রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ

যেভাবে এগুচ্ছে বিএনপি

  • আপডেটের সময় : ০৭:৪১:৪৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৮ নভেম্বর ২০১৮
  • ৯৬ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

বিশেষ প্রতিনিধি: এবারই প্রথম বিএনপি দলের শীর্ষ নেত্রী খালেদা জিয়াকে ছাড়া নির্বাচন করছে। তিনি দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে জেলে রয়েছেন। তার নির্বাচনে অংশ নিতে পারার বিষয়টি এখনো অনিশ্চিত। সেটি বিবেচনায় থাকলেও বিএনপি রাজনৈতিক কৌশল হিসেবে খালেদা জিয়াকে তিনটি আসনে প্রার্থী করা হয়েছে।

বিকল্প প্রার্থীর চিন্তাও দলটি করে রেখেছে বলে জানা গেছে। তারপরও খালেদা জিয়াকে তার পুরনো ফেনী-১ এবং বগুড়া-৬ ও বগুড়া-৭ আসনে বিএনপি মনোনয়ন দিয়েছে।

Trulli

২৭ নভেম্বর, মঙ্গলবার বিকেলে গুলশান খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমরা আমাদের দল থেকে এখন পর্যন্ত মনোনয়ন দিয়েছি প্রায় ৮০০। ২০ দলীয় জোটের শরিকদেরও দেওয়া হয়েছে। আর জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট তাদের নিজ নিজ দল থেকে মনোনয়ন দিচ্ছে। পরে যখন বাছাই হয়ে যাবে, তখন ঠিক করা হবে।

ধানের শীষের প্রার্থী কে: তা জানা যাবে ১১ দিন পর। বিএনপি দলীয় মনোনয়ন চূড়ান্ত করলেও প্রার্থীদের চিঠি বিতরণ এখনো শেষ করতে পারেনি। সোমবার (২৬ নভেম্বর) মাইকে ঘোষণা দিয়ে প্রার্থীদের মনোনয়নের চিঠি দেওয়া হলেও ২৭ নভেম্বর থেকে কোনো ঘোষণাও দেওয়া হচ্ছে না।

দলটি বলছে, প্রার্থীর অনুকূলে প্রতীক বরাদ্দের চিঠি দেওয়ার মাধ্যমে প্রার্থীদের নাম আনুষ্ঠানিকভাবে জানাবে তারা। অর্থাৎ, ৩০০ আসনে কে হবেন ধানের শীষের প্রার্থী, তা জানতে প্রার্থী, সমর্থক ও সাধারণ মানুষকে অপেক্ষা করতে হবে আরও ১১ দিন।

বিএনপির দলীয় সূত্র বলছে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে আসন ভাগাভাগি নিয়ে সময় বেশি গেছে। এ ছাড়া আওয়ামী লীগ তাদের দলীয় প্রার্থীদের নাম আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেনি। এ কারণে প্রার্থীদের নাম প্রত্যাহারের আগ পর্যন্ত বিএনপি দলের প্রার্থীদের নাম গোপন রাখার চেষ্টা করছে। কারণ বিএনপি তাদের সিনিয়র কিছু নেতার আসন ছাড়া বেশির ভাগ আসনে মূল প্রার্থীর পাশাপাশি বিকল্প প্রার্থীও রেখেছে।

দলটির নেতারা বলেছেন, মামলা এবং ঋণ খেলাপির প্রশ্নসহ বিভিন্ন বিষয় বিবেচনায় রেখে দুই থেকে তিনজন আবার কোনো কোনো আসনে দুইয়ের অধিক প্রার্থী রেখেছেন, যাতে একজন বাদ পড়লে আরেকজন প্রার্থী বহাল থাকে। এ ছাড়াও কোনো প্রার্থী শেষ পর্যন্ত মাঠে টিকে থাকতে পারবেন সে বিষয়টিকেও বিবেচনা করেছে বিএনপি। কারণ তারা ধরেই নিয়েছেন যে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বিএনপি প্রশাসনের কাছ থেকে সহযোগিতা পাবে না।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর প্রতীক বরাদ্দের চিঠি দেওয়ার আগ পর্যন্ত চূড়ান্তভাবে দলীয় প্রার্থীদের নাম জানানো হবে না। চিঠি পাঠিয়ে তারপর তালিকা প্রকাশ করা হবে। প্রার্থীদের নাম প্রত্যাহারের আগ পর্যন্ত সময় আছে, এ কারণে একাধিক প্রার্থীদের চিঠি দেওয়ার বিষয়ে তেমন কোনো সমস্যা হবে না।’

