রাজশাহী , বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

স্বপ্ন

  • আপডেটের সময় : ০৬:২২:২৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯
  • ৬০ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

সবনাজ_মোস্তারী_স্মৃতি: তখন থেকে আকাশের দিকে তাকিয়ে বসে আছো কেনো বলত?অনিতা কোনো কথা না বলে মুচকি হাসলো।তপু আবারও জিজ্ঞেস করলো কি বলো তখন থেকে আকাশের দিকে তাকিয়ে কি এত ভাবছো? অনিতা বলল আচ্ছা তপু কখনো স্বপ্ন দেখেছো?তপু অবাক চোখে অনিতার দিকে তাকিয়ে বলল দেখবো না কেনো দেখেছি তো।

অনিতা বলল জেগে জেগে কখনো স্বপ্ন দেখেছো?যে স্বপ্নটা তুমি পুরন করার জন্য রাত দিন এক করে দিয়েছো?
তপু হতবম্ব হয়ে বলল তুমি এমন প্রশ্ন কেনো জিজ্ঞেস করছো অনিতা?অনিতা আবারও মুচকি হেসে বলল জানতে ইচ্ছে করছে তাই!
জানো তপু এই যে আজ আমাকে দেখছো এত দামি গাড়িতে ঘুরছি,বিশাল বড় বাড়িতে থাকছি,প্রতিদিন নামিদামি রেস্টুরেন্টে খেতে যাচ্ছি এই সব কিছু একসময় আমার কাছে স্বপ্ননের মত ছিলো।একটা সময় ছিলো যখন আমাকে চিন্তা করতে হত কাল সকালে কি খাবো। সেমিস্টার ফি কি করে দিবো!

Trulli

জানো তপু এখন আমার যদি একটু জ্বর হয় আমার বাসায় ডাক্তার আসে।কিন্তু যে সময়টা পার করে এসেছি সে সময় একটা ঔষুধ কেনার জন্য ভাবতে হত কোথা থেকে টাকা পাবো।আজকের মত যদি তখন আমার কাছে টাকা থাকতো, এত নাম,এত জশ থাকত তবে হয়ত আমার বাবাকে বিনা চিকিৎসায় মারা যেতে হত না।বাবা সামান্য কোর্টের কেরানী ছিলেন। টানা পরনের সংসার ছিলো। মা আমার জন্মের সময় মারা যান।বাবা আমাকে বড় করেছে।কখনো মায়ের অভাব বুঝতে দেয়নি।

কিন্তু বাবার চাকরিটা চলে যাবার পর অনেক অভাব শুরু হয় সংসারে। সাথে সাথে বাবার বয়সও বাড়তে থাকে।
সংসারের হাল আমি ধরেছিলাম। তিনটা টিউশনি করাতাম। টিউশনি করিয়ে মোট চার হাজার টাকা পেতাম। সে দিয়েই আমার পড়ালেখা,সংসার, বাবার ঔষুধ কিনতাম। কলেজ করার পর টিউশনি করিয়ে যখন রাতে বাসায় ফিরতাম তখন পাড়ার লোক জন আমার দিকে আঙ্গুল তুলে বাজে কথা বলত।অনেকে অনেক খারাপ প্রস্তাব দিত।

সব কিছু সহ্য করে ঘরে একা একা কাঁদতাম। বাবা অসুস্থ থাকার জন্য তাকেও কিছু বলতে পারতাম না।
এর মধ্যেও, এত কষ্টের মাঝেও আমি স্বপ্ন দেখতাম। স্বপ্ন দেখতাম আমি বিসিএস ক্যাডার হয়েছি।আমাকে যারা বাজে কথা বলেছে, বাজে মন্তব্য করেছে আমাকে নিয়ে, তখন তারা আমার পরিচয় দিবে।কিন্তু জানো যেদিন জানতে পারি বাবার ব্লাড ক্যানসার ,কিন্তু টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারিনি সেদিন আমার সব কিছু যেনো থমকে গেছিলো।

