রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনে সন্ত্রাসরা জড়িয়ে সংঘাত ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করছেঃ প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহায়তা করে: প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ

রিংটোনে আজান, তেলাওয়াত ও দোয়া ব্যবহারের হুকুম

  • আপডেটের সময় : ০৪:৪২:৫৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৯
  • ৪৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ধর্ম ডেস্ক: প্রশ্ন: মোবাইলের রিংটোন হিসেবে অনেকে আজান, কোরআনের তেলাওয়াত, জিকির ও দোয়া ইত্যাদি ব্যবহার করে থাকেন। এভাবে রিংটোনে এগুলো ব্যবহার জায়েজ আছে কিনা জানাবেন। ধন্যবাদ।

উত্তর: আজান, তেলাওয়াত, জিকির ও দোয়া—এগুলো ইবাদতের অন্তর্ভুক্ত। আর ইবাদত করতে হয় একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে। ইবাদতের যথেচ্ছা ব্যবহার ও প্রয়োগ অন্যায়। মোবাইলে রিংটোন হিসেবে এগুলোর ব্যবহার যে অপাত্রে ব্যবহার—তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

Trulli

ক্রেতাকে আকৃষ্ট করার জন্য বিক্রেতার জোরে জোরে ‘সুবহানাল্লাহ’ বলা, তদ্রূপ প্রহরী জাগ্রত আছে একথা বোঝানোর জন্য জোরে জোরে জিকির করাকেই ফিকহবিদরা অপব্যবহার হিসাবে আখ্যা দিয়েছেন। তাহলে রিংটোন হিসাবে এগুলোর ব্যবহার যে কেমন হবে, তা সহজেই অনুমেয়। উপরন্তু রিংটোন হিসেবে এগুলোর ব্যবহারে আরো অন্যান্য শরিয়তের দিক থেকে আরো অন্যান্য অসুবিধা রয়েছে। যেমন-

এক. রিং আসলে কোরআনের তেলাওয়াত বেজে উঠছে, কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে ব্যস্ততার দরুণ তেলাওয়াতের প্রতি ভ্রূক্ষেপ করারই সুযোগ হয় না। তদ্রূপ কে রিং করেছে, তা দেখা ও কল রিসিভ করার ব্যস্ততা তো লেগেই থাকে। এ কারণেও তিলাওয়াতের আদব রক্ষা করে শ্রবণ করা হয় না।

দুই. রিং আসলে রিসিভের জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়ে এবং এটিই মূল উদ্দেশ্য থাকে। তাই আয়াতের যেকোনো স্থানেই তেলাওয়াত চলতে থাকে, সে দিকে ভ্রূক্ষেপ না করে রিসিভ করে ফেলে। ফলে অনেক ক্ষেত্রে উচ্চারিত অংশের বিবেচনায় আয়াতের অর্থ বিকৃত হয়ে যায়।

তিন. মোবাইল নিয়ে টয়লেট কিংবা বাথরুমে প্রবেশের পর রিং আসলে অপবিত্র স্থানে আল্লাহ তাআলার পবিত্র কালাম, জিকির ও আজান বেজে উঠবে। এতে এগুলোর পবিত্রতা ক্ষুণ্ন হয়। মোটকথা অনেক কারণেই তেলাওয়াত, আজান ও জিকিরকে রিংটোন হিসেবে ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকা জরুরি।

সূত্র: আততিবয়ান ফি আদাবি হামালাতিল কোরআন, ইমাম নববি, পৃষ্ঠা: ৪৬; হক্কুততিলাওয়া- হুসাইনি, শাইখ উসমান, পৃষ্ঠা: ৪০১; ফাতাওয়া আলমগিরি: ৫/৩১৫; আলমুগনি ৪/৪৮২; রদ্দুল মুহতার: ১/৫১৮, ১/৫৪৬; আলাতে জাদিদা, মুফতি মুহাম্মাদ শফি (রহ.), আলকাফি: ১/৩৭৬; আলআশবাহ: ৩৫)