খালেদা জিয়ার নির্বাচনে অংশ নেওয়া অনিশ্চিত

দুর্নীতির মামলায় দুই বছর বা এর অধিক কারাদণ্ডে দণ্ডিত ব্যক্তিরা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। শুধুমাত্র আপিল বিভাগ কর্তৃক সাজা স্থগিত হলেই তারা নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবেন বলে পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের পর্যবেক্ষণে বলা হয়, নিম্ন আদালতে দুর্নীতির দায়ে দুই বছর বা এর অধিক সাজাপ্রাপ্তদের আপিল উচ্চ আদালতে বিচারাধীন থাকা অবস্থায় নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না।

হাইকোর্টের এই আদেশের ফলে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াসহ যেসব রাজনীতিকরা দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন তাদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা।

মঙ্গলবার (২৭ নভেম্বর) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সম্বনয়ে গঠিত ডিভিশন বেঞ্চ মঙ্গলবার এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে সাজা স্থগিত চেয়ে বিএনপির পাঁচ নেতার আবেদনও খারিজ করে দেন আদালত। বিএনপির ওই পাঁচ নেতা হলেন- আমানুল্লাহ আমান, ওয়াদুদ ভূঁইয়া, মো. আবদুল ওয়াহাব, মশিউর রহমান ও ড্যাব নেতা ডা. জাহিদ হোসেন।

দলের নেতারা বলছেন, এ রকম পরিস্থিতিতে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষদিন পর্যন্ত বিএনপির একাধিক বিকল্প প্রার্থীরা রাখার দিকেই নজর দিচ্ছে, যাতে করে কোনো আসনে প্রার্থী সংকটে না পড়ে দলটি। আবার বিএনপির অনেক বিকল্প প্রার্থী হিসেবে স্ত্রী অথবা সন্তানকে রেখেছেন।

এসব প্রার্থীর মধ্যে রয়েছেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের স্ত্রী হাসনা মওদুদ, আলতাফ হোসেন চৌধুরীর স্ত্রী সুরাইয়া আখতার, পটুয়াখালী-২ আসনে শহীদুল আলম তালুকদারের স্ত্রী সালমা আলম, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন ছবি বিকল্প প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়েছেন। এ ছাড়া কয়েক প্রার্থী তাদের সন্তানদের রেখেছেন এ তালিকায়। চিঠি পাওয়া থেকে বাদ যায়নি রাজশাহীর আমিনুল ইসলাম, পাবনায় শিমুল বিশ্বাস ও ভোলায় হাফিজ ইব্রাহিমের মতো বিতর্কিতরাও।

বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল নেতারা জানান, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুরনো প্রার্থীদের অর্থাৎ, যারা ২০০১ ও ২০০৮ সালের নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছিলেন, তাদের প্রায় সবার হাতেই উঠছে ধানের শীষ প্রতীক। ঋণখেলাপি, বার্ধক্য বা মৃত্যুজনিত কারণ ছাড়া আগের সব প্রার্থীকে মনোনয়নের চিঠি দিচ্ছে বিএনপি। নতুন কিছু মুখ থাকলেও সংখ্যায় খুবই কম। তবে রাজধানীতে যোগ্য প্রার্থীর সংকটে আছে বিএনপি। এ জন্য এখানে ঐক্যফ্রন্টের হেভিওয়েট প্রার্থীদের মনোনয়ন দেওয়া হতে পারে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘কোনো কারণে মূল প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়ে গেলে যেন সমস্যা না হয়, এ জন্য ব্যাকআপ হিসেবে বিকল্প প্রার্থী রাখা হয়েছে। বিএনপি মনোনয়ন দিচ্ছে তুলনামূলক বিচারে উইনেবল প্রার্থীকে। এ কারণেই পুরনো প্রার্থীদের প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া এলাকায় প্রভাব আছে, কারচুপির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে পারবেন এমন ভাবনা থেকে সংস্কারপন্থী নেতাদেরও প্রার্থী করা হয়েছে।’

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘সারা দেশে বিএনপির অনেক নেতার নামে মামলা আছে। অনেকে মিথ্যা মামলায় পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। এ কারণে বিভিন্ন আসনে একাধিক প্রার্থীর নাম রাখা হয়েছে। একজন বাদ পড়লে যেন ওই আসনে দ্বিতীয়জন কিংবা তৃতীয়জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন।’

