রাজশাহী , রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজাকারের নাতিরা সব পাবে, মুক্তিযোদ্ধার নাতিপুতিরা কিছুই পাবে না? আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর অধিকার আমার নেই ফের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম, দৃশ্যমান পদক্ষেপ চান কোটা আন্দোলনকারীরা আবাসন এবং হসপিটালিটি খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী চীন : প্রধানমন্ত্রী ব্যারিকেড ভেঙে ফেলেছেন শিক্ষার্থীরা, যাচ্ছেন বঙ্গভবনের দিকে ট্রাম্পের ওপর হামলা নির্বাচনী প্রচারণায় কতটা প্রভাব ফেলবে? পূর্বঘোষিত গণপদযাত্রায় অংশ নিতে জড়ো হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা ৭ অঞ্চলে সন্ধ্যার মধ্যে ঝড়ের আভাস কানে গুলিবিদ্ধ ট্রাম্প, বলছেন– যুক্তরাষ্ট্রে এমন হামলা অবিশ্বাস্য মামলা তুলে নিতে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম কোটা আন্দোলনকারীদের কোটা আন্দোলন : গণপদযাত্রা ও রাষ্ট্রপতিকে স্মারকলিপি দেবেন শিক্ষার্থীরা ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার : প্রধানমন্ত্রী পেনশন স্কিম নিয়ে ভুল বোঝাবুঝি দূর হয়েছে : ওবায়দুল কাদের ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা সরকার চাইলে কোটা পরিবর্তন করতে পারবে, হাইকোর্টের রায় প্রকাশ ব্যারিকেড ভেঙে ‘ভুয়া ভুয়া’ স্লোগান, উত্তাল শাহবাগ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ আন্দোলনকে বেগবান করতে জনসংযোগ, সমন্বয় করে কর্মসূচির ঘোষণা আজ চলমান কোটা আন্দোলন নিয়ে ছাত্রলীগের সংবাদ সম্মেলন কোটা আন্দোলনকারীদের জন্য আদালতের দরজা সবসময় খোলা

অচল রামেক হাসপতালের সিটিস্ক্যান মেশিন

  • আপডেটের সময় : ০৬:০৬:৩৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৭ এপ্রিল ২০১৯
  • ৮৬ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

রাজশাহী প্রতিনিধি: আড়াই মাস ধরে নষ্ট হয়ে পড়ে রয়েছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের সিটিস্ক্যান মেশিনটি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শুরু থেকেই বলে আসছেন মেরামতের চেষ্টা চলছে। কিন্তু আড়াই মাসেও এটি চালু না হওয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছেন সাধারণ রোগিরা। এদিকে, হাসপাতালের সিটিস্ক্যান মেশিন নষ্টের সুযোগে বেসরকারী ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর এখন যেন পৌষ মাস ।

সিটিস্ক্যানকে ইস্যু করে ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর দালালরা এখন হাসপাতালে ব্যস্ত সময় পার করছে। রাজশাহী ছাড়াও উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে রোগিরা উন্নত চিকিৎসার আশায় ছুটে আসেন রাজশাহীতে। কিন্তু রামেক হাসপাতালের গুরুত্বপূর্ন মেশিন সিটিস্ক্যান দীর্ঘদিন ধরে অকেজো হয়ে পড়ে আছে। গত ২৩ জানুয়ারী এই গুরুত্বপূর্ন মেশিনটি নষ্ট হয়ে গেলেও মেরামত করা হয়নি।

Trulli

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সিটিস্ক্যান করাতে যেখানে ২ হাজার টাকা খরচ হয়। এটি নষ্ট থাকার কারনে এখন বাড়তি খরচ গুনতে হচ্ছে। বেসরকারী ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে সাড়ে ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা নেয়া হচ্ছে এই খরচ। এছাড়া হাসপাতালের সিটিস্ক্যান চালু থাকলে মুমুর্ষু রোগিদের সহজেই এ পরীক্ষা করানো যায়। ওয়ার্ডে ভর্তি রোগিকে ট্রলিতে করে নিয়ে গিয়ে সিটিস্ক্যান করানো যায়।

