রাজশাহী , রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

বিক্ষুব্ধ হকারদের নগর ভবন ঘেরাও

  • আপডেটের সময় : ১০:৩০:৫৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল ২০১৯
  • ১৫৭ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: দাবি আদায়ের প্রয়োজনে হরতাল-অবরোধের মতো আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন আন্দোলনরত হকার নেতৃবৃন্দ। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (নগর ভবন) ঘেরাও কর্মসূচি থেকে এই হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়।

শাপলা চত্বরের কর্মসূচিতে পুলিশি বাধা, হকার নেতা আবুল কালামকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ এবং বিকল্প কর্মসংস্থান ছাড়া উচ্ছেদ বন্ধের দাবিতে বাংলাদেশ হকার্স ইউনিয়নের ডাকে নগর ভবন ঘেরাও করার লক্ষ্যে হকাররা বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মিছিল বের করে। মিছিলটি বিভিন্ন এলাকা ঘুরে নগর ভবনের সামনে যাওয়ার সময় গুলিস্তান গোলাপশাহ মাজারের কাছে পুলিশ ব্যরিকেড তৈরি করে বাধা দেয়। সেখানেই অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করে সংগঠনের সভাপতি আব্দুল হাশেম কবীরের সভাপতিত্বে ওই সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার হায়াত্, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জসিমউদ্দিন, দপ্তর সম্পাদক গোলাপ হোসেন, কেন্দ্রীয় নেতা শহীদ খান, শাহানা আক্তার, মিজানুর রহমান, এম এ খায়ের, সামিরুল ইসলাম প্রমুখ।

Trulli

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, গত ৩ মাস ধরে হকাররা ফুটপাতে বসতে না পেরে অভুক্ত রয়েছে। এরপর আন্দোলনরত হকারদের ওপর হামলা, মামলা, গ্রেপ্তার এবং মালামাল লুট করে আন্দোলন দমানোর চেষ্টা চলছে। হকারদের ওপর হামলা-নির্যাতন যত বাড়বে আন্দোলনের তীব্রতাও তত বাড়বে। সরকার ও সিটি করপোরেশন হকার পুনর্বাসনের বিষয়ে সোজা পথে হাঁটতে চাচ্ছে না তাই হকাররা সিটি করপোরেশন, সরকারকে বাধ্য করার জন্য হরতাল-অবরোধ কর্মসূচি দেবে। এই ক্ষুধার্ত হকারদের আওয়াজে নগর ভবন ভেঙে পড়বে বলেও তারা মন্তব্য করেন।

সমাবেশে সভাপতি আগামী ১৫ এপ্রিল জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে হকার মহাসমাবেশের ঘোষণা দেন। ওই দিন সারা ঢাকা শহর থেকে লাখো হকার সমবেত হয়ে মহাসমাবেশ করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান করবে বলেও তিনি জানান। সমাবেশ থেকে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে ৯ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল মেয়রের সাথে বৈঠক করতে যান। মেয়র উপস্থিত না থাকায় সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে বৈঠক করেন এবং তাদের এ-সংক্রান্ত সুপারিশমালা তুলে ধরেন।

Adds Banner_2024

বিক্ষুব্ধ হকারদের নগর ভবন ঘেরাও

আপডেটের সময় : ১০:৩০:৫৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল ২০১৯

ঢাকা প্রতিনিধি: দাবি আদায়ের প্রয়োজনে হরতাল-অবরোধের মতো আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন আন্দোলনরত হকার নেতৃবৃন্দ। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (নগর ভবন) ঘেরাও কর্মসূচি থেকে এই হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়।

শাপলা চত্বরের কর্মসূচিতে পুলিশি বাধা, হকার নেতা আবুল কালামকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ এবং বিকল্প কর্মসংস্থান ছাড়া উচ্ছেদ বন্ধের দাবিতে বাংলাদেশ হকার্স ইউনিয়নের ডাকে নগর ভবন ঘেরাও করার লক্ষ্যে হকাররা বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মিছিল বের করে। মিছিলটি বিভিন্ন এলাকা ঘুরে নগর ভবনের সামনে যাওয়ার সময় গুলিস্তান গোলাপশাহ মাজারের কাছে পুলিশ ব্যরিকেড তৈরি করে বাধা দেয়। সেখানেই অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করে সংগঠনের সভাপতি আব্দুল হাশেম কবীরের সভাপতিত্বে ওই সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার হায়াত্, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জসিমউদ্দিন, দপ্তর সম্পাদক গোলাপ হোসেন, কেন্দ্রীয় নেতা শহীদ খান, শাহানা আক্তার, মিজানুর রহমান, এম এ খায়ের, সামিরুল ইসলাম প্রমুখ।

Trulli

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, গত ৩ মাস ধরে হকাররা ফুটপাতে বসতে না পেরে অভুক্ত রয়েছে। এরপর আন্দোলনরত হকারদের ওপর হামলা, মামলা, গ্রেপ্তার এবং মালামাল লুট করে আন্দোলন দমানোর চেষ্টা চলছে। হকারদের ওপর হামলা-নির্যাতন যত বাড়বে আন্দোলনের তীব্রতাও তত বাড়বে। সরকার ও সিটি করপোরেশন হকার পুনর্বাসনের বিষয়ে সোজা পথে হাঁটতে চাচ্ছে না তাই হকাররা সিটি করপোরেশন, সরকারকে বাধ্য করার জন্য হরতাল-অবরোধ কর্মসূচি দেবে। এই ক্ষুধার্ত হকারদের আওয়াজে নগর ভবন ভেঙে পড়বে বলেও তারা মন্তব্য করেন।

সমাবেশে সভাপতি আগামী ১৫ এপ্রিল জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে হকার মহাসমাবেশের ঘোষণা দেন। ওই দিন সারা ঢাকা শহর থেকে লাখো হকার সমবেত হয়ে মহাসমাবেশ করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান করবে বলেও তিনি জানান। সমাবেশ থেকে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে ৯ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল মেয়রের সাথে বৈঠক করতে যান। মেয়র উপস্থিত না থাকায় সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে বৈঠক করেন এবং তাদের এ-সংক্রান্ত সুপারিশমালা তুলে ধরেন।