রাজশাহী , বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

আজ বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ এর ৪৮ তম শাহাদতবার্ষিকী

  • আপডেটের সময় : ০৬:৪৬:২০ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯
  • ৪৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্ক: ফরিদপুরে নানা আয়োজনে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ল্যান্স নায়েক মুন্সী আব্দুর রউফ এর ৪৮তম শাহাদতবার্ষিকী পালিত হচ্ছে। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালে এই দিনে হানাদার পাকিস্তানি সেনাদের সাথে সম্মুখযুদ্ধে তিনি পার্বত্য চট্টগ্রাম বর্তমান রাঙামাটি জেলার নানিয়ারচর থানার বুড়িঘাট নামক স্থানে শহীদ হন।

আজ শনিবার ৪৮তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার কামারখালীর রউফ নগরের (সালামাতপুর) গ্রামে বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতি জাদুঘর ও গ্রন্থাগারে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। সকালে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও পরে মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতি ফলকে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। অন্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে বাদ জোহর কোরআনখানি ও আলোচনাসভা এবং মিলাদ মাহফিল ও দোয়া অনুষ্ঠান।

Trulli

উল্লেখ্য, মুন্সী আব্দুর রউফ ১৯৪৩ সালের মে মাসে বর্তমান মধুখালী উপজেলার কামারখালী ইউনিয়নের রউফ নগর (সালামাতপুর) গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। মুন্সী মেহেদী হাসান ও মকিদুন্নেছা দম্পতির একমাত্র ছেলে রউফ। ১১ বছর বয়সে তাঁর বাবা মারা যায়। এর পর আর্থিক অনটনের কারণে লেখাপড়া সম্ভব না হওয়ায় তিনি ১৯৬৩ সালের ৮ মে তৎকালীন ইপিআর এ সৈনিক পদে যোগদান করেন। তার সৈনিক নম্বর ছিল ১৩১৮৭। মহান স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় তিনি অষ্টম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টে যোগ দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। একাত্তরের ২০ এপ্রিল পাকিস্তানি বাহিনীর সাথে সম্মুখযুদ্ধে মুন্সী আব্দুর রউফের মেশিন গানের গুলিতে পাকিস্তানি বাহিনীর দুটি লঞ্চ, একটি স্পিডবোট ডুবে দুই প্লাটুন সৈন্যের সলিলসমাধি ঘটে। এ সময় হঠাৎ প্রতিপক্ষের নিক্ষিপ্ত মর্টার শেলের আঘাতে তিনি শহীদ হন।

ল্যান্স নায়েক মুন্সী আব্দুর রউফ শহীদ হবার দীর্ঘ ২৫ বছর পর ১৯৯৬ সালে বুড়িঘাট নিবাসী জ্যোতিষ চন্দ্র চাকমা ও দয়াল কৃঞ্চ চাকমার সহায়তায় বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ এর কবরের স্থান শনাক্ত করতে সক্ষম হন। ১৯৯৭ সালে সেখানে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হয়।

২০০৮ সালে ২৮ মে তার নিজ গ্রাম সালামাতপুরের নাম রউফ নগর রাখা হয়। ওই বছরেই তাঁর নামে নিজ গ্রাম রউফ নগরে ফরিদপুর জেলা পরিষদের তত্ত্বাবধানে প্রায় ৬৮ লাখ টাকা ব্যয়ে বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতি জাদুঘর ও গ্রন্থাগার নির্মাণ করা হয়েছে।

Adds Banner_2024

আজ বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ এর ৪৮ তম শাহাদতবার্ষিকী

আপডেটের সময় : ০৬:৪৬:২০ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯

জনপদ ডেস্ক: ফরিদপুরে নানা আয়োজনে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ল্যান্স নায়েক মুন্সী আব্দুর রউফ এর ৪৮তম শাহাদতবার্ষিকী পালিত হচ্ছে। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালে এই দিনে হানাদার পাকিস্তানি সেনাদের সাথে সম্মুখযুদ্ধে তিনি পার্বত্য চট্টগ্রাম বর্তমান রাঙামাটি জেলার নানিয়ারচর থানার বুড়িঘাট নামক স্থানে শহীদ হন।

আজ শনিবার ৪৮তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার কামারখালীর রউফ নগরের (সালামাতপুর) গ্রামে বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতি জাদুঘর ও গ্রন্থাগারে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। সকালে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও পরে মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতি ফলকে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। অন্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে বাদ জোহর কোরআনখানি ও আলোচনাসভা এবং মিলাদ মাহফিল ও দোয়া অনুষ্ঠান।

Trulli

উল্লেখ্য, মুন্সী আব্দুর রউফ ১৯৪৩ সালের মে মাসে বর্তমান মধুখালী উপজেলার কামারখালী ইউনিয়নের রউফ নগর (সালামাতপুর) গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। মুন্সী মেহেদী হাসান ও মকিদুন্নেছা দম্পতির একমাত্র ছেলে রউফ। ১১ বছর বয়সে তাঁর বাবা মারা যায়। এর পর আর্থিক অনটনের কারণে লেখাপড়া সম্ভব না হওয়ায় তিনি ১৯৬৩ সালের ৮ মে তৎকালীন ইপিআর এ সৈনিক পদে যোগদান করেন। তার সৈনিক নম্বর ছিল ১৩১৮৭। মহান স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় তিনি অষ্টম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টে যোগ দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। একাত্তরের ২০ এপ্রিল পাকিস্তানি বাহিনীর সাথে সম্মুখযুদ্ধে মুন্সী আব্দুর রউফের মেশিন গানের গুলিতে পাকিস্তানি বাহিনীর দুটি লঞ্চ, একটি স্পিডবোট ডুবে দুই প্লাটুন সৈন্যের সলিলসমাধি ঘটে। এ সময় হঠাৎ প্রতিপক্ষের নিক্ষিপ্ত মর্টার শেলের আঘাতে তিনি শহীদ হন।

ল্যান্স নায়েক মুন্সী আব্দুর রউফ শহীদ হবার দীর্ঘ ২৫ বছর পর ১৯৯৬ সালে বুড়িঘাট নিবাসী জ্যোতিষ চন্দ্র চাকমা ও দয়াল কৃঞ্চ চাকমার সহায়তায় বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ এর কবরের স্থান শনাক্ত করতে সক্ষম হন। ১৯৯৭ সালে সেখানে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হয়।

২০০৮ সালে ২৮ মে তার নিজ গ্রাম সালামাতপুরের নাম রউফ নগর রাখা হয়। ওই বছরেই তাঁর নামে নিজ গ্রাম রউফ নগরে ফরিদপুর জেলা পরিষদের তত্ত্বাবধানে প্রায় ৬৮ লাখ টাকা ব্যয়ে বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ স্মৃতি জাদুঘর ও গ্রন্থাগার নির্মাণ করা হয়েছে।