রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ

মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রস্তুতি সম্পন্ন

  • আপডেটের সময় : ০৬:১৮:২৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৯
  • ১২৮ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: প্রকৃতিতে বৈশাখ আসে নানা রঙে নানা রূপে। নতুন সম্ভাবনা আর স্বপ্নের গল্প নিয়ে। অপেক্ষা মাত্র কয়েকঘণ্টা। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে বর্ষবরণে মাতবে পুরো দেশ। রমনার বটমূলে শেষ হয়েছে সব ধরণের প্রস্তুতি। মঙ্গল শোভাযাত্রার আনুষঙ্গিক উপকরণ তৈরির কাজও শেষ পর্যায়ে। হঠাৎ বৃষ্টি কিছুটা সমস্যা সৃষ্টি করলেও আয়োজকরা জানালেন, প্রাণের উৎসব উদযাপনে সব বাধা তুচ্ছ।

চৈত্রের শেষ সূর্যোদয়। সময়ের আবর্তে হারিয়ে যাবে মহাকালের গর্ভে। বছরের অপ্রাপ্তি আর অপূর্ণতা নিয়ে। বছরের নতুন সূর্য ফিরবে নতুন জীবনের গল্প নিয়ে। শুভ বোধ আর সত্য সুন্দরের প্রতিরূপে। বর্ষবরণের আনন্দ আয়োজনের অপেক্ষা পুরো বাঙলায়।

Trulli

বর্ষবরণের সকাল শুরু হয় রমনার বটমূলে ছায়ানটের গানে। মঞ্চসজ্জার কাজ প্রায় শেষ। গানে গানে বৈশাখ আবাহনের প্রস্ততিও সম্পন্ন। দীর্ঘকাল ধরে বর্ষবরণের প্রধান আকর্ষণ মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে চারুকলা অনুষদে।

রঙ-বেরঙের লোকজ ঐতিহ্যের প্রতিরূপ নিয়ে পুরোপুরি প্রস্তুত আয়োজকরা। নতুন বছর সবার জীবনে বয়ে আনবে শান্তির সুবাতাস, বলছেন তারা।

আয়োজকদের একজন জানান, বছরটা ভালো কাটুক, আগের সব দু:খ ভুলে যাবো।আবহমান বাঙলার লোকজ আয়োজন দেখতে চারুকলা অনুষদে ভিড় করেছেন অনেকেই। সার্বজনীন এ উৎসবে সামিল হতে উন্মুখ ভিনদেশিরাও।ভিনদেশিদের একজন জানান, সবাই একত্রে কাজ করছে, এটা দেখে ভালো লাগছে।দীর্ঘসময় পেরিয়ে আসা সার্বজনীন এ উৎসব হতে পারে সমাজের সব ব্যাধি দূর করার উপাদান।

শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদীনের ছেলে স্থপতি মাঈনুল আবেদীন বলেন, শুধু অর্থনৈতিক লাভবান না, আমাদের কারিকুলামে সাথে এটা গুরুত্বপূর্ণ সৃষ্টিগুলো সংযোজন করা।

চারুকলার ডীন অধ্যাপক নিসার আহমেদ বলেন, আমাদের অনেকগুলো পজেটিভ ঘটনা ঘটেছে। পরিস্থিতি অনেক বদলে গেছে, জঙ্গিবাদের এই জায়গাটায় আমরা নেই। আমাদের অনেক অর্জন আছে আমরা নিজেরা কতগুলো লক্ষ্য সেট করছি। আগে তো বলতাম ওই দেশকে অনুসরণ করবো, এইভাবে বলতাম, আর এখন কিন্তু আমাদের কেউ অন্য দেশ অনুসরণ করে।

আবহমান কাল ধরে নববর্ষ বরণ এখন বাঙালির প্রাণের উৎসব। অসহিষ্ণু সময়ে যা একাত্ম করতে পারে সবাইকে, শুভ প্রত্যয়ে।

