রাজশাহী , শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

ফাইনালে মাঠে মারামারির ঘটনায় বড় শাস্তি পেলেন ৪ ফুটবলার

  • আপডেটের সময় : ১০:২০:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ নভেম্বর ২০১৮
  • ৯৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ক্রিড়া প্রতিবেদকঃ বসুন্ধরা কিংসকে হারিয়ে আবাহনী লিমিটেডের ফেডারেশন কাপের হ্যাটট্রিক শিরোপা জয়ের ম্যাচের শেষ দিকে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় জড়িত চার ফুটবলারকেই বিভিন্ন মেয়াদে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) ডিসিপ্লিনারি কমিটি।

বসুন্ধরা-আবাহনীর ফাইনাল ম্যাচে মারামারির ঘটনায় রেফারি মিজানুর রহমান চার খেলোয়াড়কে লালকার্ড দেখান। ডিসিপ্লিনারি কমিটি লালকার্ড দেখা চারজনকেই শাস্তি দিয়েছে। সর্বোচ্চ শাস্তি পেয়েছেন বসুন্ধরা কিংসের ডিফেন্ডার সুশান্ত ত্রিপুরা। তিনি ৮ ম্যাচ নিষিদ্ধ হয়েছেন পাশাপাশি এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ৬ ম্যাচ করে নিষিদ্ধ হয়েছেন বসুন্ধরার অধিনায়ক তৌহিদুল আলম সবুজ ও আবাহনীর ডিফেন্ডার মামুন মিয়া। দু’জনের অর্থদণ্ড ৫০ হাজার টাকা করে। আবাহনীর ডিফেন্ডার মামুন মিয়ার উড়ন্ত কিক সব কিছুকে ছাড়িয়ে গেলেও তার শাস্তি সুশান্তের চেয়ে খানিকটা কম হয়েছে। আবাহনীর ফরোয়ার্ড নবীব নেওয়াজ জীবন দুই ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন।

Trulli

এদিকে কোয়ার্টার ফাইনালে সহকারী রেফারি হারুনকে লাঞ্ছিত করার শাস্তি পেয়েছে আরামবাগের দুই বলবয়। ফুটবলে তাদের আজীবন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পাশাপাশি আরামবাগের কর্মকর্তা ম্যানেজার রাশেদুল হক সুমনকে এক বছরের জন্য ফুটবলের সব ধরনের কর্মকাণ্ড থেকে নিষিদ্ধ করেছে ডিসিপ্লিনারি কমিটি। ক্লাবকে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানারও সুপারিশ করা হয়েছে।

কমিটির চেয়ারম্যান মেজবাহ উদ্দিন দুই ম্যাচের শাস্তি সম্পর্কে বলেন, ‘দু’ম্যাচের ভিডিও, গণমাধ্যমের প্রতিবেদন, ডিসিপ্লিনারী কোড সব বিবেচনা করে শাস্তি দেওয়া হয়েছে।’

গত ২৩ নভেম্বর ফেডারেশনের কাপের ফাইনালে হাতাহাতি ও মারামারিতে লিপ্ত হন আবাহনী ও বসুন্ধরা কিংসের ফুটবলাররা। ম্যাচের ৮৮ মিনিটে বল নিয়ে এগিয়ে যান সানডে। কিন্তু তাকে কনুই দিয়ে বুকে আঘাত করেন বসুন্ধরার ডিফেন্ডার নাসির উদ্দিন চৌধুরী। মারাত্মক আহত হয়ে মাঠের বাইরে যেতে হয় সানডেকে। তার পরিবর্তে মাঠে নামানো হয় নাবীব নেওয়াজ জীবনকে। সানডেকে তখন অ্যাম্বুলেন্সে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। ঠিক সেই মুহূর্তেই বিবাদে জড়িয়ে পড়েন দু’দলের ফুটবলাররা।

আবাহনীর নাবীব নেওয়াজ জীবন থাপ্পড় দেন বসুন্ধরার সুশান্ত ত্রিপুরাকে। পরে সেই সুশান্ত পেটে লাথি মেরে ফেলে দেন জীবনকে। এই অবস্থা দেখে ঘুরে এসে আবাহনীর মামুন মিয়া ফ্লাইং কিক দিয়ে সুশান্তকে ফেলে দেন। শুরু হয় দু’দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে হাতাহাতি। এক সময় দুই দলের কর্মকর্তারা এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন। রেফারি মিজানুর রহমান বসুন্ধরার কিংসের সুশান্ত ত্রিপুরা ও তৌহিদুল আলম সবুজ এবং আবাহনীর নাবীব নেওয়াজ জীবন ও মামুন মিয়াকে লালকার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দেন। আগামী এক মাসের মধ্যে অর্থ পরিশোধের নিদের্শ দেওয়া হয়েছে।