তার কিছুদিন পর বাবা মারা যায়।আমি একেবারে একা হয়ে যায়।কোথায় যাবো, কি করবো কিছুই বুঝতে পারছিলাম না। আসে পাসের মানুষ জন আমার দিকে তাকিয়ে থাকত শকুনের মত। সুযোগ পেলেয় আমাকে ওরা ছো মেরে নিয়ে যাবে এমন অবস্থা।তবুও আমি থেমে থাকিনি। আমি স্বপ্ন দেখেছি। দিন রাত এক করে নিজের জীবনের সাথে সংগ্রাম করেছি।তারপর এলো সে সময় অনার্স শেষ করে বিসিএস পরিক্ষার জন্য প্রিপারেশন নিলাম।পরিক্ষা দিলাম, রেজাল্ট হলো। আমি বিসিএস পরিক্ষায় পরিক্ষায় টিকে গেলাম।আজ আমি একজন ম্যাজিস্ট্রেট।

কিন্তু দেখো একটা সময় ছিলো যখন দুপুরে খাবার সময় ভাবতে হত রাতে কি খাবো।আজ সে ফেলে আসা দিনগুলোর কথা খুব মনে পড়ছে। বাবার কথা মনে পড়ছে।আমি রাতে ঘুমানো স্বপ্নে বিশ্বাসী নয়।জেগে স্বপ্ন দেখায় বিশ্বাসী।তাই তোমাকে স্বপ্ন দেখার কথা জিজ্ঞেস করলাম। আজ যদি বাবা বেঁচে থাকত তবে অনেক খুশি হতহাসতে হাসতে অনিতা তপুকে এ সব কথা বলল।একটা সুন্দর স্বপ্ন পারে একটা মানুষের জীবন বদলে দিতে। যে স্বপ্ন দেখতে জানে না সে জীবনে কিছু করতে পারে না।

Adds Banner_2024

স্বপ্ন

আপডেটের সময় : ০৬:২২:২৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯

সবনাজ_মোস্তারী_স্মৃতি: তখন থেকে আকাশের দিকে তাকিয়ে বসে আছো কেনো বলত?অনিতা কোনো কথা না বলে মুচকি হাসলো।তপু আবারও জিজ্ঞেস করলো কি বলো তখন থেকে আকাশের দিকে তাকিয়ে কি এত ভাবছো? অনিতা বলল আচ্ছা তপু কখনো স্বপ্ন দেখেছো?তপু অবাক চোখে অনিতার দিকে তাকিয়ে বলল দেখবো না কেনো দেখেছি তো।

অনিতা বলল জেগে জেগে কখনো স্বপ্ন দেখেছো?যে স্বপ্নটা তুমি পুরন করার জন্য রাত দিন এক করে দিয়েছো?
তপু হতবম্ব হয়ে বলল তুমি এমন প্রশ্ন কেনো জিজ্ঞেস করছো অনিতা?অনিতা আবারও মুচকি হেসে বলল জানতে ইচ্ছে করছে তাই!
জানো তপু এই যে আজ আমাকে দেখছো এত দামি গাড়িতে ঘুরছি,বিশাল বড় বাড়িতে থাকছি,প্রতিদিন নামিদামি রেস্টুরেন্টে খেতে যাচ্ছি এই সব কিছু একসময় আমার কাছে স্বপ্ননের মত ছিলো।একটা সময় ছিলো যখন আমাকে চিন্তা করতে হত কাল সকালে কি খাবো। সেমিস্টার ফি কি করে দিবো!