Adds Banner_2024

যেভাবে এগুচ্ছে বিএনপি

আপডেটের সময় : ০৭:৪১:৪৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৮ নভেম্বর ২০১৮

বিশেষ প্রতিনিধি: এবারই প্রথম বিএনপি দলের শীর্ষ নেত্রী খালেদা জিয়াকে ছাড়া নির্বাচন করছে। তিনি দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে জেলে রয়েছেন। তার নির্বাচনে অংশ নিতে পারার বিষয়টি এখনো অনিশ্চিত। সেটি বিবেচনায় থাকলেও বিএনপি রাজনৈতিক কৌশল হিসেবে খালেদা জিয়াকে তিনটি আসনে প্রার্থী করা হয়েছে।

বিকল্প প্রার্থীর চিন্তাও দলটি করে রেখেছে বলে জানা গেছে। তারপরও খালেদা জিয়াকে তার পুরনো ফেনী-১ এবং বগুড়া-৬ ও বগুড়া-৭ আসনে বিএনপি মনোনয়ন দিয়েছে।

Trulli

২৭ নভেম্বর, মঙ্গলবার বিকেলে গুলশান খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমরা আমাদের দল থেকে এখন পর্যন্ত মনোনয়ন দিয়েছি প্রায় ৮০০। ২০ দলীয় জোটের শরিকদেরও দেওয়া হয়েছে। আর জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট তাদের নিজ নিজ দল থেকে মনোনয়ন দিচ্ছে। পরে যখন বাছাই হয়ে যাবে, তখন ঠিক করা হবে।

ধানের শীষের প্রার্থী কে: তা জানা যাবে ১১ দিন পর। বিএনপি দলীয় মনোনয়ন চূড়ান্ত করলেও প্রার্থীদের চিঠি বিতরণ এখনো শেষ করতে পারেনি। সোমবার (২৬ নভেম্বর) মাইকে ঘোষণা দিয়ে প্রার্থীদের মনোনয়নের চিঠি দেওয়া হলেও ২৭ নভেম্বর থেকে কোনো ঘোষণাও দেওয়া হচ্ছে না।

দলটি বলছে, প্রার্থীর অনুকূলে প্রতীক বরাদ্দের চিঠি দেওয়ার মাধ্যমে প্রার্থীদের নাম আনুষ্ঠানিকভাবে জানাবে তারা। অর্থাৎ, ৩০০ আসনে কে হবেন ধানের শীষের প্রার্থী, তা জানতে প্রার্থী, সমর্থক ও সাধারণ মানুষকে অপেক্ষা করতে হবে আরও ১১ দিন।

বিএনপির দলীয় সূত্র বলছে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে আসন ভাগাভাগি নিয়ে সময় বেশি গেছে। এ ছাড়া আওয়ামী লীগ তাদের দলীয় প্রার্থীদের নাম আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেনি। এ কারণে প্রার্থীদের নাম প্রত্যাহারের আগ পর্যন্ত বিএনপি দলের প্রার্থীদের নাম গোপন রাখার চেষ্টা করছে। কারণ বিএনপি তাদের সিনিয়র কিছু নেতার আসন ছাড়া বেশির ভাগ আসনে মূল প্রার্থীর পাশাপাশি বিকল্প প্রার্থীও রেখেছে।

দলটির নেতারা বলেছেন, মামলা এবং ঋণ খেলাপির প্রশ্নসহ বিভিন্ন বিষয় বিবেচনায় রেখে দুই থেকে তিনজন আবার কোনো কোনো আসনে দুইয়ের অধিক প্রার্থী রেখেছেন, যাতে একজন বাদ পড়লে আরেকজন প্রার্থী বহাল থাকে। এ ছাড়াও কোনো প্রার্থী শেষ পর্যন্ত মাঠে টিকে থাকতে পারবেন সে বিষয়টিকেও বিবেচনা করেছে বিএনপি। কারণ তারা ধরেই নিয়েছেন যে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বিএনপি প্রশাসনের কাছ থেকে সহযোগিতা পাবে না।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর প্রতীক বরাদ্দের চিঠি দেওয়ার আগ পর্যন্ত চূড়ান্তভাবে দলীয় প্রার্থীদের নাম জানানো হবে না। চিঠি পাঠিয়ে তারপর তালিকা প্রকাশ করা হবে। প্রার্থীদের নাম প্রত্যাহারের আগ পর্যন্ত সময় আছে, এ কারণে একাধিক প্রার্থীদের চিঠি দেওয়ার বিষয়ে তেমন কোনো সমস্যা হবে না।’

