রাজশাহী , রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না? আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর অধিকার আমার নেই ফের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম, দৃশ্যমান পদক্ষেপ চান কোটা আন্দোলনকারীরা আবাসন এবং হসপিটালিটি খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী চীন : প্রধানমন্ত্রী ব্যারিকেড ভেঙে ফেলেছেন শিক্ষার্থীরা, যাচ্ছেন বঙ্গভবনের দিকে ট্রাম্পের ওপর হামলা নির্বাচনী প্রচারণায় কতটা প্রভাব ফেলবে? পূর্বঘোষিত গণপদযাত্রায় অংশ নিতে জড়ো হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা ৭ অঞ্চলে সন্ধ্যার মধ্যে ঝড়ের আভাস কানে গুলিবিদ্ধ ট্রাম্প, বলছেন– যুক্তরাষ্ট্রে এমন হামলা অবিশ্বাস্য মামলা তুলে নিতে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম কোটা আন্দোলনকারীদের কোটা আন্দোলন : গণপদযাত্রা ও রাষ্ট্রপতিকে স্মারকলিপি দেবেন শিক্ষার্থীরা ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার : প্রধানমন্ত্রী পেনশন স্কিম নিয়ে ভুল বোঝাবুঝি দূর হয়েছে : ওবায়দুল কাদের ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা সরকার চাইলে কোটা পরিবর্তন করতে পারবে, হাইকোর্টের রায় প্রকাশ ব্যারিকেড ভেঙে ‘ভুয়া ভুয়া’ স্লোগান, উত্তাল শাহবাগ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ আন্দোলনকে বেগবান করতে জনসংযোগ, সমন্বয় করে কর্মসূচির ঘোষণা আজ চলমান কোটা আন্দোলন নিয়ে ছাত্রলীগের সংবাদ সম্মেলন কোটা আন্দোলনকারীদের জন্য আদালতের দরজা সবসময় খোলা

কেবল নিজেকে ভালবাসেন আপনার সঙ্গী! কী ভাবে বুঝবেন?

  • আপডেটের সময় : ০৫:০৬:১৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯
  • ৭১ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ যে সময়ে আপনাদের দু’জনের, সে সময় আপনার প্রেমিক সেলফিমগ্ন। অথবা ফেসবুকে নিজের লাইক গুণছেন প্রেমিকা। সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে ঘরে ঘরে এই আত্মপ্রেম। তবে অসুখটি নতুন নয়। সাহিত্যে আত্মপ্রেমে মগ্ন মানুষের কথা উঠে এসেছে এক শতকেরও বেশি সময় ধরে। শেক্সপিয়ারের ‘কিং লিয়র’ হোক বা সৈয়দ আলাওলের ‘পদ্মাবতী’। নার্সিসিজম ছিল এবং প্রবল পরাক্রমে আজও রয়েছে। মনোবিদরা এই রোগে আক্রান্ত হওয়াকে বলছেন ‘নার্সিস্টিক পার্সোনালিটি ডিসঅর্ডার’।

মনোবিদরা বলছেন, বেশির ভাগ নার্সিসিস্টই নিজের প্রকৃত অভিব্যাক্তিগুলিকে লুকিয়ে রেখে একটি অবাস্তব মুখোশ পরে সমাজের সামনে ভান করে। নিজেকে ভালবাসার এই সত্তা মাঝে মাঝে সমাজের সামনে ধরা পড়ে যায়। কী ভাবে বুঝবেন আপনার পার্টনার এই রোগের শিকার কি না?

Trulli

চিকিৎসকদের মতে কাজটা খুবই কঠিন। ২০১৪ সালের তুরস্কের হাজেত্তেপে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখানো হয়েছে, নার্সিসিজমের স্তরভেদ রয়েছে। খুব বেশি মাত্রায় নার্সিসিজমে ভোগা মানুষের কথা আলাদা। বেশির ভাগ নার্সিসিস্টই ‘ম্যানেজেরিয়াল নার্সিসিজম’ নামের একটি স্তরে অবস্থান করেন। এঁদের আত্মপ্রেম প্রকট নয়, প্রচ্ছন্ন। কিন্তু অনেক বেশি ভয়াল। এঁদের এখান থেকে বিরত করতে যাওয়া বিপজ্জনক। যিনি এই কাজটি করতে যাবেন, তিনিই এঁদের কাছে শত্রু হিসেবে চিহ্নিত হয়ে পড়বেন।

নিজের ছবি বা আয়নায় নানা ভাবে নিজেদের দেখতে দেখতে মুগ্ধতার প্রকাশ নার্সিসিস্টদের অন্যতম স্বভাব।

এ ক্ষেত্রে ব্যক্তি অতিরিক্ত গুরুত্ত্ব দেন নিজেকে। পারিপার্শ্বিক মানুষ বা সম্পর্কে থাকা মানুষটির ইচ্ছে বা মতামতের গুরুত্ব তাঁর কাছে কম। সব কিছুতেই কথা প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করেন যে কোনও মতে। সব সময়ে পার্টনারের ওপর অধিকার ফলানোর চেষ্টা করেন এরা।
নিজেকে অধিকতর ভাল বা শ্রদ্ধার যোগ্য বলে মনে করেন। নিজের ব্যাপারে কথা বলতেই ভালবাসেন, পার্টনারের খামতিগুলো সকলের সামনে তুলে ধরে বেশির ভাগ সময়ে হাসাহাসি করেন।
এঁরা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে বিশ্বাস করেন, অপর মানুষটি সবসময় তাঁকে অগ্রাধিকার দেবেন এবং কোনও রকম প্রশ্ন ছাড়াই সব কথা মেনে নেবেন। এঁরা মোটেও নিজের সমালোচনা ভাল চোখে নেন না এবং খুব রেগে যান বেশির ভাগ ক্ষেত্রে।

