রাজশাহী , রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না? আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর অধিকার আমার নেই ফের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম, দৃশ্যমান পদক্ষেপ চান কোটা আন্দোলনকারীরা আবাসন এবং হসপিটালিটি খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী চীন : প্রধানমন্ত্রী ব্যারিকেড ভেঙে ফেলেছেন শিক্ষার্থীরা, যাচ্ছেন বঙ্গভবনের দিকে ট্রাম্পের ওপর হামলা নির্বাচনী প্রচারণায় কতটা প্রভাব ফেলবে? পূর্বঘোষিত গণপদযাত্রায় অংশ নিতে জড়ো হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা ৭ অঞ্চলে সন্ধ্যার মধ্যে ঝড়ের আভাস কানে গুলিবিদ্ধ ট্রাম্প, বলছেন– যুক্তরাষ্ট্রে এমন হামলা অবিশ্বাস্য মামলা তুলে নিতে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম কোটা আন্দোলনকারীদের কোটা আন্দোলন : গণপদযাত্রা ও রাষ্ট্রপতিকে স্মারকলিপি দেবেন শিক্ষার্থীরা ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার : প্রধানমন্ত্রী পেনশন স্কিম নিয়ে ভুল বোঝাবুঝি দূর হয়েছে : ওবায়দুল কাদের ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা সরকার চাইলে কোটা পরিবর্তন করতে পারবে, হাইকোর্টের রায় প্রকাশ ব্যারিকেড ভেঙে ‘ভুয়া ভুয়া’ স্লোগান, উত্তাল শাহবাগ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ আন্দোলনকে বেগবান করতে জনসংযোগ, সমন্বয় করে কর্মসূচির ঘোষণা আজ চলমান কোটা আন্দোলন নিয়ে ছাত্রলীগের সংবাদ সম্মেলন কোটা আন্দোলনকারীদের জন্য আদালতের দরজা সবসময় খোলা

আধুনিক বিজ্ঞানকে ইসলাম অস্বীকার করে না

  • আপডেটের সময় : ০৬:৪৩:৪৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯
  • ৫৩ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ধর্ম ডেস্ক: ধারাবাহিক পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার ফলে কোনো বিষয়ে প্রাপ্ত ব্যাপক ও বিশেষজ্ঞান, অন্য কথায় পরীক্ষা প্রমাণ প্রভৃতি দ্বারা নিরূপিত শৃঙ্খলাবদ্ধ জ্ঞানের অপর নাম বিজ্ঞান। বিজ্ঞান নিঃসন্দেহে মানুষের মস্তিষ্কপ্রসূত জ্ঞান। মানুষের যেমন বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা থাকে; তেমনি মানুষের মস্তিষ্কপ্রসূত জ্ঞানেরও নানা সীমাবদ্ধতা থাকবে- এটাই স্বাভাবিক। তাই বিজ্ঞান পরিবর্তনশীল। তাই তো দেখা যায়, নতুন নতুন অনেক গবেষণা পুরনো অনেক গবেষণা ও অভিজ্ঞতার ফলাফলকে ভুল ও ক্ষেত্রবিশেষ হাস্যকর প্রমাণিত করে।

বিজ্ঞানের পরিবর্তনশীলতার অসংখ্য উদাহরণ রয়েছে। এক্ষেত্রে প্রাচীন ও আধুনিক জ্যোতির্বিজ্ঞানের কিছু গবেষণার ফলাফল এবং দুইয়ের বৈপরীত্য নমুনা হিসেবে উল্লেখ করা যেতে পারে।

Trulli

প্রাচীন জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও গ্রীক দার্শনিকদের মতে পৃথিবী হলো- মহাবিশ্বের কেন্দ্র। পৃথিবীর কোনো গতি নেই, একেবারে স্থির। আংটির মধ্যে মুক্তা এবং দেয়ালের গায়ে পেরেক যেমন প্রোথিত, সমস্ত গ্রহ পৃথিবীর চারিদিকে বেষ্টিত কঠিন পদার্থে সৃষ্ট আকাশের গায়ে ঠিক সেভাবে প্রোথিত। আকাশের নয়টি স্তর রয়েছে। এর প্রতিটি স্বচ্ছ কাচেঁর মতো। প্রত্যেকটির নিজস্ব গ্রহ নক্ষত্র রয়েছে।

