রাজশাহী , রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
কোটা নিয়ে আপিল শুনানি রোববার এবার বিটিভির মূল ভবনে আগুন ২১, ২৩ ও ২৫ জুলাইয়ের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত অবশেষে আটকে পড়া ৬০ পুলিশকে উদ্ধার করল র‍্যাবের হেলিকপ্টার উত্তরা-আজমপুরে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ৪ রামপুরা-বাড্ডায় ব্যাপক সংঘর্ষ, শিক্ষার্থী-পুলিশসহ আহত দুই শতাধিক আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে রাজশাহীতে দাঁড়াতেই পারেনি কোটা আন্দোলনকারীরা সরকার কোটা সংস্কারের পক্ষে, চাইলে আজই আলোচনা তারা যখনই বসবে আমরা রাজি আছি : আইনমন্ত্রী আন্দোলন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে কথা বলবেন আইনমন্ত্রী রাজশাহীতে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর, আহত ২০ রাজশাহীতে ককটেল বিস্ফোরণে ছাত্রলীগ নেতা সবুজ আহত বাড্ডায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া আজ সারা দেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঢাকাসহ সারা দেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী

দুর্ঘটনা রোধে গুরুত্ব পাচ্ছে সড়ক-মহাসড়ক খাত

  • আপডেটের সময় : ০৭:৪৫:১৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ এপ্রিল ২০১৯
  • ৬৩ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: ঢাকার সড়ক ও মহাসড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে আগামী ২০১৯-২০ অর্থ বাজেটে ১৬৭টি প্রকল্প গুরুত্ব পাচ্ছে। এর মধ্যে মেগা প্রকল্প ১৪টি, আঞ্চলিক সড়ক উন্নয়নে ১০টি এবং জেলা সড়ক উন্নয়নে ১০টি গুচ্ছ প্রকল্প রয়েছে।

আগামী অর্থবছরে এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের তুলনায় ঘাটতি ১০ হাজার ৫৬৩ কোটি টাকা। প্রকল্পগুলো শেষ করতে আসন্ন বাজেটে এ পরিমাণ অর্থ চাওয়া হয়েছে। সম্প্রতি এ ব্যাপারে অর্থ সচিবকে সড়ক পরিবহন ও সেতু সচিব মো. নজরুল ইসলাম ডিও লেটার দিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

Trulli

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, আগামী বাজেটে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের চাহিদা অনুযায়ী বরাদ্দ দেয়া হবে। অগ্রাধিকার থাকবে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, দক্ষতা উন্নয়ন ও যোগাযোগে। করের বোঝা নতুন করে চাপিয়ে না দিয়ে করের আওতা বাড়ানো হবে। কর্পোরেট রেট পর্যায়ক্রমে হ্রাস করা হবে। রাস্তাঘাট উন্নয়নেও বরাদ্দ থাকবে। তিনি বলেন, আগামী বাজেট অবশ্যই কর্মসংস্থানমুখী ও গ্রামবান্ধব হবে।

ডিও লেটারে সড়ক বিভাগ ও সেতু সচিব নজরুল ইসলাম বলেছেন, দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে সড়ক ও মহাসড়কে নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে কাজ করছে সেতু মন্ত্রণালয়। ফলে এ মন্ত্রণালয়ের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন আছে। এর মধ্যে চলতি অর্থবছরে ৩৫টি প্রকল্প সমাপ্তের পথে আছে। আর ১৬৭টি প্রকল্প আগামী অর্থবছরে বাস্তবায়ন করা হবে। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ অনুকূলে বরাদ্দের অতিরিক্ত ১০ হাজার ৫৬৩ কোটি বরাদ্দের জন্য তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান।

জানা গেছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট আগামী ১৩ জুন ঘোষণার সম্ভাবনা রয়েছে। সে হিসাবে অর্থ মন্ত্রণালয় সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। ইতিমধ্যে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের বাজেট নিয়ে বৈঠক করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনা মারাÍক আকার ধারণ করায় এবং দুর্ঘটনার বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনসহ নানা কারণে এবারের বাজেটে সড়ক উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর বিষয়টি উঠে আসে।