Adds Banner_2024

মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রস্তুতি সম্পন্ন

আপডেটের সময় : ০৬:১৮:২৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৯

ঢাকা প্রতিনিধি: প্রকৃতিতে বৈশাখ আসে নানা রঙে নানা রূপে। নতুন সম্ভাবনা আর স্বপ্নের গল্প নিয়ে। অপেক্ষা মাত্র কয়েকঘণ্টা। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে বর্ষবরণে মাতবে পুরো দেশ। রমনার বটমূলে শেষ হয়েছে সব ধরণের প্রস্তুতি। মঙ্গল শোভাযাত্রার আনুষঙ্গিক উপকরণ তৈরির কাজও শেষ পর্যায়ে। হঠাৎ বৃষ্টি কিছুটা সমস্যা সৃষ্টি করলেও আয়োজকরা জানালেন, প্রাণের উৎসব উদযাপনে সব বাধা তুচ্ছ।

চৈত্রের শেষ সূর্যোদয়। সময়ের আবর্তে হারিয়ে যাবে মহাকালের গর্ভে। বছরের অপ্রাপ্তি আর অপূর্ণতা নিয়ে। বছরের নতুন সূর্য ফিরবে নতুন জীবনের গল্প নিয়ে। শুভ বোধ আর সত্য সুন্দরের প্রতিরূপে। বর্ষবরণের আনন্দ আয়োজনের অপেক্ষা পুরো বাঙলায়।

Trulli

বর্ষবরণের সকাল শুরু হয় রমনার বটমূলে ছায়ানটের গানে। মঞ্চসজ্জার কাজ প্রায় শেষ। গানে গানে বৈশাখ আবাহনের প্রস্ততিও সম্পন্ন। দীর্ঘকাল ধরে বর্ষবরণের প্রধান আকর্ষণ মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে চারুকলা অনুষদে।

রঙ-বেরঙের লোকজ ঐতিহ্যের প্রতিরূপ নিয়ে পুরোপুরি প্রস্তুত আয়োজকরা। নতুন বছর সবার জীবনে বয়ে আনবে শান্তির সুবাতাস, বলছেন তারা।

আয়োজকদের একজন জানান, বছরটা ভালো কাটুক, আগের সব দু:খ ভুলে যাবো।আবহমান বাঙলার লোকজ আয়োজন দেখতে চারুকলা অনুষদে ভিড় করেছেন অনেকেই। সার্বজনীন এ উৎসবে সামিল হতে উন্মুখ ভিনদেশিরাও।ভিনদেশিদের একজন জানান, সবাই একত্রে কাজ করছে, এটা দেখে ভালো লাগছে।দীর্ঘসময় পেরিয়ে আসা সার্বজনীন এ উৎসব হতে পারে সমাজের সব ব্যাধি দূর করার উপাদান।

শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদীনের ছেলে স্থপতি মাঈনুল আবেদীন বলেন, শুধু অর্থনৈতিক লাভবান না, আমাদের কারিকুলামে সাথে এটা গুরুত্বপূর্ণ সৃষ্টিগুলো সংযোজন করা।

চারুকলার ডীন অধ্যাপক নিসার আহমেদ বলেন, আমাদের অনেকগুলো পজেটিভ ঘটনা ঘটেছে। পরিস্থিতি অনেক বদলে গেছে, জঙ্গিবাদের এই জায়গাটায় আমরা নেই। আমাদের অনেক অর্জন আছে আমরা নিজেরা কতগুলো লক্ষ্য সেট করছি। আগে তো বলতাম ওই দেশকে অনুসরণ করবো, এইভাবে বলতাম, আর এখন কিন্তু আমাদের কেউ অন্য দেশ অনুসরণ করে।

আবহমান কাল ধরে নববর্ষ বরণ এখন বাঙালির প্রাণের উৎসব। অসহিষ্ণু সময়ে যা একাত্ম করতে পারে সবাইকে, শুভ প্রত্যয়ে।