রাজশাহী , বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

সিরাজ উদ দৌলার মুক্তির দাবি মাঠে নেমেছিল নূরউদ্দিন (ভিডিও)

  • আপডেটের সময় : ০৮:০৮:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল ২০১৯
  • ৬৬ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্ক: মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে যৌন হয়রানি অভিযোগে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন নুসরাতের মা শিরিন আক্তার। ২৭ মার্চ অধ্যক্ষকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর গত ২৮ মার্চ অধ্যক্ষের মুক্তির দাবিতে সোনাগাজী উপজেলা সদরে মিছিল ও সমাবেশ করে তার পক্ষের লোকজন। ওই মিছিলে অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখে একই মাদ্রাসার ফাজিল শ্রেণির দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র এবং নিহত নুসরাতের ভাইয়ের দায়ের করা মামলার দুই নম্বর আসামি নূরউদ্দিন। এরই মধ্যে পুলিশ নুরউদ্দিনকে গ্রেফতার করেছে। বর্তমানে সে পাঁচ দিনের রিমান্ডে রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে আলিম পর্যায়ের আরবি প্রথম পত্র পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে যান নুসরাত। এসময় তাকে কৌশলে একটি বহুতল ভবনে ডেকে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। সেখানে তার গায়ে দাহ্য পদার্থ দিয়ে আগুন দেওয়া হয়। বুধবার (১০ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টায় ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নুসরাত মারা যান।

Trulli

অধ্যক্ষের মুক্তির দাবিতে আয়োজিত ওই মিছিলের একটি ভিডিও এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ওই ভিডিওতে আসামি নূরউদ্দিনকে বক্তব্য রাখতে দেখা যায়। নুরউদ্দিন তার বক্তব্যে বলে— ‘আমাদের সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার সুনাম ক্ষুণ্ন করা হয়েছে। সোনাগাজীর ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সাহেবকে মিথ্যা ও বানোয়াট মামলা দিয়ে পুলিশ বাহিনী অ্যারেস্ট করেছেন। প্রিন্সিপাল হুজুরকে মিথ্যা ও বানোয়াট মামলা থেকে মুক্তি দেওয়া না হয়… এই সোনাগাজীর মাদ্রাসা থেকে শুধু ছাত্রলীগ তৈরি হয় না, ছাত্রদল, ছাত্রশিবির তৈরি হয় না, এই মাদ্রাসা থেকে একজন আলেমও তৈরি হয়। এই সোনাগাজী মাদ্রাসার আলেমসহ সবাইকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়েছি আমাদের প্রিন্সিপাল হুজুরকে মুক্তি দিতে হবে।’

ভিডিওতে নুরউদ্দিন আরও বলে, ‘পুলিশ প্রশাসন বলেছে, নির্বাচনের জন্য মিটিং -মিছিল বন্ধ করা হয়েছে। আমরা আপনদের কথা শুনেছি। আপনারা সাংবাদিকরা যদি আমাদের নামে খারাপ রিপোর্ট করেন, আমরা তাদের ছাড় দেবো না।’
https://www.facebook.com/hajee.rafique/videos/10210932879916365/?t=95
‘আগামী রবিবার-সোমবার আমাদের হুজুরকে কোর্টে ওঠানো হবে। আমাদের হুজুরকে যদি মুক্তি দেওয়া না হয়, অনির্দিষ্টকালের জন্য সোনাগাজী মাদ্রাসা বন্ধ থাকবে। আমরা সকল ছাত্র জনতা বলছি, প্রিন্সিপাল স্যারকে যদি মুক্তি দেওয়া না হয়, তাহলে আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।’

সমাবেশে নূরউদ্দিন বলে, ‘আরেকটা কথা বলতে চাই, এই মাদ্রাসা কমিটিতে ছিল কুলাঙ্গার শেখ মামুন। তাকে কমিটি থেকে বের করে দেওয়ার কারণে সে মাদ্রাসার ছাত্র ও শিক্ষকদেরকে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিয়েছে। আমাদের মানববন্ধনে, ব্যানার ও ফেস্টুনে সেই কুলাঙ্গার শেখ মামুন হাত দিয়েছে। আমরা তার বিচার চাই।’

