রাজশাহী , রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

ছোট্ট নন্দনের খোঁজে ফোন এলো…’আমি রাহুল গান্ধী বলছি’

  • আপডেটের সময় : ১০:৫৩:৪১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯
  • ১৭১ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্ক: ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী তার সবচেয়ে পছন্দের মানুষ। সে নিজেকে রাহুলের ভক্ত বলেই মনে করে। কথা হচ্ছে কেরালার সাত বছরের বালক নন্দনকে নিয়ে। ছোট থেকেই রাহুল গান্ধীকে একবার সামনে থেকে দেখতে চায় নন্দন। আর তাই রাহুল যখন কেরালার কান্নুর জেলায় সভা করতে এলেন তখন আর নিজেকে সামলাতে পারেনি ছোট্ট নন্দন।

গত বুধবার এক সভায় সকাল ৯টার দিকে রাহুলের অনুষ্ঠান শুরু হয়। তার অনেক আগে ভোর ৫টার সময় সেখানে পৌঁছে যায় নন্দন। ছোট্ট ছেলেকে নিয়ে হাজির হন বাবা-মা। কিন্তু নিরাপত্তাজনিত কারণে তারা ভেতরে প্রবেশ করতে পারেননি। তাই ৫ ঘণ্টারও বেশি সময় অপেক্ষা করে ফিরে আসতে হয় নন্দনকে। এ কথা ফেসবুকে লেখেন তার বাবা। সেখান থেকে কেরালার এক কংগ্রেস নেতা মারফত খবর পৌঁছে যায় খোদ সভাপতির কাছে। পরদিন মানে বৃহস্পতিবার সকালে নন্দনের মায়ের কাছে একটি ফোন যায়। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ফোনের ওপার থেকে বলা হয়- আমি রাহুল গান্ধী বলছি, আপনার ছেলের সাথে কথা বলতে পারি? এভাবেই রাহুলের সঙ্গে কথা বলার ইচ্ছাপূর্ণ হয় নন্দনের।

Trulli

জানা গিয়েছে সেদিন ভোর ৫টা থেকে প্রেক্ষাগৃহের বাইরেই দাঁড়িয়ে ছিলেন তারা। নন্দনের পরনে থাকা টি-শার্টে রাহুলের ছবিও ছিল। নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে একাধিকবার কথা বলে ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করে পরিবার। কিন্তু হয়ে ওঠেনি। বাধ্য হয়ে সেদিন খালি হাতেই ফিরতে হয়েছিল নন্দনকে। গোটা ঘটনাটি টুইটার অ্যাকাউন্টে তুলে ধরেছেন কংগ্রেসের সোশাল মিডিয়া প্রধান দিব্যা স্পন্দনা। তিনি লিখেছেন, রাহুল গান্ধী নিজের এক বন্ধুকে দিয়ে ফেসবুকে নন্দনের বাবা যা লিখেছিলেন সেটি অনুবাদ করেন। এভাবেই দারুণ উদাহরণ তৈরি করেছেন তিনি।

এবার উত্তরপ্রদেশের পাশাপাশি কেরালার ওয়ানড় আসন থেকে প্রার্থী হয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি। তিনি জানান, বিজেপি যেভাবে ভারতের সংস্কৃতি ধ্বংস করছে তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে কেরালায় ভোটের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে বিজেপির দাবি, উত্তরপ্রদেশের অমেঠী কেন্দ্রে হারার ভয় পাচ্ছেন বলেই কেন্দ্র কেরালা থেকেও ভোটে লড়ছেন তিনি।

সূত্র: এনডিটিভি

Adds Banner_2024

ছোট্ট নন্দনের খোঁজে ফোন এলো…’আমি রাহুল গান্ধী বলছি’

আপডেটের সময় : ১০:৫৩:৪১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯

জনপদ ডেস্ক: ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী তার সবচেয়ে পছন্দের মানুষ। সে নিজেকে রাহুলের ভক্ত বলেই মনে করে। কথা হচ্ছে কেরালার সাত বছরের বালক নন্দনকে নিয়ে। ছোট থেকেই রাহুল গান্ধীকে একবার সামনে থেকে দেখতে চায় নন্দন। আর তাই রাহুল যখন কেরালার কান্নুর জেলায় সভা করতে এলেন তখন আর নিজেকে সামলাতে পারেনি ছোট্ট নন্দন।

গত বুধবার এক সভায় সকাল ৯টার দিকে রাহুলের অনুষ্ঠান শুরু হয়। তার অনেক আগে ভোর ৫টার সময় সেখানে পৌঁছে যায় নন্দন। ছোট্ট ছেলেকে নিয়ে হাজির হন বাবা-মা। কিন্তু নিরাপত্তাজনিত কারণে তারা ভেতরে প্রবেশ করতে পারেননি। তাই ৫ ঘণ্টারও বেশি সময় অপেক্ষা করে ফিরে আসতে হয় নন্দনকে। এ কথা ফেসবুকে লেখেন তার বাবা। সেখান থেকে কেরালার এক কংগ্রেস নেতা মারফত খবর পৌঁছে যায় খোদ সভাপতির কাছে। পরদিন মানে বৃহস্পতিবার সকালে নন্দনের মায়ের কাছে একটি ফোন যায়। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ফোনের ওপার থেকে বলা হয়- আমি রাহুল গান্ধী বলছি, আপনার ছেলের সাথে কথা বলতে পারি? এভাবেই রাহুলের সঙ্গে কথা বলার ইচ্ছাপূর্ণ হয় নন্দনের।

Trulli

জানা গিয়েছে সেদিন ভোর ৫টা থেকে প্রেক্ষাগৃহের বাইরেই দাঁড়িয়ে ছিলেন তারা। নন্দনের পরনে থাকা টি-শার্টে রাহুলের ছবিও ছিল। নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে একাধিকবার কথা বলে ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করে পরিবার। কিন্তু হয়ে ওঠেনি। বাধ্য হয়ে সেদিন খালি হাতেই ফিরতে হয়েছিল নন্দনকে। গোটা ঘটনাটি টুইটার অ্যাকাউন্টে তুলে ধরেছেন কংগ্রেসের সোশাল মিডিয়া প্রধান দিব্যা স্পন্দনা। তিনি লিখেছেন, রাহুল গান্ধী নিজের এক বন্ধুকে দিয়ে ফেসবুকে নন্দনের বাবা যা লিখেছিলেন সেটি অনুবাদ করেন। এভাবেই দারুণ উদাহরণ তৈরি করেছেন তিনি।

এবার উত্তরপ্রদেশের পাশাপাশি কেরালার ওয়ানড় আসন থেকে প্রার্থী হয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি। তিনি জানান, বিজেপি যেভাবে ভারতের সংস্কৃতি ধ্বংস করছে তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে কেরালায় ভোটের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে বিজেপির দাবি, উত্তরপ্রদেশের অমেঠী কেন্দ্রে হারার ভয় পাচ্ছেন বলেই কেন্দ্র কেরালা থেকেও ভোটে লড়ছেন তিনি।

সূত্র: এনডিটিভি