রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের হামলা-সংঘর্ষের পর ঢাবি ক্যাম্পাসে ‘অ্যাকশনে’ যাবে পুলিশ শহীদুল্লাহ হলের সামনে ফের সংঘর্ষ, ৪ ককটেল বিস্ফোরণ চট্টগ্রামে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাবিতে কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, আহত অন্তত ৮০ ঢাবিতে আন্দোলনকারী-ছাত্রলীগ মুখোমুখি, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না?

হত্যা মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

  • আপডেটের সময় : ০৪:৪৮:১৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ এপ্রিল ২০১৯
  • ৬১ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: নগরের বাকলিয়া থানাধীন খালপাড় এলাকায় গুলিতে লোকমান হোসেন জনি খুনের ঘটনায় মামলা দায়ের হওয়া মামলার প্রধান আসামি মো. সাইফুল (২৮) পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে।

মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) ভোর ৪টার দিকে বাকলিয়া থানাধীন কল্পলোক আবাসিক এলাকায় ৫ নং ব্রিজ কবরস্থানের পাশে এ ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনা ঘটে।

Trulli

নিহত সাইফুল বাকলিয়া থানাধীন সবুজবাগ আবাসিক এলাকার রফিক আহমদের ছেলে। তিনি লোকমান হোসেন জনি (২৫) হত্যা মামলার এজাহারনামীয় ১ নম্বর আসামি।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রনব চৌধুরী বলেন, ‘লোকমান হোসেন জনি হত্যা মামলায় আসামি সাইফুল ও জিয়া উদ্দিন বাবলুকে ফটিকছড়ি এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরে সাইফুলের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী কল্পলোক আবাসিক এলাকায় অস্ত্র উদ্ধারে গেলে সেখানে সন্ত্রাসীদের সঙ্গে পুলিশের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। পরে সেখানে সাইফুলকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’

ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয় বলে জানান ওসি প্রনব চৌধুরী।

সোমবার (৮ এপ্রিল) দিবাগত রাতে ফটিকছড়ি উপজেলার জাফতনগর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে রোববার (৭ এপ্রিল) লোকমান হোসেন জনি হত্যা মামলার আরেক আসামি কৃষ্ণ ধরকে (২৫) ডিসি রোড এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এর আগে শনিবার (৬ এপ্রিল) দিবাগত রাতে বাকলিয়া থানাধীন খালপাড় এলাকায় খুন হন লোকমান হোসেন জনি। লোকমান হোসেন জনির বাসা নগরের গোলপাহাড় এলাকায়।

পরে লোকমান খুনের ঘটনায় সাইফুলকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের বিরুদ্ধে বাকলিয়া থানায় মামলা দায়ের করেন লোকমানের মা রোকেয়া বেগম।

পুলিশ জানায়, লোকমান হোসেন জনি ‘বড় ভাই’ হিসেবে কিশোরদের মধ্যে প্রেম সংক্রান্ত বিরোধ মেটাতে গিয়ে আরেক ‘বড় ভাই’ সাইফুলের গুলিতে নিহত হন। জয় নামে এক কিশোরকে বাকলিয়া খালপাড় এলাকায় আটকে রাখার খবর পেয়ে সেই গ্রুপের বড় ভাই হিসেবে ওখানে যান লোকমান হোসেন জনি। সেখানে তারা কথা-কাটাকাটিও হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন।

পরে সেই খবর সাইফুল নামের আরেক বড় ভাইয়ের কাছে গেলে তিনি গুলি করেন। এ সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান লোকমান হোসেন জনি।

Adds Banner_2024

হত্যা মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

আপডেটের সময় : ০৪:৪৮:১৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ এপ্রিল ২০১৯

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: নগরের বাকলিয়া থানাধীন খালপাড় এলাকায় গুলিতে লোকমান হোসেন জনি খুনের ঘটনায় মামলা দায়ের হওয়া মামলার প্রধান আসামি মো. সাইফুল (২৮) পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে।

মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) ভোর ৪টার দিকে বাকলিয়া থানাধীন কল্পলোক আবাসিক এলাকায় ৫ নং ব্রিজ কবরস্থানের পাশে এ ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনা ঘটে।

Trulli

নিহত সাইফুল বাকলিয়া থানাধীন সবুজবাগ আবাসিক এলাকার রফিক আহমদের ছেলে। তিনি লোকমান হোসেন জনি (২৫) হত্যা মামলার এজাহারনামীয় ১ নম্বর আসামি।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রনব চৌধুরী বলেন, ‘লোকমান হোসেন জনি হত্যা মামলায় আসামি সাইফুল ও জিয়া উদ্দিন বাবলুকে ফটিকছড়ি এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরে সাইফুলের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী কল্পলোক আবাসিক এলাকায় অস্ত্র উদ্ধারে গেলে সেখানে সন্ত্রাসীদের সঙ্গে পুলিশের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। পরে সেখানে সাইফুলকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’

ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয় বলে জানান ওসি প্রনব চৌধুরী।

সোমবার (৮ এপ্রিল) দিবাগত রাতে ফটিকছড়ি উপজেলার জাফতনগর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে রোববার (৭ এপ্রিল) লোকমান হোসেন জনি হত্যা মামলার আরেক আসামি কৃষ্ণ ধরকে (২৫) ডিসি রোড এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এর আগে শনিবার (৬ এপ্রিল) দিবাগত রাতে বাকলিয়া থানাধীন খালপাড় এলাকায় খুন হন লোকমান হোসেন জনি। লোকমান হোসেন জনির বাসা নগরের গোলপাহাড় এলাকায়।

পরে লোকমান খুনের ঘটনায় সাইফুলকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের বিরুদ্ধে বাকলিয়া থানায় মামলা দায়ের করেন লোকমানের মা রোকেয়া বেগম।

পুলিশ জানায়, লোকমান হোসেন জনি ‘বড় ভাই’ হিসেবে কিশোরদের মধ্যে প্রেম সংক্রান্ত বিরোধ মেটাতে গিয়ে আরেক ‘বড় ভাই’ সাইফুলের গুলিতে নিহত হন। জয় নামে এক কিশোরকে বাকলিয়া খালপাড় এলাকায় আটকে রাখার খবর পেয়ে সেই গ্রুপের বড় ভাই হিসেবে ওখানে যান লোকমান হোসেন জনি। সেখানে তারা কথা-কাটাকাটিও হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন।

পরে সেই খবর সাইফুল নামের আরেক বড় ভাইয়ের কাছে গেলে তিনি গুলি করেন। এ সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান লোকমান হোসেন জনি।