Adds Banner_2024

ফাইনালে মাঠে মারামারির ঘটনায় বড় শাস্তি পেলেন ৪ ফুটবলার

আপডেটের সময় : ১০:২০:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৮ নভেম্বর ২০১৮

ক্রিড়া প্রতিবেদকঃ বসুন্ধরা কিংসকে হারিয়ে আবাহনী লিমিটেডের ফেডারেশন কাপের হ্যাটট্রিক শিরোপা জয়ের ম্যাচের শেষ দিকে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় জড়িত চার ফুটবলারকেই বিভিন্ন মেয়াদে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) ডিসিপ্লিনারি কমিটি।

বসুন্ধরা-আবাহনীর ফাইনাল ম্যাচে মারামারির ঘটনায় রেফারি মিজানুর রহমান চার খেলোয়াড়কে লালকার্ড দেখান। ডিসিপ্লিনারি কমিটি লালকার্ড দেখা চারজনকেই শাস্তি দিয়েছে। সর্বোচ্চ শাস্তি পেয়েছেন বসুন্ধরা কিংসের ডিফেন্ডার সুশান্ত ত্রিপুরা। তিনি ৮ ম্যাচ নিষিদ্ধ হয়েছেন পাশাপাশি এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ৬ ম্যাচ করে নিষিদ্ধ হয়েছেন বসুন্ধরার অধিনায়ক তৌহিদুল আলম সবুজ ও আবাহনীর ডিফেন্ডার মামুন মিয়া। দু’জনের অর্থদণ্ড ৫০ হাজার টাকা করে। আবাহনীর ডিফেন্ডার মামুন মিয়ার উড়ন্ত কিক সব কিছুকে ছাড়িয়ে গেলেও তার শাস্তি সুশান্তের চেয়ে খানিকটা কম হয়েছে। আবাহনীর ফরোয়ার্ড নবীব নেওয়াজ জীবন দুই ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন।

Trulli

এদিকে কোয়ার্টার ফাইনালে সহকারী রেফারি হারুনকে লাঞ্ছিত করার শাস্তি পেয়েছে আরামবাগের দুই বলবয়। ফুটবলে তাদের আজীবন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পাশাপাশি আরামবাগের কর্মকর্তা ম্যানেজার রাশেদুল হক সুমনকে এক বছরের জন্য ফুটবলের সব ধরনের কর্মকাণ্ড থেকে নিষিদ্ধ করেছে ডিসিপ্লিনারি কমিটি। ক্লাবকে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানারও সুপারিশ করা হয়েছে।

কমিটির চেয়ারম্যান মেজবাহ উদ্দিন দুই ম্যাচের শাস্তি সম্পর্কে বলেন, ‘দু’ম্যাচের ভিডিও, গণমাধ্যমের প্রতিবেদন, ডিসিপ্লিনারী কোড সব বিবেচনা করে শাস্তি দেওয়া হয়েছে।’

গত ২৩ নভেম্বর ফেডারেশনের কাপের ফাইনালে হাতাহাতি ও মারামারিতে লিপ্ত হন আবাহনী ও বসুন্ধরা কিংসের ফুটবলাররা। ম্যাচের ৮৮ মিনিটে বল নিয়ে এগিয়ে যান সানডে। কিন্তু তাকে কনুই দিয়ে বুকে আঘাত করেন বসুন্ধরার ডিফেন্ডার নাসির উদ্দিন চৌধুরী। মারাত্মক আহত হয়ে মাঠের বাইরে যেতে হয় সানডেকে। তার পরিবর্তে মাঠে নামানো হয় নাবীব নেওয়াজ জীবনকে। সানডেকে তখন অ্যাম্বুলেন্সে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। ঠিক সেই মুহূর্তেই বিবাদে জড়িয়ে পড়েন দু’দলের ফুটবলাররা।

আবাহনীর নাবীব নেওয়াজ জীবন থাপ্পড় দেন বসুন্ধরার সুশান্ত ত্রিপুরাকে। পরে সেই সুশান্ত পেটে লাথি মেরে ফেলে দেন জীবনকে। এই অবস্থা দেখে ঘুরে এসে আবাহনীর মামুন মিয়া ফ্লাইং কিক দিয়ে সুশান্তকে ফেলে দেন। শুরু হয় দু’দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে হাতাহাতি। এক সময় দুই দলের কর্মকর্তারা এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন। রেফারি মিজানুর রহমান বসুন্ধরার কিংসের সুশান্ত ত্রিপুরা ও তৌহিদুল আলম সবুজ এবং আবাহনীর নাবীব নেওয়াজ জীবন ও মামুন মিয়াকে লালকার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দেন। আগামী এক মাসের মধ্যে অর্থ পরিশোধের নিদের্শ দেওয়া হয়েছে।