রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা আন্দোলনে সন্ত্রাসরা জড়িয়ে সংঘাত ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করছেঃ প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহায়তা করে: প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন

জেলার সাহেব নিজেই জেলে

  • আপডেটের সময় : ০৬:৫২:২৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯
  • ৮৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: প্রায় অর্ধকোটি নগদ টাকা, আড়াই কোটি টাকার এফডিআর, ১ কোটি ৩০ লাখ টাকার চেক আর ১২ বোতল ফেনসিডিল নিয়ে গত বছর পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন চট্টগ্রাম কারাগারের জেলার সোহেল রানা বিশ্বাস।

সোহালে রানা চট্টগ্রাম থেকে ময়মনসিংহে গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। কিন্তু পাপের ভার তাকে বাড়ির পরিবর্তে কারাগারে নিয়ে যায়। সেই থেকে জেলার সাবেক এখনো কারাগারে আছেন। তার বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি।

Trulli

সোহেল রানা গ্রেফতার হওয়ার পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মনিরুল আলমের নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি গঠিত হয়। সেই কমিটির অনুসন্ধানে সোহেল রানাসহ আরও ৪৯ জন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি-অনিয়মের তথ্য পেয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

তাদের মধ্যে রয়েছেন, কারা বিভাগের ১ জন উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি), ২ জন সিনিয়র জেল সুপার, সাতজন ডেপুটি জেলারসহ ৪৯ কর্মকর্তা–কর্মচারী।

তদন্ত শেষে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে কমিটি। ওই প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবেদন জমা দেয়ার বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগের যুগ্ম সচিব ও তদন্ত কমিটির সদস্য সৈয়দ বেলাল হোসেন।

প্রতিদনে উল্লেখিত অভিযুক্ত ৪৯ জন হলেন, তৎকালীন ডিআইজি পার্থ গোপাল বণিক, জ্যেষ্ঠ জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বণিক, জ্যেষ্ঠ জেল সুপার ইকবাল কবির চৌধুরী, জেলার সোহেল রানা বিশ্বাস, ডেপুটি জেলার মুহাম্মদ মুনীর হোসাইন, মো. ফখর উদ্দিন, মো. আতিকুর রহমান, মুহাম্মদ আবদুস সেলিম, হুমায়ন কবির হাওলাদার, মনজুরুল ইসলাম, সৈয়দ জাবেদ হোসেন, সহকারী সার্জন ডা. মো. মোস্তাফিজুর রহমান, ফার্মাসিস্ট রুহুল আমিন, রামেন্দু মজুমদার পাল, কর্মচারী লায়েস মাজহারুল হক।

কারারক্ষী ও অন্যান্য কর্মচারীর মধ্যে রয়েছেন, মো. আবুল খায়ের, নূর আলম, গাজী আবদুল মান্নান, মো. তাজউদ্দিন আহমেদ, আবদুর করিম, মোসলেম উদ্দিন, বেলাল হোসেন, হিসাবরক্ষক এমদাদুল ইসলাম, ক্যানটিন ম্যানেজার উলিউল্লাহ, এইচ এম শুভন, কাউছার মিয়া, আরিফ হোসেন, আনোয়ার হোসেন, মিতু চাকমা, শহিদুল মাওলা, শরিফ হোসেন, জুয়েল রানা, আনোয়ার হোসেন, স্বপন মিয়া, মহসিন দপাদার, আনজু মিয়া, লোকমান হাকিম, শিবারন চাকমা, ত্রিভূষণ দেওয়ান, অংচহ্না মারমা, রুহুল আমিন, শাহাদাত হোসেন, শাকিল মিয়া, আবদুল হামিদ, ইকবাল হোসেন, শামীম শাহ, মো. উসমান, মো. বিল্লাল হোসেন ও অডিট টিমের সদস্য আবু বকর সিদ্দিকী।

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

কোটা আন্দোলনে সন্ত্রাসরা জড়িয়ে সংঘাত ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করছেঃ প্রধানমন্ত্রী

Adds Banner_2024

জেলার সাহেব নিজেই জেলে

আপডেটের সময় : ০৬:৫২:২৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯

ঢাকা প্রতিনিধি: প্রায় অর্ধকোটি নগদ টাকা, আড়াই কোটি টাকার এফডিআর, ১ কোটি ৩০ লাখ টাকার চেক আর ১২ বোতল ফেনসিডিল নিয়ে গত বছর পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন চট্টগ্রাম কারাগারের জেলার সোহেল রানা বিশ্বাস।

সোহালে রানা চট্টগ্রাম থেকে ময়মনসিংহে গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। কিন্তু পাপের ভার তাকে বাড়ির পরিবর্তে কারাগারে নিয়ে যায়। সেই থেকে জেলার সাবেক এখনো কারাগারে আছেন। তার বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি।

Trulli

সোহেল রানা গ্রেফতার হওয়ার পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মনিরুল আলমের নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি গঠিত হয়। সেই কমিটির অনুসন্ধানে সোহেল রানাসহ আরও ৪৯ জন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি-অনিয়মের তথ্য পেয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

তাদের মধ্যে রয়েছেন, কারা বিভাগের ১ জন উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি), ২ জন সিনিয়র জেল সুপার, সাতজন ডেপুটি জেলারসহ ৪৯ কর্মকর্তা–কর্মচারী।

তদন্ত শেষে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে কমিটি। ওই প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবেদন জমা দেয়ার বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগের যুগ্ম সচিব ও তদন্ত কমিটির সদস্য সৈয়দ বেলাল হোসেন।

প্রতিদনে উল্লেখিত অভিযুক্ত ৪৯ জন হলেন, তৎকালীন ডিআইজি পার্থ গোপাল বণিক, জ্যেষ্ঠ জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বণিক, জ্যেষ্ঠ জেল সুপার ইকবাল কবির চৌধুরী, জেলার সোহেল রানা বিশ্বাস, ডেপুটি জেলার মুহাম্মদ মুনীর হোসাইন, মো. ফখর উদ্দিন, মো. আতিকুর রহমান, মুহাম্মদ আবদুস সেলিম, হুমায়ন কবির হাওলাদার, মনজুরুল ইসলাম, সৈয়দ জাবেদ হোসেন, সহকারী সার্জন ডা. মো. মোস্তাফিজুর রহমান, ফার্মাসিস্ট রুহুল আমিন, রামেন্দু মজুমদার পাল, কর্মচারী লায়েস মাজহারুল হক।

কারারক্ষী ও অন্যান্য কর্মচারীর মধ্যে রয়েছেন, মো. আবুল খায়ের, নূর আলম, গাজী আবদুল মান্নান, মো. তাজউদ্দিন আহমেদ, আবদুর করিম, মোসলেম উদ্দিন, বেলাল হোসেন, হিসাবরক্ষক এমদাদুল ইসলাম, ক্যানটিন ম্যানেজার উলিউল্লাহ, এইচ এম শুভন, কাউছার মিয়া, আরিফ হোসেন, আনোয়ার হোসেন, মিতু চাকমা, শহিদুল মাওলা, শরিফ হোসেন, জুয়েল রানা, আনোয়ার হোসেন, স্বপন মিয়া, মহসিন দপাদার, আনজু মিয়া, লোকমান হাকিম, শিবারন চাকমা, ত্রিভূষণ দেওয়ান, অংচহ্না মারমা, রুহুল আমিন, শাহাদাত হোসেন, শাকিল মিয়া, আবদুল হামিদ, ইকবাল হোসেন, শামীম শাহ, মো. উসমান, মো. বিল্লাল হোসেন ও অডিট টিমের সদস্য আবু বকর সিদ্দিকী।