Trulli

জানো তপু এখন আমার যদি একটু জ্বর হয় আমার বাসায় ডাক্তার আসে।কিন্তু যে সময়টা পার করে এসেছি সে সময় একটা ঔষুধ কেনার জন্য ভাবতে হত কোথা থেকে টাকা পাবো।আজকের মত যদি তখন আমার কাছে টাকা থাকতো, এত নাম,এত জশ থাকত তবে হয়ত আমার বাবাকে বিনা চিকিৎসায় মারা যেতে হত না।বাবা সামান্য কোর্টের কেরানী ছিলেন। টানা পরনের সংসার ছিলো। মা আমার জন্মের সময় মারা যান।বাবা আমাকে বড় করেছে।কখনো মায়ের অভাব বুঝতে দেয়নি।

কিন্তু বাবার চাকরিটা চলে যাবার পর অনেক অভাব শুরু হয় সংসারে। সাথে সাথে বাবার বয়সও বাড়তে থাকে।
সংসারের হাল আমি ধরেছিলাম। তিনটা টিউশনি করাতাম। টিউশনি করিয়ে মোট চার হাজার টাকা পেতাম। সে দিয়েই আমার পড়ালেখা,সংসার, বাবার ঔষুধ কিনতাম। কলেজ করার পর টিউশনি করিয়ে যখন রাতে বাসায় ফিরতাম তখন পাড়ার লোক জন আমার দিকে আঙ্গুল তুলে বাজে কথা বলত।অনেকে অনেক খারাপ প্রস্তাব দিত।

সব কিছু সহ্য করে ঘরে একা একা কাঁদতাম। বাবা অসুস্থ থাকার জন্য তাকেও কিছু বলতে পারতাম না।
এর মধ্যেও, এত কষ্টের মাঝেও আমি স্বপ্ন দেখতাম। স্বপ্ন দেখতাম আমি বিসিএস ক্যাডার হয়েছি।আমাকে যারা বাজে কথা বলেছে, বাজে মন্তব্য করেছে আমাকে নিয়ে, তখন তারা আমার পরিচয় দিবে।কিন্তু জানো যেদিন জানতে পারি বাবার ব্লাড ক্যানসার ,কিন্তু টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারিনি সেদিন আমার সব কিছু যেনো থমকে গেছিলো।

তার কিছুদিন পর বাবা মারা যায়।আমি একেবারে একা হয়ে যায়।কোথায় যাবো, কি করবো কিছুই বুঝতে পারছিলাম না। আসে পাসের মানুষ জন আমার দিকে তাকিয়ে থাকত শকুনের মত। সুযোগ পেলেয় আমাকে ওরা ছো মেরে নিয়ে যাবে এমন অবস্থা।তবুও আমি থেমে থাকিনি। আমি স্বপ্ন দেখেছি। দিন রাত এক করে নিজের জীবনের সাথে সংগ্রাম করেছি।তারপর এলো সে সময় অনার্স শেষ করে বিসিএস পরিক্ষার জন্য প্রিপারেশন নিলাম।পরিক্ষা দিলাম, রেজাল্ট হলো। আমি বিসিএস পরিক্ষায় পরিক্ষায় টিকে গেলাম।আজ আমি একজন ম্যাজিস্ট্রেট।

কিন্তু দেখো একটা সময় ছিলো যখন দুপুরে খাবার সময় ভাবতে হত রাতে কি খাবো।আজ সে ফেলে আসা দিনগুলোর কথা খুব মনে পড়ছে। বাবার কথা মনে পড়ছে।আমি রাতে ঘুমানো স্বপ্নে বিশ্বাসী নয়।জেগে স্বপ্ন দেখায় বিশ্বাসী।তাই তোমাকে স্বপ্ন দেখার কথা জিজ্ঞেস করলাম। আজ যদি বাবা বেঁচে থাকত তবে অনেক খুশি হতহাসতে হাসতে অনিতা তপুকে এ সব কথা বলল।একটা সুন্দর স্বপ্ন পারে একটা মানুষের জীবন বদলে দিতে। যে স্বপ্ন দেখতে জানে না সে জীবনে কিছু করতে পারে না।