রাজশাহী , শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

আত্মার পবিত্রতার জন্য করণীয়

  • আপডেটের সময় : ০৬:১৩:১৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯
  • ১৪৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ধর্ম ডেস্ক: মানুষের আত্মা পবিত্র করার জন্য বেশি বেশি নামাজ পড়া দরকার। যদিও আত্মা পবিত্র করার আরও অনেক আমল ও মাধ্যম রয়েছে। তবে আত্মা পবিত্র করার ক্ষেত্রে নামাজের গুরুত্ব অনেক বেশি। কেননা, মহান আল্লাহতায়ালা পবিত্র কোরআনে কারিমে ইরশাদ করেছেন, ‘নিশ্চয় নামাজ সব অশ্লীল ও পাপ কর্ম থেকে বিরত রাখে।’ -সূরা আনকাবুত: ৪৫

এই আয়াতের অালোকে বলা চলে, মানুষের আত্মাকে পবিত্র করতে হলে নামাজের আমল সর্বাগ্রে দরকার। মানুষ মিথ্যা কথা বললে, মন্দ কাজ করলে, মনে হিংসা, বিদ্বেষ, ক্রোধ, অহঙ্কার ইত্যাদি থাকলে, আত্মা কখনও পবিত্র হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাই আত্মাকে পবিত্র করতে হলে সবাইকে নিয়মিত নামাজ পড়তে হবে।

Trulli

কোনো ব্যক্তি যদি মনে করে যে, আমি আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য নামাজ পড়ি। তাহলে, তার ভালো-মন্দ সব কাজ করার সম্ভাবনা থাকতেও পারে, আবার নাও থাকতে পারে। যেমন, যে ব্যক্তি বলবে আমি আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য নামাজ পড়ি। তার নামাজ পড়ার সময় হলে, সে ব্যক্তি আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য নামাজ পড়ল। সে ব্যক্তি নামাজ পড়ার পর, তার যদি মিথ্যা কথা বলা বা মন্দ কাজ করার মাধ্যমে লাভবান হওয়ার সময় হয়, সে তখন মিথ্যা কথা বলে কিংবা মন্দ কাজ করেও তার লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে, আবার নাও থাকতে পারে, কিন্তু সুযোগ একটি থেকে যায়। যেমন, সে তখন মিথ্যা কথা বা মন্দ কাজ করে লাভবান হয়ে, সে মনে মনে বলবে যে, আবার আমি আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য নামাজ পড়লে, আল্লাহ আমার ওপর সন্তুষ্ট হয়ে, আমার সব পাপ ক্ষমা করে দিবেন।

এভাবে মানুষের ভালো-মন্দ উভয় কাজ করার সুযোগ থাকে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা পবিত্র কোরআনে কারিমে ইরশাদ করেছেন, ‘আর আমার দাসত্বের জন্যই আমি মানুষ এবং জ্বিনকে সৃষ্টি করেছি।’ -সূরা জারিয়াত: ৫৬

বস্তুত আল্লাহতায়ালা কারও মুখাপেক্ষী নয়, আল্লাহর সৃষ্টির সব বস্তুই আল্লাহর মুখাপেক্ষী। আল্লাহতায়ালা মানুষ সৃষ্টি করেছেন, শুধুমাত্র আল্লাহর দাসত্ব ও হুকুম পালন করার জন্য। সব মানুষ আল্লাহর দাস। মানুষ শুধুমাত্র আল্লাহর হুকুম পালন করবে, আল্লাহর ইবাদত করবে।

লেখার শুরুতে বলা হয়েছে, মানুষের আত্মাকে পবিত্র করার জন্য সবাইকে নামাজ পড়তে হবে। নামাজের মাধ্যমে কীভাবে আত্মা পবিত্র থাকবে এর একটি উদাহরণ এমন হতে পারে- কোনো ব্যক্তি আসরের নামাজ পড়ার জন্য অজু করল, সে ব্যক্তি অজু করে আসরের নামাজ পড়ে মনে মনে ভাবল, আমার তো এখনও অজু আছে, আমি এই অজু দিয়ে মাগরিবের নামাজও পড়ব। তাহলে, সাধারণ অভ্যাসবশত ওই ব্যক্তি আসর থেকে মাগরিব পর্যন্ত কোনো মিথ্যা কথা বলা বা মন্দ কাজ করবে না। আবার যদি ব্যক্তিটি মাগরিবের নামাজ পড়ে, আর মনে মনে স্থির করে নেয়- যেহেতু অজু আছে, তাই ইশার নামাজও পড়ব। সেই ব্যক্তি ইশার নামাজ পড়ার পূর্ব পর্যন্ত, মিথ্যা কথা বলা থেকে বিরত থাকবে এবং মন্দ কাজ করা থেকে বিরত থাকবে। সুতরাং এভাবে সে নামাজ পড়তে পড়তে এবং মিথ্যা কথা বলা ও মন্দ কাজ-কর্ম করা থেকে বিরত থাকতে থাকতে, তার আত্মা পবিত্র হয়ে যাবে।

আর যাদের আত্মা একবার পবিত্র হয়ে যায়, তাদের দ্বারা সৎকর্ম করা ব্যতীত মিথ্যা কথা বলা বা মন্দ কাজ-কর্ম করা কখনও সম্ভব নয়। তারা সবসময় আল্লাহর ইবাদত-বন্দেগিতে মশগুল থাকে।