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী

Adds Banner_2024

রিংটোনে আজান, তেলাওয়াত ও দোয়া ব্যবহারের হুকুম

আপডেটের সময় : ০৪:৪২:৫৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৯

ধর্ম ডেস্ক: প্রশ্ন: মোবাইলের রিংটোন হিসেবে অনেকে আজান, কোরআনের তেলাওয়াত, জিকির ও দোয়া ইত্যাদি ব্যবহার করে থাকেন। এভাবে রিংটোনে এগুলো ব্যবহার জায়েজ আছে কিনা জানাবেন। ধন্যবাদ।

উত্তর: আজান, তেলাওয়াত, জিকির ও দোয়া—এগুলো ইবাদতের অন্তর্ভুক্ত। আর ইবাদত করতে হয় একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে। ইবাদতের যথেচ্ছা ব্যবহার ও প্রয়োগ অন্যায়। মোবাইলে রিংটোন হিসেবে এগুলোর ব্যবহার যে অপাত্রে ব্যবহার—তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

Trulli

ক্রেতাকে আকৃষ্ট করার জন্য বিক্রেতার জোরে জোরে ‘সুবহানাল্লাহ’ বলা, তদ্রূপ প্রহরী জাগ্রত আছে একথা বোঝানোর জন্য জোরে জোরে জিকির করাকেই ফিকহবিদরা অপব্যবহার হিসাবে আখ্যা দিয়েছেন। তাহলে রিংটোন হিসাবে এগুলোর ব্যবহার যে কেমন হবে, তা সহজেই অনুমেয়। উপরন্তু রিংটোন হিসেবে এগুলোর ব্যবহারে আরো অন্যান্য শরিয়তের দিক থেকে আরো অন্যান্য অসুবিধা রয়েছে। যেমন-

এক. রিং আসলে কোরআনের তেলাওয়াত বেজে উঠছে, কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে ব্যস্ততার দরুণ তেলাওয়াতের প্রতি ভ্রূক্ষেপ করারই সুযোগ হয় না। তদ্রূপ কে রিং করেছে, তা দেখা ও কল রিসিভ করার ব্যস্ততা তো লেগেই থাকে। এ কারণেও তিলাওয়াতের আদব রক্ষা করে শ্রবণ করা হয় না।

দুই. রিং আসলে রিসিভের জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়ে এবং এটিই মূল উদ্দেশ্য থাকে। তাই আয়াতের যেকোনো স্থানেই তেলাওয়াত চলতে থাকে, সে দিকে ভ্রূক্ষেপ না করে রিসিভ করে ফেলে। ফলে অনেক ক্ষেত্রে উচ্চারিত অংশের বিবেচনায় আয়াতের অর্থ বিকৃত হয়ে যায়।

তিন. মোবাইল নিয়ে টয়লেট কিংবা বাথরুমে প্রবেশের পর রিং আসলে অপবিত্র স্থানে আল্লাহ তাআলার পবিত্র কালাম, জিকির ও আজান বেজে উঠবে। এতে এগুলোর পবিত্রতা ক্ষুণ্ন হয়। মোটকথা অনেক কারণেই তেলাওয়াত, আজান ও জিকিরকে রিংটোন হিসেবে ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকা জরুরি।

সূত্র: আততিবয়ান ফি আদাবি হামালাতিল কোরআন, ইমাম নববি, পৃষ্ঠা: ৪৬; হক্কুততিলাওয়া- হুসাইনি, শাইখ উসমান, পৃষ্ঠা: ৪০১; ফাতাওয়া আলমগিরি: ৫/৩১৫; আলমুগনি ৪/৪৮২; রদ্দুল মুহতার: ১/৫১৮, ১/৫৪৬; আলাতে জাদিদা, মুফতি মুহাম্মাদ শফি (রহ.), আলকাফি: ১/৩৭৬; আলআশবাহ: ৩৫)