ঢাকার সড়ক ও পরিবহন খাতে এক দশকে ৫০ হাজার কোটি টাকার বেশি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সরকার। এরপরও রাজধানী শহরে যানবাহন চলছে হাতের ইশারায়, সংকেতবাতি প্রায় অকার্যকর। নাজুক গণপরিবহন ব্যবস্থায় নগরবাসীর দুর্ভোগের অন্ত নেই। ঢাকা মানেই যানজট, সড়কে মৃত্যু, দূষণ আর বেহাল সড়কের শহর।

শুধু ঢাকায় সড়ক ও পরিবহন খাতে আট বছরে সরকার ছয় হাজার ৮৬৬ কোটি টাকা খরচ করেছে। বর্তমানে সাড়ে ৪৩ হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ চলছে। এসব প্রকল্পের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল- উত্তরা থেকে মতিঝিল মেট্রোরেল নির্মাণ, বিমানবন্দর থেকে যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত উড়ালসড়ক নির্মাণ, জয়দেবপুর থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত বাসের বিশেষ লেন নির্মাণ, পূর্বাচলে সড়ক ও ১০০ ফুট চওড়া খাল খনন। এগুলো ২০২০ সালের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

কিন্তু কাজের যে অগ্রগতি তাতে নির্ধারিত সময়ে এসব প্রকল্প শেষ হওয়া নিয়ে সংশয় আছে। এ ছাড়া আরও প্রায় দুই লাখ কোটি টাকার প্রকল্প আসছে। এর মধ্যে আছে মেট্রোরেল, উড়ালসড়ক, রিংরোড, পাতাল রেল নির্মাণ।

সবকিছু পর্যালোচনা করে আগামী বাজেটে এ খাতে বরাদ্দের সিলিং ২২ হাজার ৬৩২ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়। এর মধ্যে সরকারি খাত থেকে ১৪ হাজার ৬৩৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে এবং বিদেশি সহায়তার পরিমাণ আট হাজার কোটি টাকা।

তবে সড়ক ও মহাসড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে চলমান প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে প্রয়োজন ৩৩ হাজার ১৯৬ কোটি টাকা। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় থেকে এ হিসাব দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে সরকারি খাত থেকে বরাদ্দের পরিমাণ ২৫ হাজার ৪২১ কোটি টাকা এবং বিদেশি সহায়তার পরিমাণ সাত হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা। আগামী বাজেটে অর্থ মন্ত্রণালয় যে টাকা সেতু মন্ত্রণালয়কে বরাদ্দ দিয়েছে তা সেতু মন্ত্রণালয়ের চাহিদার তুলনায় (জিওবি) ১০ হাজার ৫৬৩ কোটি টাকা কম।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, আগামী বাজেটে সেতু মন্ত্রণালয়ের জন্য বরাদ্দের সিলিং নির্ধারণ করা হয়েছে। এরপরও সেটি চলতি অর্থবছরের এডিপির তুলনায় এক হাজার ৮১৫ কোটি টাকা বেশি, শতাংশের হিসাবে এটি ৮ দশমিক ৭ ভাগ। অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো ডিও লেটারে বলা হয়, আগামী বাজেটে যে বরাদ্দ পাওয়া যাবে সেটির একটি বড় অংশ চলতি অর্থবছরের কয়েকটি বড় প্রকল্পের কাজ শেষ করতে ব্যয় করা হবে।