Adds Banner_2024

আত্মার পবিত্রতার জন্য করণীয়

আপডেটের সময় : ০৬:১৩:১৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯

ধর্ম ডেস্ক: মানুষের আত্মা পবিত্র করার জন্য বেশি বেশি নামাজ পড়া দরকার। যদিও আত্মা পবিত্র করার আরও অনেক আমল ও মাধ্যম রয়েছে। তবে আত্মা পবিত্র করার ক্ষেত্রে নামাজের গুরুত্ব অনেক বেশি। কেননা, মহান আল্লাহতায়ালা পবিত্র কোরআনে কারিমে ইরশাদ করেছেন, ‘নিশ্চয় নামাজ সব অশ্লীল ও পাপ কর্ম থেকে বিরত রাখে।’ -সূরা আনকাবুত: ৪৫

এই আয়াতের অালোকে বলা চলে, মানুষের আত্মাকে পবিত্র করতে হলে নামাজের আমল সর্বাগ্রে দরকার। মানুষ মিথ্যা কথা বললে, মন্দ কাজ করলে, মনে হিংসা, বিদ্বেষ, ক্রোধ, অহঙ্কার ইত্যাদি থাকলে, আত্মা কখনও পবিত্র হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাই আত্মাকে পবিত্র করতে হলে সবাইকে নিয়মিত নামাজ পড়তে হবে।

Trulli

কোনো ব্যক্তি যদি মনে করে যে, আমি আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য নামাজ পড়ি। তাহলে, তার ভালো-মন্দ সব কাজ করার সম্ভাবনা থাকতেও পারে, আবার নাও থাকতে পারে। যেমন, যে ব্যক্তি বলবে আমি আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য নামাজ পড়ি। তার নামাজ পড়ার সময় হলে, সে ব্যক্তি আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য নামাজ পড়ল। সে ব্যক্তি নামাজ পড়ার পর, তার যদি মিথ্যা কথা বলা বা মন্দ কাজ করার মাধ্যমে লাভবান হওয়ার সময় হয়, সে তখন মিথ্যা কথা বলে কিংবা মন্দ কাজ করেও তার লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে, আবার নাও থাকতে পারে, কিন্তু সুযোগ একটি থেকে যায়। যেমন, সে তখন মিথ্যা কথা বা মন্দ কাজ করে লাভবান হয়ে, সে মনে মনে বলবে যে, আবার আমি আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য নামাজ পড়লে, আল্লাহ আমার ওপর সন্তুষ্ট হয়ে, আমার সব পাপ ক্ষমা করে দিবেন।

এভাবে মানুষের ভালো-মন্দ উভয় কাজ করার সুযোগ থাকে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা পবিত্র কোরআনে কারিমে ইরশাদ করেছেন, ‘আর আমার দাসত্বের জন্যই আমি মানুষ এবং জ্বিনকে সৃষ্টি করেছি।’ -সূরা জারিয়াত: ৫৬

বস্তুত আল্লাহতায়ালা কারও মুখাপেক্ষী নয়, আল্লাহর সৃষ্টির সব বস্তুই আল্লাহর মুখাপেক্ষী। আল্লাহতায়ালা মানুষ সৃষ্টি করেছেন, শুধুমাত্র আল্লাহর দাসত্ব ও হুকুম পালন করার জন্য। সব মানুষ আল্লাহর দাস। মানুষ শুধুমাত্র আল্লাহর হুকুম পালন করবে, আল্লাহর ইবাদত করবে।

লেখার শুরুতে বলা হয়েছে, মানুষের আত্মাকে পবিত্র করার জন্য সবাইকে নামাজ পড়তে হবে। নামাজের মাধ্যমে কীভাবে আত্মা পবিত্র থাকবে এর একটি উদাহরণ এমন হতে পারে- কোনো ব্যক্তি আসরের নামাজ পড়ার জন্য অজু করল, সে ব্যক্তি অজু করে আসরের নামাজ পড়ে মনে মনে ভাবল, আমার তো এখনও অজু আছে, আমি এই অজু দিয়ে মাগরিবের নামাজও পড়ব। তাহলে, সাধারণ অভ্যাসবশত ওই ব্যক্তি আসর থেকে মাগরিব পর্যন্ত কোনো মিথ্যা কথা বলা বা মন্দ কাজ করবে না। আবার যদি ব্যক্তিটি মাগরিবের নামাজ পড়ে, আর মনে মনে স্থির করে নেয়- যেহেতু অজু আছে, তাই ইশার নামাজও পড়ব। সেই ব্যক্তি ইশার নামাজ পড়ার পূর্ব পর্যন্ত, মিথ্যা কথা বলা থেকে বিরত থাকবে এবং মন্দ কাজ করা থেকে বিরত থাকবে। সুতরাং এভাবে সে নামাজ পড়তে পড়তে এবং মিথ্যা কথা বলা ও মন্দ কাজ-কর্ম করা থেকে বিরত থাকতে থাকতে, তার আত্মা পবিত্র হয়ে যাবে।

আর যাদের আত্মা একবার পবিত্র হয়ে যায়, তাদের দ্বারা সৎকর্ম করা ব্যতীত মিথ্যা কথা বলা বা মন্দ কাজ-কর্ম করা কখনও সম্ভব নয়। তারা সবসময় আল্লাহর ইবাদত-বন্দেগিতে মশগুল থাকে।