হলে রাজিব আবার সুবর্নাকে দেখার জন্য ছুটে যেতো তার পিছনে।আর এর কারনে রাজিবের প্রতিদিন প্রাইভেট যেতে দেড়ি হত।একদিন প্রাইভেটে স্যার রাজিবকে ডেকে জিজ্ঞেস করে তুই যা করছিস তা কি ঠিক রাজিব?রাজিব একটু অবাক হয়।সে বলে কি করেছি স্যার?স্যার বলে তুই সুবর্নাকে জ্বালাস কেনো?ওর বাবা বলেছে তুই যদি দ্বিতীয় বার সুবর্নাকে জ্বালাস তাহলে তকে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রেখে মারবে।আর জানিস তো ওর বাবা থানার এইআই।
তার পর কয়েকদিন রাজিব আর সুবর্নাকে দেখার জন্য তার পিছনে ছুটে যায়নি।বেশ কয়েকদিন পর সুবর্নার এক বান্ধবি রাজিবকে বলে ভাইয়া স্কুল ছুটির পর একটু দাড়াবেন।সুবর্না আপনার সাথে কথা বলবে।

Trulli

এই শুনে রাজিব একটু ভয় পায়।মনে মনে ভাবে আমি তো আর সুবর্নাকে জ্বালাইনি তাহলে আজ দাড়াঁতে বলছে কেনো।স্কুল ছুটির পর রাজিবের সাথে সুবর্না দেখা করে আর বলে আমি আসলে বাবাকে কিছু বলিনি। খালামনি আপনাকে আমাদের বাড়ির সামনে প্রতিদিন দাড়িঁয়ে থাকতে দেখে তিনি বাবাকে বলেছেন।আমিও আপনাকে পছন্দ করি।এর পরের দিনগুলো ভালোই যাচ্ছিলো রাজিবের। দেখতে দেখতে রাজিবের এসএসসি পরিক্ষার সময় চলে আসে। দুই ফেব্রুয়ারি পরিক্ষা। পরিক্ষার রাতে হঠাৎ সুবর্না ফোন দিয়ে বলে রাজিব তোমার সাথে আমার রিলেশন রাখা সম্ভব নয়।রাজিব কি করবে বা কি বলবে বুঝতে পারছিলো না।তার উপর সকাল বেলা তার এসএসসি পরিক্ষা।
কয়েকটা পরিক্ষা হয়।এর মাঝে একদিন জুয়েল রাজিবকে ফোন দিয়ে বলে তুই একটু সুবর্নাদের বাড়ির সামনে আয়।
রাজিব তাড়াতাড়ি সুবর্নাদের বাড়ির সামনে গিয়ে দেখে সুবর্নাদের বাড়ির সামনে ট্রাক দাড়িঁয়ে এবং ট্রাকে তাদের বাড়ির মালপত্র তুলছে।
রাজিবের মাথায় তখন বায পড়ার মত অবস্থা। নিজেকে সামলে নিয়ে সে তার বন্ধু জুয়েলকে বলে ট্রাকের ড্রাইভারকে গিয়ে জিজ্ঞেস কর ট্রাক কোথায় যাবে।

জুয়েল ট্রাকের ড্রাইভারকে গিয়ে জিজ্ঞেস করে। ট্রাক ড্রাইভার বলে যশোর যাবে।রাজিব নিজের মনকে সান্তনা দেয় এটা তো জানতে পারছে সুবর্না কোথায় যাচ্ছে।রাজিবের পরিক্ষা শেষ হয়।ইন্টার ১ম বর্ষে ভর্তি হয়। প্রায় এক বছর হয়ে যায়।রাজিব ঠিক করে সুবর্নাকে খুজে বের করবে।তাই জুয়েলকে সাথে নিয়ে সে যশোরে যাই।কিন্তু এত বড় শহরে কি করে খুজে পাবে সুবর্নাকে।তাইপ্রথমে ঠিক করে যশোরের প্রত্যেকটা গার্লস স্কুলে আগে খুজবে।রাজিব আর জুয়েল তাই করে কিন্তু সুবর্নাকে পায় না খুজে।ব্যার্থ হয়ে যশোর থেকে ফিরে আসে।একদিন রাজিব তার এক বড় ভাইকে সুবর্নার বাবার মোবাইল নম্বারটা ট্র্যাক করতে বলে। অনেক কষ্টে ট্র্যাক করো জানতে পারে বরিশালে আছে কিন্তু বরিশালের কোন জায়গায় সেটা জানতে পারে না।রাজিব আরও বেশি চিন্তাই পড়ে কারন বরিশাল তো যশোরের থেকেও বড় শহর কেমন করে পাবে।
তবুও সব কিছু বাদ দিয়ে আবার রাজশাহী থেকে বরিশালের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় রাজিব আর জুয়েল।