কিন্তু এটি নষ্ট থাকায় অনেক গুরুত্বর রোগি হলেও তাকে বাইরে নিয়ে যেতে হচ্ছে। এতে রোগিকে দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। অনেক বেশি ধকল সইতে হচ্ছে। আবার গুনতে হচ্ছে বাড়তি টাকা। মস্তিকের যেকোন জটিলতা বা নিউরো বিভাগের রোগিদের জন্য জরুরী পরীক্ষা সিটিস্ক্যান। প্রতিদিনই রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রোগিদের মধ্যে বিপুল সংখ্যক রোগিকে এই পরীক্ষা করা হয়।

হাসপাতালের একটি সূত্র জানিয়েছে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এই মেশিনটি চালু থাকার সময় প্রতিদিন ৩০ থেকে ৫০ জন রোগির সিটিস্ক্যান করা হতো। মেশিন নষ্টের পর এসব পরীক্ষা হচ্ছে ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে। আড়াই মাস ধরে লক্ষীপুর এলাকার ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে বেশ চাপ তৈরী হয়েছে। সিটিস্ক্যানের রোগি ধরতে হাসপাতালে দালালরা বেশ তৎপর।

দেখা গেছে রেডিওলজি বিভাগের গেটের সামনে একাধিক দালাল দাড়িয়ে আছে। কোন রোগি বা রোগির অভিভাবকেরা এসে সিটিস্ক্যানের রুম কোনদিকে তা জানতে চাইলে দালালেরা বলে, এখানের তো এই পরীক্ষা হয় না। এই পরীক্ষা বাইরে থেকে করাতে হবে। আমার চলেন সাথে আমাদের ডায়াগনষ্টিক সেন্টার রয়েছে। সেখানে কম টাকায় ভালো পরীক্ষার করা হয়। রোগির স্বজনেরা তাদের দেখে চিনে উঠতে পারে না যে তারা দালাল।

৮ নম্বর ওয়ার্ডে নওগাঁর আত্রাই উপজেলা থেকে চিকিৎসা নিতে আসা রমজান আলী বলেন, সকালে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষ মেরে মাথা ফাটিয়ে দেন। পরে রামেক হাসপাতালে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে নির্দিষ্ট ডায়াগনষ্টিকে গিয়ে পরীক্ষা করাতে বলেন। সেখানে ৫হাজার টাকায় সিটিস্ক্যান করিয়েছেন বলে জানান তিনি।

তার পাশের বেডে থাকা অপর এক রোগি সাড়ে ৩হাজার টাকায় সিটিস্ক্যান করিয়েছেন বলে জানান। এমন কথা শুনে পাশের এক বৃদ্ধা বলেন, আমরা শুনেছি সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিলে নাকি কোন টাকা পয়সা খরচ হয় না। কিন্তু এখানে এসে দেখি টাকা খরচের কোন শেষ নেই।

রামেক হাসপাতালের উপ-পরিচালাক ডা. এনামুল হক বলেন, সিটিস্ক্যন নিয়ে একাধিকবার আলোচনা হয়েছে। সর্বশেষ বৈদেশিক কোম্পানীর সাথেও আলোচনা হয়েছে। মেশিনটি অতি দ্রূত চালু করা হবে বলে জনান তিনি। তবে কবে নাগাদ চালু করা সম্ভব হবে সে বিষয়ে তিনি নির্দিষ্ট করে কিছু বলতে পারেননি।

Adds Banner_2024
জনপ্রিয় পোস্ট
Adds Banner_2024

বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ নেতার মায়ের মৃত্যুতে শোক

Adds Banner_2024

অচল রামেক হাসপতালের সিটিস্ক্যান মেশিন

আপডেটের সময় : ০৬:০৬:৩৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৭ এপ্রিল ২০১৯

রাজশাহী প্রতিনিধি: আড়াই মাস ধরে নষ্ট হয়ে পড়ে রয়েছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের সিটিস্ক্যান মেশিনটি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শুরু থেকেই বলে আসছেন মেরামতের চেষ্টা চলছে। কিন্তু আড়াই মাসেও এটি চালু না হওয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছেন সাধারণ রোগিরা। এদিকে, হাসপাতালের সিটিস্ক্যান মেশিন নষ্টের সুযোগে বেসরকারী ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর এখন যেন পৌষ মাস ।

সিটিস্ক্যানকে ইস্যু করে ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর দালালরা এখন হাসপাতালে ব্যস্ত সময় পার করছে। রাজশাহী ছাড়াও উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে রোগিরা উন্নত চিকিৎসার আশায় ছুটে আসেন রাজশাহীতে। কিন্তু রামেক হাসপাতালের গুরুত্বপূর্ন মেশিন সিটিস্ক্যান দীর্ঘদিন ধরে অকেজো হয়ে পড়ে আছে। গত ২৩ জানুয়ারী এই গুরুত্বপূর্ন মেশিনটি নষ্ট হয়ে গেলেও মেরামত করা হয়নি।