প্রথম আসমান পৃথিবীকে চতুর্দিক থেকে বেষ্টন করে রয়েছে। এভাবে সবক’টি আসমানকে বেষ্টন করে রেখেছে নবম আসমান। অনেকটা পেঁয়াজের খোসার স্তরের মতো। আকাশের প্রতিটি স্তর নিজ নিজ গ্রহ নক্ষত্রসহ প্রতি চব্বিশ ঘণ্টায় পূর্ব থেকে পশ্চিমে একবার ঘুরে আসে। আর এ কারণে দিন রাত হয়।

পক্ষাস্তরে আধুনিক জ্যোতির্বিজ্ঞানের গবেষণা বলে, মহাবিশ্বের কোনো কেন্দ্র নেই। তবে সৌরজগতের কেন্দ্র হলো সূর্য। পৃথিবীর একই সঙ্গে দু’টি গতি রয়েছে; আহ্নিক গতি ও বার্ষিক গতি। সকল গ্রহ-নক্ষত্র মহাশূন্যে ভাসমান। আহ্নিক গতির কারণে পৃথিবীর দিন রাত হয়। -আল হাইয়াতুস সুগরা: ৪, মুসা রুহানি, আরবি

পবিত্র কোরআনে কারিমের ভাষ্যমতে প্রতিটি গ্রহ-নক্ষত্রের নিজস্ব গতি আছে। আপন আপন কক্ষপথে সেগুলো সন্তরণ করছে অনবরত। ইরশাদ হচ্ছে, ‘সূর্য নিজ অবস্থানস্থলের (গন্তব্য) দিকে চলতে থাকে।’ -সূরা ইয়াসিন

আয়াতে সূর্যের গন্তব্য বুঝানোর জন্য আরবি ‘মুস্তাকার’ শব্দ ব্যবহৃত হয়েছে। শব্দটির অর্থ হচ্ছে, অবস্থানস্থল এবং অবস্থানকাল । শব্দটি কখনও ভ্রমণের শেষসীমার অর্থেও ব্যবহৃত হয়। বিরতি না দিয়ে পুনরায় ভ্রমণ শুরু করার অর্থও শব্দটি প্রদান করে। -মাআরেফুল কোরআন

‘অবস্থানকাল’ অর্থ হলে আয়াতের মর্ম হবে, সূর্য তার চলার নির্ধারিত সময় পর্যন্ত সন্তরণ করতে থাকবে। আর সেই সময়টি হলো, কেয়ামতের দিন। অর্থাৎ সূর্য একটি সুনিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থাপনায় নিজ কক্ষপথে পরিভ্রমণ করছে। এক মুহূর্তের জন্যও এতে হেরফের হয় না। তবে সূর্যের এই সন্তরণ অনন্তকালের জন্য নয়। বরং এই চলারও একটি নির্দিষ্ট সময়সীমা রয়েছে। এক সময়ে এর গতি স্তব্ধ হায়ে যাবে। তখনই কেয়ামত প্রতিষ্ঠিত হবে। এই তাফসির বিখ্যাত তাবেয়ি হজরত কাতাদা রহমাতুল্লাহি আলাইহি থেকে বর্ণিত।

আর যদি আয়াতে ব্যবহৃত শব্দ ‘মুস্তাকার’ দ্বারা অবস্থানস্থল উদ্দেশ্য হয়, তাহলে অর্থ হবে- সূর্য সৃষ্টিলগ্ন থেকে তার কক্ষপথের যে স্থানটি থেকে আবর্তন শুরু করেছে, বৃত্তাকারে সেদিকেই সেটি চলতে থাকে। ঠিক সেখানে গিয়ে তার একবারের প্রদক্ষিণ শেষ হয়। এভাবে আবার দ্বিতীয় ঘূর্ণনপ্রক্রিয়া শুরু হয়। অপর আয়াতে ইরশাদ হচ্ছে, ‘সূর্য ও চন্দ্র নিজ নিজ কক্ষপক্ষে সন্তরণ করে।’ -সূরা ইয়াসিন: ৪০

‘ফালাক’ শাব্দের অর্থ ‘আকাশ’ নয়, বরং যে কক্ষপথে গ্রহ নক্ষত্র বিচরণ করে তাকেই ‘ফালাক’ বলে। এই আয়াতের আলোকে বলা যায়, চন্দ্র (ইত্যাদি গ্রহ-নক্ষত্র) আকাশের গায়ে প্রোথিত নয়। যেমনটি গ্রীক দার্শনিকদের অভিমত। তবে আধুনিক গবেষণা কোরআনে কারিমের বাণীকে চাক্ষুস প্রমাণে উন্নীত করেছে। -মাআরেফুল কোরআন