আমাদের প্রিন্সিপাল হুজুরকে যদি নিঃশর্ত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে মুক্তি দেওয়া না হয়, তাহলে সোনাগাজী নয়, পুরো বাংলাদেশের আলেমসমাজ তাদের ছাড়বে না।’

প্রসঙ্গত, নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়ার ঘটনার পর গত ৮ এপ্রিল নুসরাতের বড়ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে সোনাগাজী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর ১০। এ মামলায় আসামির তালিকায় দুই নম্বরে নূরউদ্দিনের নাম রয়েছে।

আসামিদের মধ্যে পলাতক রয়েছে— সোনাগাজীর পৌর কাউন্সিলর মুকছুদ আলম, অধ্যক্ষ সিরাজউদৌলার অন্যতম সহযোগী নূরউদ্দিন, ওই মাদ্রাসার ছাত্র সোনাগাজী পৌরসভার উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের বাসিন্দা শাহাদাত হোসেন শামীম, জাবেদ হাসান ও আব্দুল কাদের।

পিবিআই জানিয়েছে, এই মামলায় থানা পুলিশের গ্রেফতার করা অধ্যক্ষ সিরাজউদৌলাকে সাতদিনের ও ওই মাদ্রাসার ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক আবছার এবং নুসরাতের সহপাঠী আরিফুল, নুর, কেফায়াত উল্লাহ জনি, মোহাম্মদ আলাউদ্দিন ও শাহিদুল ইসলাম পাঁচদিন করে রিমান্ড রয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এছাড়া, অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার বোনের মেয়ে উম্মে সুলতানা পপি ও জোবায়ের আহম্মেদকে আদালতে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ড চাইলে আদালত বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) শুনানির জন্য দিন ধার্য করে আসামিদের কারাগারে পাঠান।

Adds Banner_2024

সিরাজ উদ দৌলার মুক্তির দাবি মাঠে নেমেছিল নূরউদ্দিন (ভিডিও)

আপডেটের সময় : ০৮:০৮:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল ২০১৯

জনপদ ডেস্ক: মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে যৌন হয়রানি অভিযোগে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন নুসরাতের মা শিরিন আক্তার। ২৭ মার্চ অধ্যক্ষকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর গত ২৮ মার্চ অধ্যক্ষের মুক্তির দাবিতে সোনাগাজী উপজেলা সদরে মিছিল ও সমাবেশ করে তার পক্ষের লোকজন। ওই মিছিলে অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখে একই মাদ্রাসার ফাজিল শ্রেণির দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র এবং নিহত নুসরাতের ভাইয়ের দায়ের করা মামলার দুই নম্বর আসামি নূরউদ্দিন। এরই মধ্যে পুলিশ নুরউদ্দিনকে গ্রেফতার করেছে। বর্তমানে সে পাঁচ দিনের রিমান্ডে রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে আলিম পর্যায়ের আরবি প্রথম পত্র পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে যান নুসরাত। এসময় তাকে কৌশলে একটি বহুতল ভবনে ডেকে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। সেখানে তার গায়ে দাহ্য পদার্থ দিয়ে আগুন দেওয়া হয়। বুধবার (১০ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টায় ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নুসরাত মারা যান।

Trulli

অধ্যক্ষের মুক্তির দাবিতে আয়োজিত ওই মিছিলের একটি ভিডিও এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ওই ভিডিওতে আসামি নূরউদ্দিনকে বক্তব্য রাখতে দেখা যায়। নুরউদ্দিন তার বক্তব্যে বলে— ‘আমাদের সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার সুনাম ক্ষুণ্ন করা হয়েছে। সোনাগাজীর ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সাহেবকে মিথ্যা ও বানোয়াট মামলা দিয়ে পুলিশ বাহিনী অ্যারেস্ট করেছেন। প্রিন্সিপাল হুজুরকে মিথ্যা ও বানোয়াট মামলা থেকে মুক্তি দেওয়া না হয়… এই সোনাগাজীর মাদ্রাসা থেকে শুধু ছাত্রলীগ তৈরি হয় না, ছাত্রদল, ছাত্রশিবির তৈরি হয় না, এই মাদ্রাসা থেকে একজন আলেমও তৈরি হয়। এই সোনাগাজী মাদ্রাসার আলেমসহ সবাইকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়েছি আমাদের প্রিন্সিপাল হুজুরকে মুক্তি দিতে হবে।’

