রাজশাহী , বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ

সাপ পরিবেশের উপকারী প্রাণী

  • আপডেটের সময় : ০৫:০৩:০৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৯
  • ১২০ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য ডেস্কঃ হঠাৎ সাপ দেখতে আঁতকে ওঠার প্রবণতা মানুষের সহজাত। এভাবে আঁতকে ওঠে মানুষরা একসময় হিংস্র হয়ে যান। তারপর লাঠি দিয়ে সাপটিকে হত্যা না করা পর্যন্ত শান্তি খুঁজে পান না কিছু মানুষ। অথচ পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় সাপের গুরুত্ব অপরসীম। এই বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যাটি থেকে যায় এক শ্রেণির মানুষ কিছুতেই মানতে চান না। তাদের ধারণা সাপ দেখলেই পিটিয়ে মারতে হবে।

বন্যপ্রাণী গবেষক ও আলোকচিত্রী আদনান আজাদ আসিফ দীর্ঘদিন থেকে সরীসৃপ প্রাণী, সাপ, কুমির প্রভৃতি প্রাণীর উপর গবেষণা করে চলেছেন। ছবিতে দেখা যাচ্ছে ফনা তুলে থাকা একটি বিষধর গোখরা সাপের মুখোমুখি তিনি।

Trulli

কীভাবে এটি সম্ভব? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, এটি খৈয়া-গোখরা। এই সাপটিকে আমি রেসকিউ (উদ্ধার) করে বন্যপরিবেশে অবমুক্ত করি। স্থানীয় মানুষকে সাপ সম্পর্কে ভুল তাদের ধারণাগুলোকে ভাঙাতে এই সাপটির সঙ্গে আমি কিছুটা সময় কাটাই।

ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, একটা বাড়ির মধ্যে এ সাপটিকে পাওয়া গিয়েছিলো। তখন আমি নওগাঁ ছিলাম। একটি বছর খানেক আগের ঘটনা। এই সাপটিকে মারতে মানুষ লাঠি-দা নিয়ে ছুটে যাচ্ছিলো। ঘটনাটি শুনে আমি তখন তাৎক্ষণাৎ ছুটে যাই এবং সাপটিকে ওই সংকটময় পরিস্থিতি থেকে উদ্ধার করি। এ ধরনের অনেক সাপকে আমি উদ্ধার করে প্রকৃতিতে অবমুক্ত করেছি।

আদনান আজাদ আসিফ আরও বলেন, তখন আমি স্থানীয় মানুষদের বলি যে, সাপকে বিরক্ত না করলে সাপ কখনোই মানুষকে কামড় বা ছোবল দেবে না। স্থানীয় জনগণ তখন আমার এ কথাগুলো বিশ্বাস করেনি। তখন আমি মনে মনে সিদ্ধান্ত নেই- এই খৈয়া-গোখরার সঙ্গে কিছুটা সময় কাটবো। সাপটিকে মাটিতে ছেড়ে দিয়ে তার পাশাপাশি থেকে তার সঙ্গে কিছুটা সময় কাটাই। তাদের বুঝাতে সক্ষম হই যে, সাপের জন্য আমি ভয়ের কিছু না বলেই যে আমাকে কিছু করছে না। এই ঘটনায় স্থানীয়রা অবাক হয়ে যায়। তারপর তাদের ভুল ভাঙিয়ে আমি সাপটিকে জনবসতি থেকে দূরের একটি ঝোপের মধ্যে ছেড়ে দেই।

তিনি বলেন, সবসময় আবার আমি মানুষকে বুঝতে যে সফল হই তা নই। কারণ মানুষের একটি সহজাত ভয় কাজ করে যে, সাপ দেখলেই মেরে ফেলতে হবে। সাপের কথা শুনলে একজন আশি বছরের বুড়ো যেমন লাঠি হাতে নেয়, তেমনি আট বছরের শিশুও তাই করে।

আমাদের দেশে ৯৫ শতাংশ সাপেদের বিষ নেই। ওরা নির্বিষ বা বিষমুক্ত সাপ। বাকি মাত্র পাঁচ ভাগ সাপের যদিও বা বিষ রয়েছে তারা কখনোই তীব্র ভয় বা আঘাত না পেলে ছোবল দেয় না। পরিবেশের জন্য সাপ অত্যন্ত উপকারী প্রাণী। এই বিষয়ে আমাদের ব্যাপক সচেতনতা তৈরি করতে হবে বলে জানান আসিফ আদনান আজাদ।