এক জন নার্সিসিস্ট মনে করেন, তাঁর ক্ষেত্রে কোনও নিয়ম প্রযোজ্য নয়। আপনার পার্টনার যদি সকলের সামনে সবসময়ই আপনাকে নিয়ে হাসিঠাট্টা করেন বা সকলের সামনে।
এঁরা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ঘটনার গুরুত্ব বুঝতে পারেন না। তাই ছোট কোন‌ও বিষয়েও খুব রেগে যান।

এরা খুব অহংকারী এবং উদ্ধত স্বভাবের হন এবং অন্যের প্রতি সহানুভুতিশীল হন না।

Adds Banner_2024
জনপ্রিয় পোস্ট
Adds Banner_2024

বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ নেতার মায়ের মৃত্যুতে শোক

Adds Banner_2024

কেবল নিজেকে ভালবাসেন আপনার সঙ্গী! কী ভাবে বুঝবেন?

আপডেটের সময় : ০৫:০৬:১৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ যে সময়ে আপনাদের দু’জনের, সে সময় আপনার প্রেমিক সেলফিমগ্ন। অথবা ফেসবুকে নিজের লাইক গুণছেন প্রেমিকা। সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে ঘরে ঘরে এই আত্মপ্রেম। তবে অসুখটি নতুন নয়। সাহিত্যে আত্মপ্রেমে মগ্ন মানুষের কথা উঠে এসেছে এক শতকেরও বেশি সময় ধরে। শেক্সপিয়ারের ‘কিং লিয়র’ হোক বা সৈয়দ আলাওলের ‘পদ্মাবতী’। নার্সিসিজম ছিল এবং প্রবল পরাক্রমে আজও রয়েছে। মনোবিদরা এই রোগে আক্রান্ত হওয়াকে বলছেন ‘নার্সিস্টিক পার্সোনালিটি ডিসঅর্ডার’।

মনোবিদরা বলছেন, বেশির ভাগ নার্সিসিস্টই নিজের প্রকৃত অভিব্যাক্তিগুলিকে লুকিয়ে রেখে একটি অবাস্তব মুখোশ পরে সমাজের সামনে ভান করে। নিজেকে ভালবাসার এই সত্তা মাঝে মাঝে সমাজের সামনে ধরা পড়ে যায়। কী ভাবে বুঝবেন আপনার পার্টনার এই রোগের শিকার কি না?

Trulli

চিকিৎসকদের মতে কাজটা খুবই কঠিন। ২০১৪ সালের তুরস্কের হাজেত্তেপে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখানো হয়েছে, নার্সিসিজমের স্তরভেদ রয়েছে। খুব বেশি মাত্রায় নার্সিসিজমে ভোগা মানুষের কথা আলাদা। বেশির ভাগ নার্সিসিস্টই ‘ম্যানেজেরিয়াল নার্সিসিজম’ নামের একটি স্তরে অবস্থান করেন। এঁদের আত্মপ্রেম প্রকট নয়, প্রচ্ছন্ন। কিন্তু অনেক বেশি ভয়াল। এঁদের এখান থেকে বিরত করতে যাওয়া বিপজ্জনক। যিনি এই কাজটি করতে যাবেন, তিনিই এঁদের কাছে শত্রু হিসেবে চিহ্নিত হয়ে পড়বেন।

নিজের ছবি বা আয়নায় নানা ভাবে নিজেদের দেখতে দেখতে মুগ্ধতার প্রকাশ নার্সিসিস্টদের অন্যতম স্বভাব।

এ ক্ষেত্রে ব্যক্তি অতিরিক্ত গুরুত্ত্ব দেন নিজেকে। পারিপার্শ্বিক মানুষ বা সম্পর্কে থাকা মানুষটির ইচ্ছে বা মতামতের গুরুত্ব তাঁর কাছে কম। সব কিছুতেই কথা প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করেন যে কোনও মতে। সব সময়ে পার্টনারের ওপর অধিকার ফলানোর চেষ্টা করেন এরা।
নিজেকে অধিকতর ভাল বা শ্রদ্ধার যোগ্য বলে মনে করেন। নিজের ব্যাপারে কথা বলতেই ভালবাসেন, পার্টনারের খামতিগুলো সকলের সামনে তুলে ধরে বেশির ভাগ সময়ে হাসাহাসি করেন।
এঁরা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে বিশ্বাস করেন, অপর মানুষটি সবসময় তাঁকে অগ্রাধিকার দেবেন এবং কোনও রকম প্রশ্ন ছাড়াই সব কথা মেনে নেবেন। এঁরা মোটেও নিজের সমালোচনা ভাল চোখে নেন না এবং খুব রেগে যান বেশির ভাগ ক্ষেত্রে।

এক জন নার্সিসিস্ট মনে করেন, তাঁর ক্ষেত্রে কোনও নিয়ম প্রযোজ্য নয়। আপনার পার্টনার যদি সকলের সামনে সবসময়ই আপনাকে নিয়ে হাসিঠাট্টা করেন বা সকলের সামনে।
এঁরা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ঘটনার গুরুত্ব বুঝতে পারেন না। তাই ছোট কোন‌ও বিষয়েও খুব রেগে যান।

এরা খুব অহংকারী এবং উদ্ধত স্বভাবের হন এবং অন্যের প্রতি সহানুভুতিশীল হন না।