রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন

মাধুরীর সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে নার্ভাস হয়ে যেতেন সঞ্জয়!

  • আপডেটের সময় : ০৪:৩৭:৩৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯
  • ৫৯ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

বিনোদন ডেস্কঃ নব্বইয়ের দশকে সঞ্জয় দত্ত এবং মাধুরী দীক্ষিতের প্রেমের গসিপে সরগরম ছিল ইন্ডাস্ট্রি। অনস্ক্রিনে তখন একের পর এক কাজ করছেন তাঁরা। অফস্ক্রিনেও তাঁদের সম্পর্ক নিয়ে বহু জল্পনা ছিল। তাঁরা ২২ বছর পর ফের ফিরছেন অনস্ক্রিনে। সৌজন্যে ‘কলঙ্ক’। সে ছবির সেটেই নাকি মাধুরীর সঙ্গে নিজের যমজ সন্তানদের আলাপ করিয়ে দিয়েছেন সঞ্জয়।

সম্প্রতি এক সাক্ষাত্কারে সঞ্জয় বলেন, “মাধুরীর সঙ্গে কাজ করাটা দারুণ অভিজ্ঞতা। আমি একটু নার্ভাসই থাকতাম। মাধুরীই বরং কাজটা অনেক সহজ করে দিয়েছিল। আমরা শুটিং ব্রেকে নিজেদের সন্তানদের নিয়েও কথা বলতাম। আমি তো শাহরান আর ইকরার সঙ্গে মাধুরীর আলাপ করাতে ওদের সেটেও নিয়ে গিয়েছিলাম।’’

Trulli

‘কলঙ্ক’ ছবির ভাবনা মূলত ছিল কর্ণ জোহরের বাবা প্রয়াত যশ জোহরের। সঞ্জয় জানিয়েছেন, ১৯৯৩-এ ‘গুমরাহ’ ছবির শুটিংয়ের সময়ই এই গল্পের কথা তাঁকে বলেছিলেন যশ। সঞ্জয়ের কথায়, ‘‘গুমরাহের সময় যশ আঙ্কেল আমাকে গল্পটা বলেছিলেন। ধর্মা প্রোডাকশন তো পরিবারের মতো। ফলে কর্ণ যখন বলল আমাকে, না বলার কোনও প্রশ্নই ছিল না। আরও একটা ব্যাপার। এ ছবিতে আমার চরিত্রের নাম বলরাজ। আমার বাবা সুনীল দত্তের আসল নাম ছিল এটাই। পার্টিশানের সময় বাবাও পাকিস্তান থেকে এসেছিলেন। ফলে মানসিক ভাবে এ ছবির সঙ্গে প্রথম থেকেই যুক্ত ছিলাম।’’

‘কলঙ্ক’ মুক্তি পাবে আগামী ১৭ এপ্রিল। সঞ্জয়, মাধুরী ছাড়াও আলিয়া ভট্ট, বরুণ ধবন, সোনাক্ষী সিংহ, আদিত্য রায় কপূরের মতো শিল্পীর অভিনয়ে সমৃদ্ধ এই ছবি।
আনন্দবাজার

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী

Adds Banner_2024

মাধুরীর সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে নার্ভাস হয়ে যেতেন সঞ্জয়!

আপডেটের সময় : ০৪:৩৭:৩৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯

বিনোদন ডেস্কঃ নব্বইয়ের দশকে সঞ্জয় দত্ত এবং মাধুরী দীক্ষিতের প্রেমের গসিপে সরগরম ছিল ইন্ডাস্ট্রি। অনস্ক্রিনে তখন একের পর এক কাজ করছেন তাঁরা। অফস্ক্রিনেও তাঁদের সম্পর্ক নিয়ে বহু জল্পনা ছিল। তাঁরা ২২ বছর পর ফের ফিরছেন অনস্ক্রিনে। সৌজন্যে ‘কলঙ্ক’। সে ছবির সেটেই নাকি মাধুরীর সঙ্গে নিজের যমজ সন্তানদের আলাপ করিয়ে দিয়েছেন সঞ্জয়।

সম্প্রতি এক সাক্ষাত্কারে সঞ্জয় বলেন, “মাধুরীর সঙ্গে কাজ করাটা দারুণ অভিজ্ঞতা। আমি একটু নার্ভাসই থাকতাম। মাধুরীই বরং কাজটা অনেক সহজ করে দিয়েছিল। আমরা শুটিং ব্রেকে নিজেদের সন্তানদের নিয়েও কথা বলতাম। আমি তো শাহরান আর ইকরার সঙ্গে মাধুরীর আলাপ করাতে ওদের সেটেও নিয়ে গিয়েছিলাম।’’

Trulli

‘কলঙ্ক’ ছবির ভাবনা মূলত ছিল কর্ণ জোহরের বাবা প্রয়াত যশ জোহরের। সঞ্জয় জানিয়েছেন, ১৯৯৩-এ ‘গুমরাহ’ ছবির শুটিংয়ের সময়ই এই গল্পের কথা তাঁকে বলেছিলেন যশ। সঞ্জয়ের কথায়, ‘‘গুমরাহের সময় যশ আঙ্কেল আমাকে গল্পটা বলেছিলেন। ধর্মা প্রোডাকশন তো পরিবারের মতো। ফলে কর্ণ যখন বলল আমাকে, না বলার কোনও প্রশ্নই ছিল না। আরও একটা ব্যাপার। এ ছবিতে আমার চরিত্রের নাম বলরাজ। আমার বাবা সুনীল দত্তের আসল নাম ছিল এটাই। পার্টিশানের সময় বাবাও পাকিস্তান থেকে এসেছিলেন। ফলে মানসিক ভাবে এ ছবির সঙ্গে প্রথম থেকেই যুক্ত ছিলাম।’’

‘কলঙ্ক’ মুক্তি পাবে আগামী ১৭ এপ্রিল। সঞ্জয়, মাধুরী ছাড়াও আলিয়া ভট্ট, বরুণ ধবন, সোনাক্ষী সিংহ, আদিত্য রায় কপূরের মতো শিল্পীর অভিনয়ে সমৃদ্ধ এই ছবি।
আনন্দবাজার