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

রাবিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান, ৪ ঘণ্টা পর অবমুক্ত উপাচার্য

Adds Banner_2024

সাপ পরিবেশের উপকারী প্রাণী

আপডেটের সময় : ০৫:০৩:০৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৯

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য ডেস্কঃ হঠাৎ সাপ দেখতে আঁতকে ওঠার প্রবণতা মানুষের সহজাত। এভাবে আঁতকে ওঠে মানুষরা একসময় হিংস্র হয়ে যান। তারপর লাঠি দিয়ে সাপটিকে হত্যা না করা পর্যন্ত শান্তি খুঁজে পান না কিছু মানুষ। অথচ পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় সাপের গুরুত্ব অপরসীম। এই বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যাটি থেকে যায় এক শ্রেণির মানুষ কিছুতেই মানতে চান না। তাদের ধারণা সাপ দেখলেই পিটিয়ে মারতে হবে।

বন্যপ্রাণী গবেষক ও আলোকচিত্রী আদনান আজাদ আসিফ দীর্ঘদিন থেকে সরীসৃপ প্রাণী, সাপ, কুমির প্রভৃতি প্রাণীর উপর গবেষণা করে চলেছেন। ছবিতে দেখা যাচ্ছে ফনা তুলে থাকা একটি বিষধর গোখরা সাপের মুখোমুখি তিনি।

Trulli

কীভাবে এটি সম্ভব? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, এটি খৈয়া-গোখরা। এই সাপটিকে আমি রেসকিউ (উদ্ধার) করে বন্যপরিবেশে অবমুক্ত করি। স্থানীয় মানুষকে সাপ সম্পর্কে ভুল তাদের ধারণাগুলোকে ভাঙাতে এই সাপটির সঙ্গে আমি কিছুটা সময় কাটাই।

ঘটনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, একটা বাড়ির মধ্যে এ সাপটিকে পাওয়া গিয়েছিলো। তখন আমি নওগাঁ ছিলাম। একটি বছর খানেক আগের ঘটনা। এই সাপটিকে মারতে মানুষ লাঠি-দা নিয়ে ছুটে যাচ্ছিলো। ঘটনাটি শুনে আমি তখন তাৎক্ষণাৎ ছুটে যাই এবং সাপটিকে ওই সংকটময় পরিস্থিতি থেকে উদ্ধার করি। এ ধরনের অনেক সাপকে আমি উদ্ধার করে প্রকৃতিতে অবমুক্ত করেছি।

আদনান আজাদ আসিফ আরও বলেন, তখন আমি স্থানীয় মানুষদের বলি যে, সাপকে বিরক্ত না করলে সাপ কখনোই মানুষকে কামড় বা ছোবল দেবে না। স্থানীয় জনগণ তখন আমার এ কথাগুলো বিশ্বাস করেনি। তখন আমি মনে মনে সিদ্ধান্ত নেই- এই খৈয়া-গোখরার সঙ্গে কিছুটা সময় কাটবো। সাপটিকে মাটিতে ছেড়ে দিয়ে তার পাশাপাশি থেকে তার সঙ্গে কিছুটা সময় কাটাই। তাদের বুঝাতে সক্ষম হই যে, সাপের জন্য আমি ভয়ের কিছু না বলেই যে আমাকে কিছু করছে না। এই ঘটনায় স্থানীয়রা অবাক হয়ে যায়। তারপর তাদের ভুল ভাঙিয়ে আমি সাপটিকে জনবসতি থেকে দূরের একটি ঝোপের মধ্যে ছেড়ে দেই।

তিনি বলেন, সবসময় আবার আমি মানুষকে বুঝতে যে সফল হই তা নই। কারণ মানুষের একটি সহজাত ভয় কাজ করে যে, সাপ দেখলেই মেরে ফেলতে হবে। সাপের কথা শুনলে একজন আশি বছরের বুড়ো যেমন লাঠি হাতে নেয়, তেমনি আট বছরের শিশুও তাই করে।

আমাদের দেশে ৯৫ শতাংশ সাপেদের বিষ নেই। ওরা নির্বিষ বা বিষমুক্ত সাপ। বাকি মাত্র পাঁচ ভাগ সাপের যদিও বা বিষ রয়েছে তারা কখনোই তীব্র ভয় বা আঘাত না পেলে ছোবল দেয় না। পরিবেশের জন্য সাপ অত্যন্ত উপকারী প্রাণী। এই বিষয়ে আমাদের ব্যাপক সচেতনতা তৈরি করতে হবে বলে জানান আসিফ আদনান আজাদ।