প্রায় পনের শত বছর পূর্বে পবিত্র কোরআন অবতীর্ণ হওয়া সত্ত্বেও এক্ষেত্রে কোরআনে কারিমের সঙ্গে আধুনিক গবেষণার অপূর্ব মিল রয়েছে। এ জাতীয় অসংখ্য আধুনিক গবেষণার ফলাফল কোরআন মজিদের সঙ্গে মিলে যায়। বিজ্ঞানের এ জাতীয় গবেষণা মেনে নিতে ইসলামি শরিয়তেরও কোনো বাঁধা নেই।

Adds Banner_2024
জনপ্রিয় পোস্ট
Adds Banner_2024

বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ নেতার মায়ের মৃত্যুতে শোক

Adds Banner_2024

আধুনিক বিজ্ঞানকে ইসলাম অস্বীকার করে না

আপডেটের সময় : ০৬:৪৩:৪৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯

ধর্ম ডেস্ক: ধারাবাহিক পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার ফলে কোনো বিষয়ে প্রাপ্ত ব্যাপক ও বিশেষজ্ঞান, অন্য কথায় পরীক্ষা প্রমাণ প্রভৃতি দ্বারা নিরূপিত শৃঙ্খলাবদ্ধ জ্ঞানের অপর নাম বিজ্ঞান। বিজ্ঞান নিঃসন্দেহে মানুষের মস্তিষ্কপ্রসূত জ্ঞান। মানুষের যেমন বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা থাকে; তেমনি মানুষের মস্তিষ্কপ্রসূত জ্ঞানেরও নানা সীমাবদ্ধতা থাকবে- এটাই স্বাভাবিক। তাই বিজ্ঞান পরিবর্তনশীল। তাই তো দেখা যায়, নতুন নতুন অনেক গবেষণা পুরনো অনেক গবেষণা ও অভিজ্ঞতার ফলাফলকে ভুল ও ক্ষেত্রবিশেষ হাস্যকর প্রমাণিত করে।

বিজ্ঞানের পরিবর্তনশীলতার অসংখ্য উদাহরণ রয়েছে। এক্ষেত্রে প্রাচীন ও আধুনিক জ্যোতির্বিজ্ঞানের কিছু গবেষণার ফলাফল এবং দুইয়ের বৈপরীত্য নমুনা হিসেবে উল্লেখ করা যেতে পারে।

Trulli

প্রাচীন জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও গ্রীক দার্শনিকদের মতে পৃথিবী হলো- মহাবিশ্বের কেন্দ্র। পৃথিবীর কোনো গতি নেই, একেবারে স্থির। আংটির মধ্যে মুক্তা এবং দেয়ালের গায়ে পেরেক যেমন প্রোথিত, সমস্ত গ্রহ পৃথিবীর চারিদিকে বেষ্টিত কঠিন পদার্থে সৃষ্ট আকাশের গায়ে ঠিক সেভাবে প্রোথিত। আকাশের নয়টি স্তর রয়েছে। এর প্রতিটি স্বচ্ছ কাচেঁর মতো। প্রত্যেকটির নিজস্ব গ্রহ নক্ষত্র রয়েছে।

প্রথম আসমান পৃথিবীকে চতুর্দিক থেকে বেষ্টন করে রয়েছে। এভাবে সবক’টি আসমানকে বেষ্টন করে রেখেছে নবম আসমান। অনেকটা পেঁয়াজের খোসার স্তরের মতো। আকাশের প্রতিটি স্তর নিজ নিজ গ্রহ নক্ষত্রসহ প্রতি চব্বিশ ঘণ্টায় পূর্ব থেকে পশ্চিমে একবার ঘুরে আসে। আর এ কারণে দিন রাত হয়।

পক্ষাস্তরে আধুনিক জ্যোতির্বিজ্ঞানের গবেষণা বলে, মহাবিশ্বের কোনো কেন্দ্র নেই। তবে সৌরজগতের কেন্দ্র হলো সূর্য। পৃথিবীর একই সঙ্গে দু’টি গতি রয়েছে; আহ্নিক গতি ও বার্ষিক গতি। সকল গ্রহ-নক্ষত্র মহাশূন্যে ভাসমান। আহ্নিক গতির কারণে পৃথিবীর দিন রাত হয়। -আল হাইয়াতুস সুগরা: ৪, মুসা রুহানি, আরবি