খালেদা জিয়ার নির্বাচনে অংশ নেওয়া অনিশ্চিত

দুর্নীতির মামলায় দুই বছর বা এর অধিক কারাদণ্ডে দণ্ডিত ব্যক্তিরা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। শুধুমাত্র আপিল বিভাগ কর্তৃক সাজা স্থগিত হলেই তারা নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবেন বলে পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের পর্যবেক্ষণে বলা হয়, নিম্ন আদালতে দুর্নীতির দায়ে দুই বছর বা এর অধিক সাজাপ্রাপ্তদের আপিল উচ্চ আদালতে বিচারাধীন থাকা অবস্থায় নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না।

হাইকোর্টের এই আদেশের ফলে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াসহ যেসব রাজনীতিকরা দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন তাদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ সম্ভব হবে না বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা।

মঙ্গলবার (২৭ নভেম্বর) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সম্বনয়ে গঠিত ডিভিশন বেঞ্চ মঙ্গলবার এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে সাজা স্থগিত চেয়ে বিএনপির পাঁচ নেতার আবেদনও খারিজ করে দেন আদালত। বিএনপির ওই পাঁচ নেতা হলেন- আমানুল্লাহ আমান, ওয়াদুদ ভূঁইয়া, মো. আবদুল ওয়াহাব, মশিউর রহমান ও ড্যাব নেতা ডা. জাহিদ হোসেন।

দলের নেতারা বলছেন, এ রকম পরিস্থিতিতে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষদিন পর্যন্ত বিএনপির একাধিক বিকল্প প্রার্থীরা রাখার দিকেই নজর দিচ্ছে, যাতে করে কোনো আসনে প্রার্থী সংকটে না পড়ে দলটি। আবার বিএনপির অনেক বিকল্প প্রার্থী হিসেবে স্ত্রী অথবা সন্তানকে রেখেছেন।

এসব প্রার্থীর মধ্যে রয়েছেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের স্ত্রী হাসনা মওদুদ, আলতাফ হোসেন চৌধুরীর স্ত্রী সুরাইয়া আখতার, পটুয়াখালী-২ আসনে শহীদুল আলম তালুকদারের স্ত্রী সালমা আলম, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন ছবি বিকল্প প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়নের চিঠি পেয়েছেন। এ ছাড়া কয়েক প্রার্থী তাদের সন্তানদের রেখেছেন এ তালিকায়। চিঠি পাওয়া থেকে বাদ যায়নি রাজশাহীর আমিনুল ইসলাম, পাবনায় শিমুল বিশ্বাস ও ভোলায় হাফিজ ইব্রাহিমের মতো বিতর্কিতরাও।

বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল নেতারা জানান, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুরনো প্রার্থীদের অর্থাৎ, যারা ২০০১ ও ২০০৮ সালের নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছিলেন, তাদের প্রায় সবার হাতেই উঠছে ধানের শীষ প্রতীক। ঋণখেলাপি, বার্ধক্য বা মৃত্যুজনিত কারণ ছাড়া আগের সব প্রার্থীকে মনোনয়নের চিঠি দিচ্ছে বিএনপি। নতুন কিছু মুখ থাকলেও সংখ্যায় খুবই কম। তবে রাজধানীতে যোগ্য প্রার্থীর সংকটে আছে বিএনপি। এ জন্য এখানে ঐক্যফ্রন্টের হেভিওয়েট প্রার্থীদের মনোনয়ন দেওয়া হতে পারে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘কোনো কারণে মূল প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়ে গেলে যেন সমস্যা না হয়, এ জন্য ব্যাকআপ হিসেবে বিকল্প প্রার্থী রাখা হয়েছে। বিএনপি মনোনয়ন দিচ্ছে তুলনামূলক বিচারে উইনেবল প্রার্থীকে। এ কারণেই পুরনো প্রার্থীদের প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া এলাকায় প্রভাব আছে, কারচুপির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে পারবেন এমন ভাবনা থেকে সংস্কারপন্থী নেতাদেরও প্রার্থী করা হয়েছে।’

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘সারা দেশে বিএনপির অনেক নেতার নামে মামলা আছে। অনেকে মিথ্যা মামলায় পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। এ কারণে বিভিন্ন আসনে একাধিক প্রার্থীর নাম রাখা হয়েছে। একজন বাদ পড়লে যেন ওই আসনে দ্বিতীয়জন কিংবা তৃতীয়জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন।’