সরকারি সহায়তা খাতে এ অর্থ ব্যয় হবে। পাশাপাশি ওই অর্থ থেকে ছোট প্রকল্প, প্রকল্পের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ ও ইউটিলিটি শিফটিং করতেও টাকা বরাদ্দ দিতে হবে। তিনি আরও বলেন, প্রকল্পের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের চাহিদা অনুযায়ী বরাদ্দ দেয়া সম্ভব হলে কাজের গতি অনেক বাড়বে এবং কাক্সিক্ষত মাত্রায় কাজ করা সম্ভব হবে। অপরদিকে, অনুমোদিত প্রকল্প অনুযায়ী বরাদ্দ অপ্রতুল হলে প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যক্রম মন্থর হয়ে পড়বে। প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় ও সময় উভয়ই বাড়বে। সে বিবেচনায় আগামী বাজেটে এডিপিতে জিওবি খাতে প্রদত্ত বরাদ্দের অতিরিক্ত ১০ হাজার ৫৬৩ কোটি টাকার প্রয়োজন।

Adds Banner_2024

দুর্ঘটনা রোধে গুরুত্ব পাচ্ছে সড়ক-মহাসড়ক খাত

আপডেটের সময় : ০৭:৪৫:১৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ এপ্রিল ২০১৯

ঢাকা প্রতিনিধি: ঢাকার সড়ক ও মহাসড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে আগামী ২০১৯-২০ অর্থ বাজেটে ১৬৭টি প্রকল্প গুরুত্ব পাচ্ছে। এর মধ্যে মেগা প্রকল্প ১৪টি, আঞ্চলিক সড়ক উন্নয়নে ১০টি এবং জেলা সড়ক উন্নয়নে ১০টি গুচ্ছ প্রকল্প রয়েছে।

আগামী অর্থবছরে এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের তুলনায় ঘাটতি ১০ হাজার ৫৬৩ কোটি টাকা। প্রকল্পগুলো শেষ করতে আসন্ন বাজেটে এ পরিমাণ অর্থ চাওয়া হয়েছে। সম্প্রতি এ ব্যাপারে অর্থ সচিবকে সড়ক পরিবহন ও সেতু সচিব মো. নজরুল ইসলাম ডিও লেটার দিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

Trulli

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, আগামী বাজেটে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের চাহিদা অনুযায়ী বরাদ্দ দেয়া হবে। অগ্রাধিকার থাকবে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, দক্ষতা উন্নয়ন ও যোগাযোগে। করের বোঝা নতুন করে চাপিয়ে না দিয়ে করের আওতা বাড়ানো হবে। কর্পোরেট রেট পর্যায়ক্রমে হ্রাস করা হবে। রাস্তাঘাট উন্নয়নেও বরাদ্দ থাকবে। তিনি বলেন, আগামী বাজেট অবশ্যই কর্মসংস্থানমুখী ও গ্রামবান্ধব হবে।

ডিও লেটারে সড়ক বিভাগ ও সেতু সচিব নজরুল ইসলাম বলেছেন, দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে সড়ক ও মহাসড়কে নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে কাজ করছে সেতু মন্ত্রণালয়। ফলে এ মন্ত্রণালয়ের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন আছে। এর মধ্যে চলতি অর্থবছরে ৩৫টি প্রকল্প সমাপ্তের পথে আছে। আর ১৬৭টি প্রকল্প আগামী অর্থবছরে বাস্তবায়ন করা হবে। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ অনুকূলে বরাদ্দের অতিরিক্ত ১০ হাজার ৫৬৩ কোটি বরাদ্দের জন্য তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান।

জানা গেছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট আগামী ১৩ জুন ঘোষণার সম্ভাবনা রয়েছে। সে হিসাবে অর্থ মন্ত্রণালয় সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। ইতিমধ্যে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের বাজেট নিয়ে বৈঠক করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনা মারাÍক আকার ধারণ করায় এবং দুর্ঘটনার বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনসহ নানা কারণে এবারের বাজেটে সড়ক উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর বিষয়টি উঠে আসে।

ঢাকার সড়ক ও পরিবহন খাতে এক দশকে ৫০ হাজার কোটি টাকার বেশি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সরকার। এরপরও রাজধানী শহরে যানবাহন চলছে হাতের ইশারায়, সংকেতবাতি প্রায় অকার্যকর। নাজুক গণপরিবহন ব্যবস্থায় নগরবাসীর দুর্ভোগের অন্ত নেই। ঢাকা মানেই যানজট, সড়কে মৃত্যু, দূষণ আর বেহাল সড়কের শহর।