বাস থেকে নেমেই সেখানেই একটা হোটেলে রুম বুক দেই দুই বন্ধু। সুবর্নাকে খুজে পাবার আশা ছেড়ে দিয়েছিলো রাজিব।বিকাল বেলা একটা মাঠে বসে দুই বন্ধ। হঠাৎ রাজিব সুবর্নার ছোট ভাই সিয়াম কে দেখতে পায়।রাজিব জুয়েলকে বলে দেখ এটা সিয়াম না?
জুয়েল বলে ধুর এখানে সিয়াম কোথায় থেকে আসবে।রাজিব জোর দিয়ে বলে এটা সিয়াম।চল ওকে ফলো করি। তারা দুজনে মিলে সিয়ামকে ফলো করে।তখন সন্ধা হয়ে এসেছিলো।পর দিন সকালবেলা রাজিব আবার সেই বাড়ির সামনে যায় যে বাড়িতে তারা গতকাল সিয়ামকে ঢুকতে দেখেছে।দাড়িঁয়ে থাকে সকাল সাতটা থেকে।সকাল ১০:৩০ টার দিক বাড়ির ভেতর থেকে স্কুল ড্রেস পড়ে বের হয় সুবর্না। রাজিবের জন্য ছিলো সেটা তার জীবনের সব থেকে আনন্দের সময়। কিন্তু সুবর্না কোনো কথা না বলেই চলে যায়।

রাতে সুবর্না রাজিবকে ফোন দিয়ে বলে তুমি কেমন করে আমার এ ঠিকানা পেলে আর তুমি যদি আমাকে ভালোবেসে থাকো তবে আমার সামনে আর কখনো আসবে না।তার পর থেকে রাজিব আর কখনো সুবর্নার সামনে যায়নি কিন্তু প্রতি বছর সে একবার করে রাজশাহী থেকে বরিশাল যেতো সুবর্নাকে দেখতে।এই ভাবেই রাজিবের সময়গুলো পার হয়ে যাচ্ছিলো।পরের বছর আবার যখন রাজিব বরিশাল যায় তখন জানতে পারে সুবর্নার পরিবার ঢাকায় চলে গেছে।রাজিব আবারও ভেঙ্গে পড়ে। ঢাকায় কেমন করে খুজে পাবে সুবর্নাকে।আবারও নম্বার ট্র্যাক করে। আর ট্র্যাক করে জানতে পারে সুবর্না মিরপুরে আছে।রাজিব ছুটে যায় মিরপুরে। সেখাতে প্রতিটা কলেজ তন্ন তন্ন করে খুজে। মিরপুর গার্লস কলেজের সামনে আবারও দেখতে পাই সুবর্নাকে। কিন্তু সুবর্নার সামনে যায় না।বর্তমানে সুবর্না নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে পড়ছে।রাজিব প্রায় যায় সুবর্নাকে দেখতে তার ভার্সিটির সামনে। দুরে দাড়িঁয়ে থেকে সুবর্নার হাসি মুখটা দেখে নিজে খুশি হয় রাজিব কিন্তু সুবর্না তা জানে না।
এই ভাবেই চলতে থাকে রাজিবের অসমাপ্ত ভালোবাসার কাহিনী।

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

রাবিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান, ৪ ঘণ্টা পর অবমুক্ত উপাচার্য