ভিডিওতে নুরউদ্দিন আরও বলে, ‘পুলিশ প্রশাসন বলেছে, নির্বাচনের জন্য মিটিং -মিছিল বন্ধ করা হয়েছে। আমরা আপনদের কথা শুনেছি। আপনারা সাংবাদিকরা যদি আমাদের নামে খারাপ রিপোর্ট করেন, আমরা তাদের ছাড় দেবো না।’
https://www.facebook.com/hajee.rafique/videos/10210932879916365/?t=95
‘আগামী রবিবার-সোমবার আমাদের হুজুরকে কোর্টে ওঠানো হবে। আমাদের হুজুরকে যদি মুক্তি দেওয়া না হয়, অনির্দিষ্টকালের জন্য সোনাগাজী মাদ্রাসা বন্ধ থাকবে। আমরা সকল ছাত্র জনতা বলছি, প্রিন্সিপাল স্যারকে যদি মুক্তি দেওয়া না হয়, তাহলে আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।’

সমাবেশে নূরউদ্দিন বলে, ‘আরেকটা কথা বলতে চাই, এই মাদ্রাসা কমিটিতে ছিল কুলাঙ্গার শেখ মামুন। তাকে কমিটি থেকে বের করে দেওয়ার কারণে সে মাদ্রাসার ছাত্র ও শিক্ষকদেরকে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিয়েছে। আমাদের মানববন্ধনে, ব্যানার ও ফেস্টুনে সেই কুলাঙ্গার শেখ মামুন হাত দিয়েছে। আমরা তার বিচার চাই।’

আমাদের প্রিন্সিপাল হুজুরকে যদি নিঃশর্ত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে মুক্তি দেওয়া না হয়, তাহলে সোনাগাজী নয়, পুরো বাংলাদেশের আলেমসমাজ তাদের ছাড়বে না।’

প্রসঙ্গত, নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়ার ঘটনার পর গত ৮ এপ্রিল নুসরাতের বড়ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে সোনাগাজী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর ১০। এ মামলায় আসামির তালিকায় দুই নম্বরে নূরউদ্দিনের নাম রয়েছে।

আসামিদের মধ্যে পলাতক রয়েছে— সোনাগাজীর পৌর কাউন্সিলর মুকছুদ আলম, অধ্যক্ষ সিরাজউদৌলার অন্যতম সহযোগী নূরউদ্দিন, ওই মাদ্রাসার ছাত্র সোনাগাজী পৌরসভার উত্তর চরচান্দিয়া গ্রামের বাসিন্দা শাহাদাত হোসেন শামীম, জাবেদ হাসান ও আব্দুল কাদের।

পিবিআই জানিয়েছে, এই মামলায় থানা পুলিশের গ্রেফতার করা অধ্যক্ষ সিরাজউদৌলাকে সাতদিনের ও ওই মাদ্রাসার ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক আবছার এবং নুসরাতের সহপাঠী আরিফুল, নুর, কেফায়াত উল্লাহ জনি, মোহাম্মদ আলাউদ্দিন ও শাহিদুল ইসলাম পাঁচদিন করে রিমান্ড রয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এছাড়া, অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার বোনের মেয়ে উম্মে সুলতানা পপি ও জোবায়ের আহম্মেদকে আদালতে হাজির করে সাতদিনের রিমান্ড চাইলে আদালত বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) শুনানির জন্য দিন ধার্য করে আসামিদের কারাগারে পাঠান।