রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ

প্রেমের টানে ৫২ বছর বয়সী মার্কিন নারী চুয়াডাঙ্গায়!

  • আপডেটের সময় : ০৫:১৯:২৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৯
  • ৬৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: প্রেমের টানে সুদূর আমেরিকা থেকে ৫২ বছর বয়সী এক নারী ছুটে এসেছেন ২৭ বছরের যুবক ফয়সালের কাছে। ঐ মার্কিন নারীর নাম ‘ডংসন লং’ (৫২)। চুয়াডাঙ্গার ছেলে ফয়সাল আহমেদকে বিয়ে করে ইসলাম ধর্মও গ্রহণ করেছেন ডংসন। তার নতুন নাম মরিয়ম খাতুন। চাঞ্চল্যকর তথ্য হচ্ছে, বিয়ের পর উধাও হয়ে গেছেন তারা। বর্তমানে তারা কোথায় আছেন সে বিষয়ে কেউ কিছু জানেন না। ফয়সাল আগে থেকেই বিবাহিত। ফয়সালের স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে।

গত ১৩ এপ্রিল প্রেমিক ফয়সালকে সঙ্গে নিয়ে চুয়াডাঙ্গা জজ আদালতে গিয়ে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে মুসলমান হয়ে নাম পরিবর্তন করেন ডংসন লং। মরিয়ম খাতুন নামে ১০ হাজার টাকা দেনমোহরে ফয়সালকে বিয়ে করেন।

Trulli

চুয়াডাঙ্গা জেলা জজ আদালতের নোটারি পাবলিকের অ্যাডভোকেট এসএন এ হাশেমী বলেন, মধ্যবয়সী এক মার্কিন নারীর সঙ্গে ফয়সাল নামে এক যুবকের বিয়ে হয়েছে। তারা নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে বিয়ে করেছেন। ১নং আলোকদিয়া ইউনিয়নের কাজী হাশেম আলী বলেন, ‘গত ১৩ এপ্রিল শনিবার এক বিদেশি নারীর সঙ্গে ফয়সাল নামে এক যুবকের বিয়ে হয়েছে। বিয়ের রেজিস্ট্রারে ফয়সাল চুয়াডাঙ্গা পৌর কলেজপাড়ার বাসিন্দা শাহাবুল হোসেনের ছেলে বলে উল্লেখ করেছেন। মার্কিন নারী ডংসনের নাম অ্যাফিডেভিটের মাধ্যমে পরিবর্তন করে মরিয়ম খাতুন হয়েছেন। ১০ হাজার টাকা দেনমোহরে তাদের বিয়ে দিয়েছি আমি।’

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার বনানীপাড়ার সোনালী ব্যাংক কর্মচারী শাহাবুল হোসেনের ছেলে ফয়সাল। এ বিষয়ে কথা বলতে চাইলে কোনো কিছু বলতে রাজি হননি ফয়সালের বাবা শাহাবুল হোসেন। ফয়সালের মোবাইল নম্বরে একাধিকবার কল দিলেও রিসিভ করেননি তিনি।

গতকাল শনিবার বিকালে ফয়সাল আহমেদের বাড়িতে গিয়ে নবদম্পতিকে পাওয়া যায়নি। প্রতিবেশি ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ফয়সালের স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে। তাই কাউকে কিছু না জানিয়ে মার্কিন নারীকে বিয়ে করে গাঁ-ঢাকা দিয়েছে ফয়সাল। পরিবারের লোকজন বিষয়টি জানলেও কাউকে কিছু বলছেন না। বিষয়টি গোপন রাখতে চাইছেন।

Adds Banner_2024

প্রেমের টানে ৫২ বছর বয়সী মার্কিন নারী চুয়াডাঙ্গায়!

আপডেটের সময় : ০৫:১৯:২৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৯

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: প্রেমের টানে সুদূর আমেরিকা থেকে ৫২ বছর বয়সী এক নারী ছুটে এসেছেন ২৭ বছরের যুবক ফয়সালের কাছে। ঐ মার্কিন নারীর নাম ‘ডংসন লং’ (৫২)। চুয়াডাঙ্গার ছেলে ফয়সাল আহমেদকে বিয়ে করে ইসলাম ধর্মও গ্রহণ করেছেন ডংসন। তার নতুন নাম মরিয়ম খাতুন। চাঞ্চল্যকর তথ্য হচ্ছে, বিয়ের পর উধাও হয়ে গেছেন তারা। বর্তমানে তারা কোথায় আছেন সে বিষয়ে কেউ কিছু জানেন না। ফয়সাল আগে থেকেই বিবাহিত। ফয়সালের স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে।

গত ১৩ এপ্রিল প্রেমিক ফয়সালকে সঙ্গে নিয়ে চুয়াডাঙ্গা জজ আদালতে গিয়ে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে মুসলমান হয়ে নাম পরিবর্তন করেন ডংসন লং। মরিয়ম খাতুন নামে ১০ হাজার টাকা দেনমোহরে ফয়সালকে বিয়ে করেন।

Trulli

চুয়াডাঙ্গা জেলা জজ আদালতের নোটারি পাবলিকের অ্যাডভোকেট এসএন এ হাশেমী বলেন, মধ্যবয়সী এক মার্কিন নারীর সঙ্গে ফয়সাল নামে এক যুবকের বিয়ে হয়েছে। তারা নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে বিয়ে করেছেন। ১নং আলোকদিয়া ইউনিয়নের কাজী হাশেম আলী বলেন, ‘গত ১৩ এপ্রিল শনিবার এক বিদেশি নারীর সঙ্গে ফয়সাল নামে এক যুবকের বিয়ে হয়েছে। বিয়ের রেজিস্ট্রারে ফয়সাল চুয়াডাঙ্গা পৌর কলেজপাড়ার বাসিন্দা শাহাবুল হোসেনের ছেলে বলে উল্লেখ করেছেন। মার্কিন নারী ডংসনের নাম অ্যাফিডেভিটের মাধ্যমে পরিবর্তন করে মরিয়ম খাতুন হয়েছেন। ১০ হাজার টাকা দেনমোহরে তাদের বিয়ে দিয়েছি আমি।’

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার বনানীপাড়ার সোনালী ব্যাংক কর্মচারী শাহাবুল হোসেনের ছেলে ফয়সাল। এ বিষয়ে কথা বলতে চাইলে কোনো কিছু বলতে রাজি হননি ফয়সালের বাবা শাহাবুল হোসেন। ফয়সালের মোবাইল নম্বরে একাধিকবার কল দিলেও রিসিভ করেননি তিনি।

গতকাল শনিবার বিকালে ফয়সাল আহমেদের বাড়িতে গিয়ে নবদম্পতিকে পাওয়া যায়নি। প্রতিবেশি ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ফয়সালের স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে। তাই কাউকে কিছু না জানিয়ে মার্কিন নারীকে বিয়ে করে গাঁ-ঢাকা দিয়েছে ফয়সাল। পরিবারের লোকজন বিষয়টি জানলেও কাউকে কিছু বলছেন না। বিষয়টি গোপন রাখতে চাইছেন।