spot_img

শীতকাল  - মঙ্গলবার | ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ১৬ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি | ৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

শীতকাল  - মঙ্গলবার | ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ১৬ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি

spot_imgspot_imgspot_img

ফোনালাপ ফাঁস, বশেমুরবিপ্রবির কৃষি বিভাগের চেয়ারম্যানকে অব্যাহতি

spot_img
- বিজ্ঞাপন - 01309003902 -

জনপদ ডেস্ক: এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানি ও ফোনালাপ ফাঁসসহ নানা অভিযোগে গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) সহকারী অধ্যাপক এইচ এম আনিসুজ্জামানকে কৃষি বিভাগের চেয়ারম্যানের পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) এ সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. মোরাদ হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে কৃষি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. মোজাহার আলীকে বিভাগের চেয়ারম্যানের অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

মো. মোরাদ হোসেন জানান, এ বিষয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। কমিটির প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

নাম না প্রকাশের শর্তে কৃষি বিভাগের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, সম্প্রতি এইচ এম আনিসুজ্জামানের একটি কল রেকর্ড ফাঁস হয়। সেখানে এক ছাত্রীকে অনৈতিক প্রস্তাব দেন তিনি। এরপর শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানি, পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস, পরীক্ষার নম্বরপত্রে গরমিল করা, উত্তরপত্রে ইচ্ছামতো নম্বর বসানো, শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় ফেল করানোর হুমকিসহ হিসাব-নিকাশে অসমতার অভিযোগ এনে ২৩ জানুয়ারি আনিসুজ্জামানের অব্যাহতি চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের কাছে তারা একটি অভিযোগ দেন।

২৪ জানুয়ারি বিকালে অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের শাস্তির দাবিতে ক্যাম্পাসে মিছিল ও শোডাউন করে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ। গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ, শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের দাবির মুখে তাকে বিভাগের চেয়ারম্যানের পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. রাজিউর রহমান বলেন, ‘ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে নৈতিক স্খলন ও অর্থ আত্মসাৎসহ নানা অভিযোগ উঠেছে। আমি শুনেছি, এসব অভিযোগ তদন্তের স্বার্থে কৃষি বিভাগের চেয়ারম্যানের পদ থেকে এইচ এম আনিসুজ্জামানকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে কৃষি বিভাগের ডিন ড. মো. মোজাহার আলীকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।’

তবে অভিযুক্ত শিক্ষক আনিসুজ্জামান সব অভিযোগ অস্বীকার করে ‘এগুলো সম্পূর্ণ বানোয়াট’ বলে উল্লেখ করেন। ভাইরাল হওয়া অডিওর কণ্ঠ ‘তার নয়’ বলেও দাবি করেন। তিনি বলেন, ‘এটা সম্পূর্ণ শত্রুতামূলক ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। কিছু দিন আগে শিক্ষক সমিতির নির্বাচন ছিল। আমি নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম। রাজনৈতিকভাবে হেয় করার জন্য প্রতিপক্ষ এ কাজটা করেছে।’

এ বিষয়ে অধ্যাপক ড. মো. মোজাহার আলী বলেন, ‘পত্রপত্রিকায় খবর আসায় এবং শিক্ষার্থীদের আবেদনের বিষয়ে সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে এইচ এম আনিসুজ্জামানকে চেয়ারম্যানের পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তবে তদন্তের পরে অভিযোগ প্রমাণিত না হলে তাকে পুনরায় সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হবে।’

প্রসঙ্গত, এ নিয়ে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্যসহ ১২ শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সূত্র:Bangla Tribune
spot_img

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, banglarjanapad@gmail.com ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন BanglarJanapad আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বাধিক পঠিত

- বিজ্ঞাপন - 01309003902spot_img