রাজশাহী , বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ

বৈশাখ বরণে আমেজ নেই নিম্নবিত্তের মধ্যে

  • আপডেটের সময় : ০৫:৩৬:১৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৯
  • ৬৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: নগর জুড়ে এখন উৎসবের আমেজ। নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে চলছে নানা প্রস্তুতি। তবে এই আনন্দ আয়োজনের বাইরে থাকছেন দেশের বড় একটা শ্রেণি। বাঙালি মধ্যবিত্তের বর্ণিল আয়োজনের পাশে নিষ্প্রভ সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নববর্ষের উদযাপনকে মানবিক উৎসব পরিণত করতে নিতে হবে তৎপর ভূমিকা।

প্রকৃতিতে পূর্বাভাস, আসছে বৈশাখ। নতুন বছরকে বরণ করতে প্রস্তুত হচ্ছে বাঙালি। শপিং মল গুলোতে এখন উপচে পড়া ভিড়। নগরজুড়ে এখন রংয়ের ছোঁয়া। নগর বাঙালির এ যেন এক ভোগবাদী উল্লাস।

Trulli

একজন জানান, মাটির মানুষকে এর সাথে সম্পৃক্ত করতে হবে। আমাদের যে আসল ঐতিহ্যে, যে সংস্কৃতি সেটা যেন আমরা শুদ্ধভাবে জানি।

চারুকলার সামনে চুড়ি বিক্রি করছিলেন এক ব্যক্তি। কেন্দ্রে থেকেও প্রান্তিক ওই নারীর জীবনে নববর্ষ নতুন বার্তা নিয়ে আসতে পারছে না।

এক বিক্রেতা জানান, আমি কিছুই কিনি নাই, বেচা- বিক্রি নাই, আগে তো এখানে বসতে দিতো, এখন পুলিশ বসতে দিচ্ছে না। আর আমার ছেলে- মেয়ের জন্য আমি কিছুই কিনি নাই।

আবার দৃষ্টি দেয়া যাক খেটে খাওয়া রিকশা চালক মোসলেম উদ্দিনের দিকে। নগর জুড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, দেখছেন বর্ণিল আয়োজনের প্রস্তুতি। তবে তার সমস্ত আয়োজন কীভাবে চলবে সংসার।

এক রিকশা চালক বলেন, পহেলা বৈশাখ কিভাবে পালন করবো, আমার তো অভাব, অভাবের কারণে কিছুই করতে পারি না। আর আমি তো তেমন কামাই তো করতে পারি না। যা কামাই তা সংসার চলার মতো । তার বাইরে কিছুই করা যায় না।

সুবিধা ভোগী শ্রেণি ব্যতীত দেশের মোট জনসমষ্টির সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ নববর্ষের উৎসবে সামিল হতে পারে না তাদের অর্থনৈতিক কারণেই। বছরান্তে, উৎসব আসা-যাওয়া করে, সীমিত শ্রেণির ভোগ-উপভোগে। সমষ্টিগত মানুষের নীরব দর্শক হয়ে দেখা ছাড়া কি আর উপায়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মাসুদুজ্জামান বলেন, এটাকে মানবিক করে তোলা উচিত, এবং সেটা কিভাবে হতে পারে, সেটা ভাবা উচিত। আমি মনে করি এটা দুই ভাবে হতে পারে। একটা হচ্ছে, সরকারের উদ্যোগে হতে পারে, দ্বিতীয়টা হচ্ছে ধনী শ্রেণি তারা কিন্ত চাইলে মানবিক করে তুলতে পারে। যেমন আমরা দেখি ঈদের সময় ধনীরা গরীবদের যাকাতের কাপড় দেয়।

গ্রামের প্রকৃতি শাসিত লোকাচারের ভেতর নববর্ষ, নগরের নববর্ষ থেকে দূরগামী কিনা তা ভেবে দেখার কথাও বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

যুগ-যুগান্তরের এই ভূমি সন্তানরা বাঙালি হতে চাইবে নাকি বাঙালি হয়ে থাকবে এই প্রশ্নের মীমাংসা করতে হবে খুব দ্রুত। সংস্কৃতির ভাঙা সেতু দিয়ে নয়, ঐক্যের বাধনে জড়াতে হবে পুরো জাতিকে, এমটাই মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

রাবিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান, ৪ ঘণ্টা পর অবমুক্ত উপাচার্য

