রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ শহীদুল্লাহ হলের সামনে ফের সংঘর্ষ, ৪ ককটেল বিস্ফোরণ চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাবিতে কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, আহত অন্তত ৮০ ঢাবিতে আন্দোলনকারী-ছাত্রলীগ মুখোমুখি, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না?

সাদা থান

  • আপডেটের সময় : ০১:১১:৫৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯
  • ৬০ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

সবনাজ_মোস্তারী_স্মৃতি: নবনী মাধ্যমিক পরিক্ষা পাশ করেছে কেবল।একাদশ শ্রেনীতে ভর্তি হয়েছে। তার স্বপ্ন একজন ডাক্তার হবে।কিন্তু নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে হবার কারনে বাবা তার জোর করেই বিয়ে দিয়ে দেই এক ব্যবসায়ী ছেলের সাথে।ছেলের নাম ইন্দ্রো।নবনী তার বাবাকে অনেক বুঝালেও বাবার জেদের কাছে হার মানতেই হয়। অবশেষে বসতে হয় বিয়ের পিরিতে।সব স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়ে কিছু নতুন মানুষের সাথে তাকে নতুন করে জীবন শুরু করতে হয়।

কিন্তু এই নতুন জীবনেও তার কোনো সুখের ঠিকানা নেই। ঘরে শশুর শাশুরি আর ননদ মিলে নবনীকে মানসিক, শারীরিক দুই ভাবেই অত্যাচার করে। সারাদিন পর রাতে যখন তার স্বামী ইন্দ্রো বাড়িতে ফিরে তখন নবনী ইন্দ্রোকে এই সব কথা বললে ইন্দ্রো বলে তোমার এত বড় সাহস তুমি আমার বাবা মা, বোনের বিরুদ্ধে নালিশ করো।তাই ইন্দ্রোকেও কিছু বলতে পারে না নবনী।

Trulli

কিছুদিন যাবার পর ইন্দ্রোর ব্যবসায় প্রচুর পরিমানে লোশ হয়। আর ইন্দ্রো নবনীকে তার বাবার কাছ থেকে টাকা আনতে বলে।
কিন্তু তত দিনে নবনীর বাবার সেটুক টাকা পয়সা ছিলো মেয়ের বিয়েতে সব খরচ করে ফেলে।যার কারনে নবনী তার বাবার কাছ থেকে কোনো টাকা নিয়ে আসতে পারে না। নবনী ইন্দ্রোকে বলে তুমি তো জানো আমাদের নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবার। বাবা কিছু করে না। যেটুক ছিলো তাও আমার বিয়েতে খরচ করে ফেলেছে। এখন কেমন করে আমি তোমাকে টাকা এনে দিবো! আর তুমি এইসব ছাইপাস মদ না খেলেও তো পারো। প্রতি রাতে মদ খেয়ে মাতাল হয়ে বাড়িতে ফিরো।

এমন করলে তো ব্যবসাতে লোশ হবেই।নবনীর এই সব কথা শুনে ইন্দ্রো অনেক রেগে যায় এবং নবনীকে মারধর করে এমনকি নবনীর হাতে আগুনেরও ছ্যাকা দেয়।নবনী সব মুখ বুঝে সহ্য করে এই ছোট বছরেই।কারন বাবার বাড়িতে সে এখন যদি ফিরে যায় সমাজের মানুষ নানা রকম কথা বলবে তার উপর তার বাবার পরিবারেও কোনো রকম সুখ নেই। বাবা খুব কষ্টো করে সংসার চালাচ্ছে। নবনীর একটা ছোট বোনও আছে। তার লেখা পড়া আছে। সব মিলিয়ে নবনীর বাবা হিমশিম খাচ্ছে।নবনী চাই না তার মত তার ছোট বোনেরও লেখা পড়া বন্ধ হয়ে যাক।নবনী শরীরে ব্যাথার কারনে সেদিন ঘুমাতে পারেনি । চোখের পানি ফেলেই কাটিয়ে দেয় পুরো রাত।সকালে আবার সংসারের সব কাজ করে মুখ বুঝে।

ব্যবসায় লোশ হবার কারনে ইন্দ্রোর মদ খাওয়ার পরিমান আরো বেরে গেছে। আর এ নিয়ে নবনী কিছু বললেই তার উপর চলে মানসিক এবং শারীরিক নির্যাতন।নবনী কিছু বলতে পারে না কাউকে। মাঝে মাঝে নবনীর ইচ্ছে করে এ সংসার ছেড়ে অনেক দুরে কোথাও চলে যেতে নতুন করো বাঁচতে কিন্তু সে তা পারে না।একদিন রাতে নবনী সব কাজ শেষ করে সারাদিন পর খেতে বসেছে ঠিক সে সময় পাশের বাড়ির নোটন এসে বলে নবনী বৌদি ইন্দ্রো দাদা আর নেই। রাস্তায় মাতাল হয়ে হাটতে হাটতে একটা বাসের সাথে ধাক্কা লাগে।

আশেপাশের লোকজন ইন্দ্রো দাদাকে হাসপাতালে নিয়ে গেছে আমিও ছিলাম তাদের সাথে কিন্তু নিয়ে যেতে যেতেই মারা গেছে ডাক্তার বাবু তাই বলল। তুমি সিগগিরি হাসপাতাল চলো।নবনীর মাথার উপর যেনো আকাশ ভেঙ্গে পড়েছে। সমস্ত শরীর পাথর হয়ে যাচ্ছিলো।নবনী কি করবে বুঝতে পারছিলো না। অবশেষে ইন্দ্রকে হাসপাতাল থেকে বাড়িতে নিয়ে এসে সতকার করা হলো। ১৮ বছরের নবনীকে রঙিন শাড়ি বদলে সারা জীবনের জন্য পড়তে হল সাদা থান।