Adds Banner_2024

অসমাপ্ত ভালোবাসা

আপডেটের সময় : ০৬:৪৮:১৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯

সবনাজ_মোস্তারী_স্মৃতি: সময়টা ২০১২,রাজিব আর জুয়েল নবম শ্রেনীতে পড়ে।দুই বন্ধুর মারামারি আড্ডা সব কিছু মিলিয়ে ভালোই যাচ্ছিলো দিনগুলো।প্রতিদিনের মতই দুই বন্ধু স্কুলে এক সাথে যাচ্ছিলো।স্কুলের গেটে ঢুকতেই রাজিব একটা মেয়েকে দেখে। প্রথম দেখাতেই খুব ভালো লেগে যায় মেয়েটাকে। রাজিব মেয়েরটার খবর নিয়ে জানতে পারে মেয়েটির নাম সুবর্না। তাদের স্কুলে নতুন ভর্তি হয়েছে অষ্টম শ্রেনীতে।স্কুল ছুটির পর রাজিব আর জুয়েল দুই বন্ধু মিলে সুবর্নাকে ফলো করে তার বাড়ির চিনে ফেলে।তার পর থেকে রাজিব সুবর্নাকে রোজ ফলো করতো।ঝড় বৃষ্টি,রোদ,শীত সব কিছুকে উপেক্ষা করে ভোর বেলা সুবর্নার বাড়ির সামনে দাড়িঁয়ে থাকতো শুধু সুবর্নাকে দেখার জন্য।

আর সুবর্না যখন ভোর ৬ টাই প্রাইভেট যেতো রাজিবও যেতো তার পিছন পিছন।সুবর্নার প্রাইভেট শেষ হলে রাজিব আবার সুবর্নাকে দেখার জন্য ছুটে যেতো তার পিছনে।আর এর কারনে রাজিবের প্রতিদিন প্রাইভেট যেতে দেড়ি হত।একদিন প্রাইভেটে স্যার রাজিবকে ডেকে জিজ্ঞেস করে তুই যা করছিস তা কি ঠিক রাজিব?রাজিব একটু অবাক হয়।সে বলে কি করেছি স্যার?স্যার বলে তুই সুবর্নাকে জ্বালাস কেনো?ওর বাবা বলেছে তুই যদি দ্বিতীয় বার সুবর্নাকে জ্বালাস তাহলে তকে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রেখে মারবে।আর জানিস তো ওর বাবা থানার এইআই।
তার পর কয়েকদিন রাজিব আর সুবর্নাকে দেখার জন্য তার পিছনে ছুটে যায়নি।বেশ কয়েকদিন পর সুবর্নার এক বান্ধবি রাজিবকে বলে ভাইয়া স্কুল ছুটির পর একটু দাড়াবেন।সুবর্না আপনার সাথে কথা বলবে।

Trulli

এই শুনে রাজিব একটু ভয় পায়।মনে মনে ভাবে আমি তো আর সুবর্নাকে জ্বালাইনি তাহলে আজ দাড়াঁতে বলছে কেনো।স্কুল ছুটির পর রাজিবের সাথে সুবর্না দেখা করে আর বলে আমি আসলে বাবাকে কিছু বলিনি। খালামনি আপনাকে আমাদের বাড়ির সামনে প্রতিদিন দাড়িঁয়ে থাকতে দেখে তিনি বাবাকে বলেছেন।আমিও আপনাকে পছন্দ করি।এর পরের দিনগুলো ভালোই যাচ্ছিলো রাজিবের। দেখতে দেখতে রাজিবের এসএসসি পরিক্ষার সময় চলে আসে। দুই ফেব্রুয়ারি পরিক্ষা। পরিক্ষার রাতে হঠাৎ সুবর্না ফোন দিয়ে বলে রাজিব তোমার সাথে আমার রিলেশন রাখা সম্ভব নয়।রাজিব কি করবে বা কি বলবে বুঝতে পারছিলো না।তার উপর সকাল বেলা তার এসএসসি পরিক্ষা।
কয়েকটা পরিক্ষা হয়।এর মাঝে একদিন জুয়েল রাজিবকে ফোন দিয়ে বলে তুই একটু সুবর্নাদের বাড়ির সামনে আয়।
রাজিব তাড়াতাড়ি সুবর্নাদের বাড়ির সামনে গিয়ে দেখে সুবর্নাদের বাড়ির সামনে ট্রাক দাড়িঁয়ে এবং ট্রাকে তাদের বাড়ির মালপত্র তুলছে।
রাজিবের মাথায় তখন বায পড়ার মত অবস্থা। নিজেকে সামলে নিয়ে সে তার বন্ধু জুয়েলকে বলে ট্রাকের ড্রাইভারকে গিয়ে জিজ্ঞেস কর ট্রাক কোথায় যাবে।