শুধু ঢাকায় সড়ক ও পরিবহন খাতে আট বছরে সরকার ছয় হাজার ৮৬৬ কোটি টাকা খরচ করেছে। বর্তমানে সাড়ে ৪৩ হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ চলছে। এসব প্রকল্পের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল- উত্তরা থেকে মতিঝিল মেট্রোরেল নির্মাণ, বিমানবন্দর থেকে যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত উড়ালসড়ক নির্মাণ, জয়দেবপুর থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত বাসের বিশেষ লেন নির্মাণ, পূর্বাচলে সড়ক ও ১০০ ফুট চওড়া খাল খনন। এগুলো ২০২০ সালের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

কিন্তু কাজের যে অগ্রগতি তাতে নির্ধারিত সময়ে এসব প্রকল্প শেষ হওয়া নিয়ে সংশয় আছে। এ ছাড়া আরও প্রায় দুই লাখ কোটি টাকার প্রকল্প আসছে। এর মধ্যে আছে মেট্রোরেল, উড়ালসড়ক, রিংরোড, পাতাল রেল নির্মাণ।

সবকিছু পর্যালোচনা করে আগামী বাজেটে এ খাতে বরাদ্দের সিলিং ২২ হাজার ৬৩২ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়। এর মধ্যে সরকারি খাত থেকে ১৪ হাজার ৬৩৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে এবং বিদেশি সহায়তার পরিমাণ আট হাজার কোটি টাকা।

তবে সড়ক ও মহাসড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে চলমান প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে প্রয়োজন ৩৩ হাজার ১৯৬ কোটি টাকা। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় থেকে এ হিসাব দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে সরকারি খাত থেকে বরাদ্দের পরিমাণ ২৫ হাজার ৪২১ কোটি টাকা এবং বিদেশি সহায়তার পরিমাণ সাত হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা। আগামী বাজেটে অর্থ মন্ত্রণালয় যে টাকা সেতু মন্ত্রণালয়কে বরাদ্দ দিয়েছে তা সেতু মন্ত্রণালয়ের চাহিদার তুলনায় (জিওবি) ১০ হাজার ৫৬৩ কোটি টাকা কম।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, আগামী বাজেটে সেতু মন্ত্রণালয়ের জন্য বরাদ্দের সিলিং নির্ধারণ করা হয়েছে। এরপরও সেটি চলতি অর্থবছরের এডিপির তুলনায় এক হাজার ৮১৫ কোটি টাকা বেশি, শতাংশের হিসাবে এটি ৮ দশমিক ৭ ভাগ। অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো ডিও লেটারে বলা হয়, আগামী বাজেটে যে বরাদ্দ পাওয়া যাবে সেটির একটি বড় অংশ চলতি অর্থবছরের কয়েকটি বড় প্রকল্পের কাজ শেষ করতে ব্যয় করা হবে।

সরকারি সহায়তা খাতে এ অর্থ ব্যয় হবে। পাশাপাশি ওই অর্থ থেকে ছোট প্রকল্প, প্রকল্পের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ ও ইউটিলিটি শিফটিং করতেও টাকা বরাদ্দ দিতে হবে। তিনি আরও বলেন, প্রকল্পের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের চাহিদা অনুযায়ী বরাদ্দ দেয়া সম্ভব হলে কাজের গতি অনেক বাড়বে এবং কাক্সিক্ষত মাত্রায় কাজ করা সম্ভব হবে। অপরদিকে, অনুমোদিত প্রকল্প অনুযায়ী বরাদ্দ অপ্রতুল হলে প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যক্রম মন্থর হয়ে পড়বে। প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় ও সময় উভয়ই বাড়বে। সে বিবেচনায় আগামী বাজেটে এডিপিতে জিওবি খাতে প্রদত্ত বরাদ্দের অতিরিক্ত ১০ হাজার ৫৬৩ কোটি টাকার প্রয়োজন।