রাজশাহী , বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

কে কেন হামলা চালাল জানা গেল না কিছুই

  • আপডেটের সময় : ০৭:১২:৫৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯
  • ২১৮ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গত ১০ বছরে এমন সকাল দেখেনি শ্রীলঙ্কা। সকালের সূর্যের এনে দেয়া স্নিগ্ধ রোদ ম্লান হয়ে গেল রক্তের বন্যায়। গতকালের ভয়াবহ হামলার পর পেরিয়ে গেছে ২৪ ঘণ্টা, নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯০-এ। হামলার পর দেশটির পুলিশ এ পর্যন্ত ২৪ জনকে আটক করলেও হামলার পেছনে কে বা কারা কলকাঠি নেড়েছে, সে সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত কোনো তথ্য আসেনি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে।

এরআগে বিভিন্ন দেশে সন্ত্রাসী হামলার পর যেমন দেখা গেছে কোনো সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হামলার দায় স্বীকার করে বিবৃতি দিয়েছে, এ হামলার পর তেমন কোনো চিত্র এখনও আসেনি দৃশ্যপটে। উল্টো শ্রীলঙ্কার ইসলামপন্থী যে উগ্র সংগঠনটিকে হামলার জন্য সন্দেহের তালিকায় রাখা হয়েছিল তারা হামলার ঘটনায় শোক জানিয়ে বিচার দাবি করে বসেছে।

Trulli

শ্রীলঙ্কার সরকারের তরফ থেকে বলা হচ্ছে গতকাল যে আটটি স্থানে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে, এর মধ্যে কয়েকটি ছিল আত্মঘাতী।

গতকালের ওই হামলায় ২৯০ জন নিহত হওয়ার পাশপাশি আহত হয়েছেন প্রায় ৫০০ জন। নিহতদের মধ্যে বেশক’জন বিদেশি নাগরিকও রয়েছেন।

খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের ইস্টার সানডের ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা চলাকালে চালানো ওই হামলায় বিস্মিত গোটা দেশ। ২০০৯ সালে দেশটিতে গৃহযুদ্ধ বন্ধ হওয়ার পর থেকে রক্তের এমন খেলা দেখা যায়নি কখনও।

এই হামলার বিষয়ে শ্রীলঙ্কার আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আগেই সতর্ক করেছিল বলে গতকালই জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে। কিন্তু এরপরও পর্যাপ্ত সতর্কতা অবলম্বন করা হয়নি।

কেন পর্যাপ্ত সতর্কতা অবলম্বন করা হয়নি সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে বলেও জানিয়েছেন বিক্রমাসিংহে।

তামিলদের জন্য স্বাধীন ভূখণ্ডের দাবিতে দীর্ঘ ২৬ বছর লড়াইয়ের পর তামিল টাইগারদের পরাজয়ের মধ্য দিয়ে ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কায় গৃহযুদ্ধের অবসান হয়। ওই যুদ্ধে ৭০ থেকে ৮০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়।

গৃহযুদ্ধ থামলেও শ্রীলঙ্কায় বিভিন্ন সময় বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। মসজিদ ও মুসলিমদের ওপর হামলার জেরে ২০১৮ সালে মার্চে দেশটিতে জরুরি অবস্থাও জারি করা হয়।

সর্বশেষ আদমশুমারি অনুযায়ী শ্রীলঙ্কার ৭০.২ শতাংশ মানুষ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী। হিন্দু ও মুসলিম জনসংখ্যার হার যথাক্রমে ১২.৬ ও ৯.৭ শতাংশ। প্রায় ১৫ লাখের মতো খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী মানুষের বাস ভারত মহাসগারের দ্বীপ দেশ শ্রীলঙ্কায়।

Adds Banner_2024

কে কেন হামলা চালাল জানা গেল না কিছুই

আপডেটের সময় : ০৭:১২:৫৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গত ১০ বছরে এমন সকাল দেখেনি শ্রীলঙ্কা। সকালের সূর্যের এনে দেয়া স্নিগ্ধ রোদ ম্লান হয়ে গেল রক্তের বন্যায়। গতকালের ভয়াবহ হামলার পর পেরিয়ে গেছে ২৪ ঘণ্টা, নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯০-এ। হামলার পর দেশটির পুলিশ এ পর্যন্ত ২৪ জনকে আটক করলেও হামলার পেছনে কে বা কারা কলকাঠি নেড়েছে, সে সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত কোনো তথ্য আসেনি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে।

এরআগে বিভিন্ন দেশে সন্ত্রাসী হামলার পর যেমন দেখা গেছে কোনো সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হামলার দায় স্বীকার করে বিবৃতি দিয়েছে, এ হামলার পর তেমন কোনো চিত্র এখনও আসেনি দৃশ্যপটে। উল্টো শ্রীলঙ্কার ইসলামপন্থী যে উগ্র সংগঠনটিকে হামলার জন্য সন্দেহের তালিকায় রাখা হয়েছিল তারা হামলার ঘটনায় শোক জানিয়ে বিচার দাবি করে বসেছে।

Trulli

শ্রীলঙ্কার সরকারের তরফ থেকে বলা হচ্ছে গতকাল যে আটটি স্থানে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে, এর মধ্যে কয়েকটি ছিল আত্মঘাতী।

গতকালের ওই হামলায় ২৯০ জন নিহত হওয়ার পাশপাশি আহত হয়েছেন প্রায় ৫০০ জন। নিহতদের মধ্যে বেশক’জন বিদেশি নাগরিকও রয়েছেন।

খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের ইস্টার সানডের ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা চলাকালে চালানো ওই হামলায় বিস্মিত গোটা দেশ। ২০০৯ সালে দেশটিতে গৃহযুদ্ধ বন্ধ হওয়ার পর থেকে রক্তের এমন খেলা দেখা যায়নি কখনও।

এই হামলার বিষয়ে শ্রীলঙ্কার আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আগেই সতর্ক করেছিল বলে গতকালই জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে। কিন্তু এরপরও পর্যাপ্ত সতর্কতা অবলম্বন করা হয়নি।

কেন পর্যাপ্ত সতর্কতা অবলম্বন করা হয়নি সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে বলেও জানিয়েছেন বিক্রমাসিংহে।

তামিলদের জন্য স্বাধীন ভূখণ্ডের দাবিতে দীর্ঘ ২৬ বছর লড়াইয়ের পর তামিল টাইগারদের পরাজয়ের মধ্য দিয়ে ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কায় গৃহযুদ্ধের অবসান হয়। ওই যুদ্ধে ৭০ থেকে ৮০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়।

গৃহযুদ্ধ থামলেও শ্রীলঙ্কায় বিভিন্ন সময় বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। মসজিদ ও মুসলিমদের ওপর হামলার জেরে ২০১৮ সালে মার্চে দেশটিতে জরুরি অবস্থাও জারি করা হয়।

সর্বশেষ আদমশুমারি অনুযায়ী শ্রীলঙ্কার ৭০.২ শতাংশ মানুষ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী। হিন্দু ও মুসলিম জনসংখ্যার হার যথাক্রমে ১২.৬ ও ৯.৭ শতাংশ। প্রায় ১৫ লাখের মতো খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী মানুষের বাস ভারত মহাসগারের দ্বীপ দেশ শ্রীলঙ্কায়।