Adds Banner_2024

বৈশাখ বরণে আমেজ নেই নিম্নবিত্তের মধ্যে

আপডেটের সময় : ০৫:৩৬:১৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৯

ঢাকা প্রতিনিধি: নগর জুড়ে এখন উৎসবের আমেজ। নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে চলছে নানা প্রস্তুতি। তবে এই আনন্দ আয়োজনের বাইরে থাকছেন দেশের বড় একটা শ্রেণি। বাঙালি মধ্যবিত্তের বর্ণিল আয়োজনের পাশে নিষ্প্রভ সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নববর্ষের উদযাপনকে মানবিক উৎসব পরিণত করতে নিতে হবে তৎপর ভূমিকা।

প্রকৃতিতে পূর্বাভাস, আসছে বৈশাখ। নতুন বছরকে বরণ করতে প্রস্তুত হচ্ছে বাঙালি। শপিং মল গুলোতে এখন উপচে পড়া ভিড়। নগরজুড়ে এখন রংয়ের ছোঁয়া। নগর বাঙালির এ যেন এক ভোগবাদী উল্লাস।

Trulli

একজন জানান, মাটির মানুষকে এর সাথে সম্পৃক্ত করতে হবে। আমাদের যে আসল ঐতিহ্যে, যে সংস্কৃতি সেটা যেন আমরা শুদ্ধভাবে জানি।

চারুকলার সামনে চুড়ি বিক্রি করছিলেন এক ব্যক্তি। কেন্দ্রে থেকেও প্রান্তিক ওই নারীর জীবনে নববর্ষ নতুন বার্তা নিয়ে আসতে পারছে না।

এক বিক্রেতা জানান, আমি কিছুই কিনি নাই, বেচা- বিক্রি নাই, আগে তো এখানে বসতে দিতো, এখন পুলিশ বসতে দিচ্ছে না। আর আমার ছেলে- মেয়ের জন্য আমি কিছুই কিনি নাই।

আবার দৃষ্টি দেয়া যাক খেটে খাওয়া রিকশা চালক মোসলেম উদ্দিনের দিকে। নগর জুড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, দেখছেন বর্ণিল আয়োজনের প্রস্তুতি। তবে তার সমস্ত আয়োজন কীভাবে চলবে সংসার।

এক রিকশা চালক বলেন, পহেলা বৈশাখ কিভাবে পালন করবো, আমার তো অভাব, অভাবের কারণে কিছুই করতে পারি না। আর আমি তো তেমন কামাই তো করতে পারি না। যা কামাই তা সংসার চলার মতো । তার বাইরে কিছুই করা যায় না।

সুবিধা ভোগী শ্রেণি ব্যতীত দেশের মোট জনসমষ্টির সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ নববর্ষের উৎসবে সামিল হতে পারে না তাদের অর্থনৈতিক কারণেই। বছরান্তে, উৎসব আসা-যাওয়া করে, সীমিত শ্রেণির ভোগ-উপভোগে। সমষ্টিগত মানুষের নীরব দর্শক হয়ে দেখা ছাড়া কি আর উপায়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মাসুদুজ্জামান বলেন, এটাকে মানবিক করে তোলা উচিত, এবং সেটা কিভাবে হতে পারে, সেটা ভাবা উচিত। আমি মনে করি এটা দুই ভাবে হতে পারে। একটা হচ্ছে, সরকারের উদ্যোগে হতে পারে, দ্বিতীয়টা হচ্ছে ধনী শ্রেণি তারা কিন্ত চাইলে মানবিক করে তুলতে পারে। যেমন আমরা দেখি ঈদের সময় ধনীরা গরীবদের যাকাতের কাপড় দেয়।

গ্রামের প্রকৃতি শাসিত লোকাচারের ভেতর নববর্ষ, নগরের নববর্ষ থেকে দূরগামী কিনা তা ভেবে দেখার কথাও বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

যুগ-যুগান্তরের এই ভূমি সন্তানরা বাঙালি হতে চাইবে নাকি বাঙালি হয়ে থাকবে এই প্রশ্নের মীমাংসা করতে হবে খুব দ্রুত। সংস্কৃতির ভাঙা সেতু দিয়ে নয়, ঐক্যের বাধনে জড়াতে হবে পুরো জাতিকে, এমটাই মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।