রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন

হয় বউ, নয় লাশ

  • আপডেটের সময় : ০৬:৫৩:৫৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৯
  • ৬৩ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে এক কলেজছাত্রী। হয় বউ, না হয় লাশ হয়ে প্রেমিকের বাড়ির কবরে যাবেন বলে জানিয়েছেন ওই অবস্থানকারী।

শনিবার বিকেলে সরেজমিনে জানা গেছে, উপজেলার রাধাগঞ্জ ইউনিয়নের নারিকেলবাড়ী গ্রামের নুরুল হক খন্দকারের ছেলে সেনাসদস্য মিরাজ খন্দকারের সাথে মাদারীপুর জেলার সরকারি নাজিমউদ্দিন কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের এক ছাত্রীর সাথে গত ৩ বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। গত বৃহস্পতিবার মিরাজ খন্দকার ওই ছাত্রীকে ফোন দিয়ে তার বিবাহর কথা জানায়। ওই দিনই ওই কলেজছাত্রী মিরাজ খন্দকারের বাড়িতে এসে বিয়ের দাবিতে অবস্থান নেয়। সাথে সাথে মিরাজ বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। ভণ্ডুল হয়ে যায় মিরাজের বিয়ে।

Trulli

মিরাজ খন্দকারের বাড়িতে অবস্থানকারী ওই ছাত্রী জানান, মিরাজের বাড়ির পাশেই আমার মামা ও খালার বাড়ি। এখানে আসা-যাওয়ার সুবাদে মিরাজের সাথে আমার প্রেমের সম্পর্ক হয়। সে বর্তমানে রাঙ্গামাটি ক্যান্টনমেন্টে কর্মরত। এখান থেকে ছুটিতে এসে বিভিন্ন সময়ে মিরাজ আমাকে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছে। মিরাজ যদি এখন আমাকে বিয়ে না করে তা হলে এই বাড়িতেই আমি আত্মহত্যা করব।

এ বিষয়ে মিরাজের বাবা নুরুল হকের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি কোনো প্রকার মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

রাধাগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অমৃত লাল হালদার বলেন, শনিবার গভীর রাত পর্যন্ত ছেলে এবং মেয়ে পক্ষ মিলে বিষয়টি নিয়ে সামাজিকভাবে বসেছিল। শুনেছি উভয় পক্ষই ছেলে-মেয়ের বিয়ে দিতে একমত হয়েছে।

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী

Adds Banner_2024

হয় বউ, নয় লাশ

আপডেটের সময় : ০৬:৫৩:৫৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৯

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে এক কলেজছাত্রী। হয় বউ, না হয় লাশ হয়ে প্রেমিকের বাড়ির কবরে যাবেন বলে জানিয়েছেন ওই অবস্থানকারী।

শনিবার বিকেলে সরেজমিনে জানা গেছে, উপজেলার রাধাগঞ্জ ইউনিয়নের নারিকেলবাড়ী গ্রামের নুরুল হক খন্দকারের ছেলে সেনাসদস্য মিরাজ খন্দকারের সাথে মাদারীপুর জেলার সরকারি নাজিমউদ্দিন কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের এক ছাত্রীর সাথে গত ৩ বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। গত বৃহস্পতিবার মিরাজ খন্দকার ওই ছাত্রীকে ফোন দিয়ে তার বিবাহর কথা জানায়। ওই দিনই ওই কলেজছাত্রী মিরাজ খন্দকারের বাড়িতে এসে বিয়ের দাবিতে অবস্থান নেয়। সাথে সাথে মিরাজ বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। ভণ্ডুল হয়ে যায় মিরাজের বিয়ে।

Trulli

মিরাজ খন্দকারের বাড়িতে অবস্থানকারী ওই ছাত্রী জানান, মিরাজের বাড়ির পাশেই আমার মামা ও খালার বাড়ি। এখানে আসা-যাওয়ার সুবাদে মিরাজের সাথে আমার প্রেমের সম্পর্ক হয়। সে বর্তমানে রাঙ্গামাটি ক্যান্টনমেন্টে কর্মরত। এখান থেকে ছুটিতে এসে বিভিন্ন সময়ে মিরাজ আমাকে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছে। মিরাজ যদি এখন আমাকে বিয়ে না করে তা হলে এই বাড়িতেই আমি আত্মহত্যা করব।

এ বিষয়ে মিরাজের বাবা নুরুল হকের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি কোনো প্রকার মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

রাধাগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অমৃত লাল হালদার বলেন, শনিবার গভীর রাত পর্যন্ত ছেলে এবং মেয়ে পক্ষ মিলে বিষয়টি নিয়ে সামাজিকভাবে বসেছিল। শুনেছি উভয় পক্ষই ছেলে-মেয়ের বিয়ে দিতে একমত হয়েছে।