জুয়েল ট্রাকের ড্রাইভারকে গিয়ে জিজ্ঞেস করে। ট্রাক ড্রাইভার বলে যশোর যাবে।রাজিব নিজের মনকে সান্তনা দেয় এটা তো জানতে পারছে সুবর্না কোথায় যাচ্ছে।রাজিবের পরিক্ষা শেষ হয়।ইন্টার ১ম বর্ষে ভর্তি হয়। প্রায় এক বছর হয়ে যায়।রাজিব ঠিক করে সুবর্নাকে খুজে বের করবে।তাই জুয়েলকে সাথে নিয়ে সে যশোরে যাই।কিন্তু এত বড় শহরে কি করে খুজে পাবে সুবর্নাকে।তাইপ্রথমে ঠিক করে যশোরের প্রত্যেকটা গার্লস স্কুলে আগে খুজবে।রাজিব আর জুয়েল তাই করে কিন্তু সুবর্নাকে পায় না খুজে।ব্যার্থ হয়ে যশোর থেকে ফিরে আসে।একদিন রাজিব তার এক বড় ভাইকে সুবর্নার বাবার মোবাইল নম্বারটা ট্র্যাক করতে বলে। অনেক কষ্টে ট্র্যাক করো জানতে পারে বরিশালে আছে কিন্তু বরিশালের কোন জায়গায় সেটা জানতে পারে না।রাজিব আরও বেশি চিন্তাই পড়ে কারন বরিশাল তো যশোরের থেকেও বড় শহর কেমন করে পাবে।
তবুও সব কিছু বাদ দিয়ে আবার রাজশাহী থেকে বরিশালের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় রাজিব আর জুয়েল।

বাস থেকে নেমেই সেখানেই একটা হোটেলে রুম বুক দেই দুই বন্ধু। সুবর্নাকে খুজে পাবার আশা ছেড়ে দিয়েছিলো রাজিব।বিকাল বেলা একটা মাঠে বসে দুই বন্ধ। হঠাৎ রাজিব সুবর্নার ছোট ভাই সিয়াম কে দেখতে পায়।রাজিব জুয়েলকে বলে দেখ এটা সিয়াম না?
জুয়েল বলে ধুর এখানে সিয়াম কোথায় থেকে আসবে।রাজিব জোর দিয়ে বলে এটা সিয়াম।চল ওকে ফলো করি। তারা দুজনে মিলে সিয়ামকে ফলো করে।তখন সন্ধা হয়ে এসেছিলো।পর দিন সকালবেলা রাজিব আবার সেই বাড়ির সামনে যায় যে বাড়িতে তারা গতকাল সিয়ামকে ঢুকতে দেখেছে।দাড়িঁয়ে থাকে সকাল সাতটা থেকে।সকাল ১০:৩০ টার দিক বাড়ির ভেতর থেকে স্কুল ড্রেস পড়ে বের হয় সুবর্না। রাজিবের জন্য ছিলো সেটা তার জীবনের সব থেকে আনন্দের সময়। কিন্তু সুবর্না কোনো কথা না বলেই চলে যায়।

রাতে সুবর্না রাজিবকে ফোন দিয়ে বলে তুমি কেমন করে আমার এ ঠিকানা পেলে আর তুমি যদি আমাকে ভালোবেসে থাকো তবে আমার সামনে আর কখনো আসবে না।তার পর থেকে রাজিব আর কখনো সুবর্নার সামনে যায়নি কিন্তু প্রতি বছর সে একবার করে রাজশাহী থেকে বরিশাল যেতো সুবর্নাকে দেখতে।এই ভাবেই রাজিবের সময়গুলো পার হয়ে যাচ্ছিলো।পরের বছর আবার যখন রাজিব বরিশাল যায় তখন জানতে পারে সুবর্নার পরিবার ঢাকায় চলে গেছে।রাজিব আবারও ভেঙ্গে পড়ে। ঢাকায় কেমন করে খুজে পাবে সুবর্নাকে।আবারও নম্বার ট্র্যাক করে। আর ট্র্যাক করে জানতে পারে সুবর্না মিরপুরে আছে।রাজিব ছুটে যায় মিরপুরে। সেখাতে প্রতিটা কলেজ তন্ন তন্ন করে খুজে। মিরপুর গার্লস কলেজের সামনে আবারও দেখতে পাই সুবর্নাকে। কিন্তু সুবর্নার সামনে যায় না।বর্তমানে সুবর্না নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে পড়ছে।রাজিব প্রায় যায় সুবর্নাকে দেখতে তার ভার্সিটির সামনে। দুরে দাড়িঁয়ে থেকে সুবর্নার হাসি মুখটা দেখে নিজে খুশি হয় রাজিব কিন্তু সুবর্না তা জানে না।
এই ভাবেই চলতে থাকে রাজিবের অসমাপ্ত ভালোবাসার কাহিনী।