পবিত্র কোরআনে কারিমের ভাষ্যমতে প্রতিটি গ্রহ-নক্ষত্রের নিজস্ব গতি আছে। আপন আপন কক্ষপথে সেগুলো সন্তরণ করছে অনবরত। ইরশাদ হচ্ছে, ‘সূর্য নিজ অবস্থানস্থলের (গন্তব্য) দিকে চলতে থাকে।’ -সূরা ইয়াসিন

আয়াতে সূর্যের গন্তব্য বুঝানোর জন্য আরবি ‘মুস্তাকার’ শব্দ ব্যবহৃত হয়েছে। শব্দটির অর্থ হচ্ছে, অবস্থানস্থল এবং অবস্থানকাল । শব্দটি কখনও ভ্রমণের শেষসীমার অর্থেও ব্যবহৃত হয়। বিরতি না দিয়ে পুনরায় ভ্রমণ শুরু করার অর্থও শব্দটি প্রদান করে। -মাআরেফুল কোরআন

‘অবস্থানকাল’ অর্থ হলে আয়াতের মর্ম হবে, সূর্য তার চলার নির্ধারিত সময় পর্যন্ত সন্তরণ করতে থাকবে। আর সেই সময়টি হলো, কেয়ামতের দিন। অর্থাৎ সূর্য একটি সুনিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থাপনায় নিজ কক্ষপথে পরিভ্রমণ করছে। এক মুহূর্তের জন্যও এতে হেরফের হয় না। তবে সূর্যের এই সন্তরণ অনন্তকালের জন্য নয়। বরং এই চলারও একটি নির্দিষ্ট সময়সীমা রয়েছে। এক সময়ে এর গতি স্তব্ধ হায়ে যাবে। তখনই কেয়ামত প্রতিষ্ঠিত হবে। এই তাফসির বিখ্যাত তাবেয়ি হজরত কাতাদা রহমাতুল্লাহি আলাইহি থেকে বর্ণিত।

আর যদি আয়াতে ব্যবহৃত শব্দ ‘মুস্তাকার’ দ্বারা অবস্থানস্থল উদ্দেশ্য হয়, তাহলে অর্থ হবে- সূর্য সৃষ্টিলগ্ন থেকে তার কক্ষপথের যে স্থানটি থেকে আবর্তন শুরু করেছে, বৃত্তাকারে সেদিকেই সেটি চলতে থাকে। ঠিক সেখানে গিয়ে তার একবারের প্রদক্ষিণ শেষ হয়। এভাবে আবার দ্বিতীয় ঘূর্ণনপ্রক্রিয়া শুরু হয়। অপর আয়াতে ইরশাদ হচ্ছে, ‘সূর্য ও চন্দ্র নিজ নিজ কক্ষপক্ষে সন্তরণ করে।’ -সূরা ইয়াসিন: ৪০

‘ফালাক’ শাব্দের অর্থ ‘আকাশ’ নয়, বরং যে কক্ষপথে গ্রহ নক্ষত্র বিচরণ করে তাকেই ‘ফালাক’ বলে। এই আয়াতের আলোকে বলা যায়, চন্দ্র (ইত্যাদি গ্রহ-নক্ষত্র) আকাশের গায়ে প্রোথিত নয়। যেমনটি গ্রীক দার্শনিকদের অভিমত। তবে আধুনিক গবেষণা কোরআনে কারিমের বাণীকে চাক্ষুস প্রমাণে উন্নীত করেছে। -মাআরেফুল কোরআন

প্রায় পনের শত বছর পূর্বে পবিত্র কোরআন অবতীর্ণ হওয়া সত্ত্বেও এক্ষেত্রে কোরআনে কারিমের সঙ্গে আধুনিক গবেষণার অপূর্ব মিল রয়েছে। এ জাতীয় অসংখ্য আধুনিক গবেষণার ফলাফল কোরআন মজিদের সঙ্গে মিলে যায়। বিজ্ঞানের এ জাতীয় গবেষণা মেনে নিতে ইসলামি শরিয়তেরও কোনো বাঁধা নেই।