Trulli

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সিটিস্ক্যান করাতে যেখানে ২ হাজার টাকা খরচ হয়। এটি নষ্ট থাকার কারনে এখন বাড়তি খরচ গুনতে হচ্ছে। বেসরকারী ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে সাড়ে ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা নেয়া হচ্ছে এই খরচ। এছাড়া হাসপাতালের সিটিস্ক্যান চালু থাকলে মুমুর্ষু রোগিদের সহজেই এ পরীক্ষা করানো যায়। ওয়ার্ডে ভর্তি রোগিকে ট্রলিতে করে নিয়ে গিয়ে সিটিস্ক্যান করানো যায়।

কিন্তু এটি নষ্ট থাকায় অনেক গুরুত্বর রোগি হলেও তাকে বাইরে নিয়ে যেতে হচ্ছে। এতে রোগিকে দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। অনেক বেশি ধকল সইতে হচ্ছে। আবার গুনতে হচ্ছে বাড়তি টাকা। মস্তিকের যেকোন জটিলতা বা নিউরো বিভাগের রোগিদের জন্য জরুরী পরীক্ষা সিটিস্ক্যান। প্রতিদিনই রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রোগিদের মধ্যে বিপুল সংখ্যক রোগিকে এই পরীক্ষা করা হয়।

হাসপাতালের একটি সূত্র জানিয়েছে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এই মেশিনটি চালু থাকার সময় প্রতিদিন ৩০ থেকে ৫০ জন রোগির সিটিস্ক্যান করা হতো। মেশিন নষ্টের পর এসব পরীক্ষা হচ্ছে ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে। আড়াই মাস ধরে লক্ষীপুর এলাকার ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে বেশ চাপ তৈরী হয়েছে। সিটিস্ক্যানের রোগি ধরতে হাসপাতালে দালালরা বেশ তৎপর।

দেখা গেছে রেডিওলজি বিভাগের গেটের সামনে একাধিক দালাল দাড়িয়ে আছে। কোন রোগি বা রোগির অভিভাবকেরা এসে সিটিস্ক্যানের রুম কোনদিকে তা জানতে চাইলে দালালেরা বলে, এখানের তো এই পরীক্ষা হয় না। এই পরীক্ষা বাইরে থেকে করাতে হবে। আমার চলেন সাথে আমাদের ডায়াগনষ্টিক সেন্টার রয়েছে। সেখানে কম টাকায় ভালো পরীক্ষার করা হয়। রোগির স্বজনেরা তাদের দেখে চিনে উঠতে পারে না যে তারা দালাল।

৮ নম্বর ওয়ার্ডে নওগাঁর আত্রাই উপজেলা থেকে চিকিৎসা নিতে আসা রমজান আলী বলেন, সকালে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষ মেরে মাথা ফাটিয়ে দেন। পরে রামেক হাসপাতালে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে নির্দিষ্ট ডায়াগনষ্টিকে গিয়ে পরীক্ষা করাতে বলেন। সেখানে ৫হাজার টাকায় সিটিস্ক্যান করিয়েছেন বলে জানান তিনি।

তার পাশের বেডে থাকা অপর এক রোগি সাড়ে ৩হাজার টাকায় সিটিস্ক্যান করিয়েছেন বলে জানান। এমন কথা শুনে পাশের এক বৃদ্ধা বলেন, আমরা শুনেছি সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিলে নাকি কোন টাকা পয়সা খরচ হয় না। কিন্তু এখানে এসে দেখি টাকা খরচের কোন শেষ নেই।

রামেক হাসপাতালের উপ-পরিচালাক ডা. এনামুল হক বলেন, সিটিস্ক্যন নিয়ে একাধিকবার আলোচনা হয়েছে। সর্বশেষ বৈদেশিক কোম্পানীর সাথেও আলোচনা হয়েছে। মেশিনটি অতি দ্রূত চালু করা হবে বলে জনান তিনি। তবে কবে নাগাদ চালু করা সম্ভব হবে সে বিষয়ে তিনি নির্দিষ্ট করে কিছু বলতে পারেননি।