Adds Banner_2024

সাদা থান

আপডেটের সময় : ০১:১১:৫৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯

সবনাজ_মোস্তারী_স্মৃতি: নবনী মাধ্যমিক পরিক্ষা পাশ করেছে কেবল।একাদশ শ্রেনীতে ভর্তি হয়েছে। তার স্বপ্ন একজন ডাক্তার হবে।কিন্তু নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে হবার কারনে বাবা তার জোর করেই বিয়ে দিয়ে দেই এক ব্যবসায়ী ছেলের সাথে।ছেলের নাম ইন্দ্রো।নবনী তার বাবাকে অনেক বুঝালেও বাবার জেদের কাছে হার মানতেই হয়। অবশেষে বসতে হয় বিয়ের পিরিতে।সব স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়ে কিছু নতুন মানুষের সাথে তাকে নতুন করে জীবন শুরু করতে হয়।

কিন্তু এই নতুন জীবনেও তার কোনো সুখের ঠিকানা নেই। ঘরে শশুর শাশুরি আর ননদ মিলে নবনীকে মানসিক, শারীরিক দুই ভাবেই অত্যাচার করে। সারাদিন পর রাতে যখন তার স্বামী ইন্দ্রো বাড়িতে ফিরে তখন নবনী ইন্দ্রোকে এই সব কথা বললে ইন্দ্রো বলে তোমার এত বড় সাহস তুমি আমার বাবা মা, বোনের বিরুদ্ধে নালিশ করো।তাই ইন্দ্রোকেও কিছু বলতে পারে না নবনী।

Trulli

কিছুদিন যাবার পর ইন্দ্রোর ব্যবসায় প্রচুর পরিমানে লোশ হয়। আর ইন্দ্রো নবনীকে তার বাবার কাছ থেকে টাকা আনতে বলে।
কিন্তু তত দিনে নবনীর বাবার সেটুক টাকা পয়সা ছিলো মেয়ের বিয়েতে সব খরচ করে ফেলে।যার কারনে নবনী তার বাবার কাছ থেকে কোনো টাকা নিয়ে আসতে পারে না। নবনী ইন্দ্রোকে বলে তুমি তো জানো আমাদের নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবার। বাবা কিছু করে না। যেটুক ছিলো তাও আমার বিয়েতে খরচ করে ফেলেছে। এখন কেমন করে আমি তোমাকে টাকা এনে দিবো! আর তুমি এইসব ছাইপাস মদ না খেলেও তো পারো। প্রতি রাতে মদ খেয়ে মাতাল হয়ে বাড়িতে ফিরো।

এমন করলে তো ব্যবসাতে লোশ হবেই।নবনীর এই সব কথা শুনে ইন্দ্রো অনেক রেগে যায় এবং নবনীকে মারধর করে এমনকি নবনীর হাতে আগুনেরও ছ্যাকা দেয়।নবনী সব মুখ বুঝে সহ্য করে এই ছোট বছরেই।কারন বাবার বাড়িতে সে এখন যদি ফিরে যায় সমাজের মানুষ নানা রকম কথা বলবে তার উপর তার বাবার পরিবারেও কোনো রকম সুখ নেই। বাবা খুব কষ্টো করে সংসার চালাচ্ছে। নবনীর একটা ছোট বোনও আছে। তার লেখা পড়া আছে। সব মিলিয়ে নবনীর বাবা হিমশিম খাচ্ছে।নবনী চাই না তার মত তার ছোট বোনেরও লেখা পড়া বন্ধ হয়ে যাক।নবনী শরীরে ব্যাথার কারনে সেদিন ঘুমাতে পারেনি । চোখের পানি ফেলেই কাটিয়ে দেয় পুরো রাত।সকালে আবার সংসারের সব কাজ করে মুখ বুঝে।

ব্যবসায় লোশ হবার কারনে ইন্দ্রোর মদ খাওয়ার পরিমান আরো বেরে গেছে। আর এ নিয়ে নবনী কিছু বললেই তার উপর চলে মানসিক এবং শারীরিক নির্যাতন।নবনী কিছু বলতে পারে না কাউকে। মাঝে মাঝে নবনীর ইচ্ছে করে এ সংসার ছেড়ে অনেক দুরে কোথাও চলে যেতে নতুন করো বাঁচতে কিন্তু সে তা পারে না।একদিন রাতে নবনী সব কাজ শেষ করে সারাদিন পর খেতে বসেছে ঠিক সে সময় পাশের বাড়ির নোটন এসে বলে নবনী বৌদি ইন্দ্রো দাদা আর নেই। রাস্তায় মাতাল হয়ে হাটতে হাটতে একটা বাসের সাথে ধাক্কা লাগে।

আশেপাশের লোকজন ইন্দ্রো দাদাকে হাসপাতালে নিয়ে গেছে আমিও ছিলাম তাদের সাথে কিন্তু নিয়ে যেতে যেতেই মারা গেছে ডাক্তার বাবু তাই বলল। তুমি সিগগিরি হাসপাতাল চলো।নবনীর মাথার উপর যেনো আকাশ ভেঙ্গে পড়েছে। সমস্ত শরীর পাথর হয়ে যাচ্ছিলো।নবনী কি করবে বুঝতে পারছিলো না। অবশেষে ইন্দ্রকে হাসপাতাল থেকে বাড়িতে নিয়ে এসে সতকার করা হলো। ১৮ বছরের নবনীকে রঙিন শাড়ি বদলে সারা জীবনের জন্য পড়তে হল সাদা থান।