রাজশাহী , বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ

গণমাধ্যমের ওয়েবসাইট নকলকারী র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার

  • আপডেটের সময় : ০৮:৩৬:২৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ নভেম্বর ২০১৮
  • ১০৩ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

ঢাকা প্রতিনিধি: ২২টি গণমাধ্যমের ওয়েবসাইট নকল করার অভিযোগে একজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। তার নাম এনামুল হক। শনিবার বিকালে র‌্যাব-২ এর কোম্পানি কমান্ডার মহিউদ্দিন ফারুকী এই তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ‘তার বিরুদ্ধে কমলাপুর রেলওয়ে থানায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।’

গত বুধবার (২১ নভেম্বর) থেকে এনামুল হক নিখোঁজ ছিলেন বলে পরিবার দক্ষিণখান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিল। তিনি আশকোনা থেকে নিখোঁজ হন।

Trulli

র‌্যাব কর্মকর্তা মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, ‘এনামুল হক কোরিয়াতে বসে , বিবিসি বাংলা, প্রথম আলোসহ অন্তত ২২টি খ্যাতনামা গণমাধ্যমের ওয়েবসাইট নকল করেছিল। বাংলাদেশে বসে তার মাস্টার কার্ড ব্যবহার করে ডোমেইন কিনতো, এরপর কোরিয়াতে বসে নকল সাইট তৈরি করতো। এনামুল হক ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করেছে। তখন সে ছাত্রশিবিরের রাজনীতিতে জড়িত ছিল। বৃত্তি পেয়ে কোরিয়ায় পিএইচডি গবেষণায় চলে যায়। সেখানে বসে এসব নকল সাইট তৈরি করে। এসব নকল সাইট তৈরির সঙ্গে বাংলাদেশ, কোরিয়া ও ইতালিতে বিশাল একটি চক্র আছে।’

র‌্যাব কর্মকর্তা মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, ‘এসব নকল সাইট ভিজিট থেকে যে আয় হতো, তার ৭০ শতাংশ ছাত্রশিবিরের তহবিলে জমা হতো।’

মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, ‘এই ঘটনায় কমলাপুর রেলওয়ে থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা প্রক্রিয়াধীন।’

গত ১৪ নভেম্বর হুবহু প্রায় একই নামে একটি ওয়েবসাইট অনলাইন পত্রিকাটির কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। বিষয়টি সঙ্গে সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জানানো হয়। এরপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এই চক্রটিকে আটকে কাজ শুরু করে। ওই ঘটনার ১০ দিন পর ধরা পড়লো চক্রের মূলহোতা এনামুল হক।

www.banglatribune.com-এর আদলে অতিরিক্ত একটি ইংরেজি অক্ষর ‘আই’ যোগ করে ওই ওয়েবসাইটটি খোলা হয়। সংঘবদ্ধ অপরাধীচক্রটি সকল কন্টেন্ট কপি করে ভুয়া ওয়েবসাইটে প্রকাশ করছে। এছাড়া বাংলা ট্রিবিউন সম্পাদক জুলফিকার রাসেল ও প্রকাশক কাজী আনিস আহমেদের নামও হুবহু ব্যবহার করে।

র‌্যাব জানিয়েছে, এই চক্রটি ২০১৩ সাল থেকে এই জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত। তবে গত তিনমাস ধরে তারা ব্যাপকহারে বাংলা ভাষার গণমাধ্যমগুলো নকল করা শুরু করে। গত ১৯ সেপ্টেম্বর ফেক ওই ওয়েবসাইটটির নিবন্ধন নেয়। এক বছর মেয়াদি নিবন্ধন নেওয়া ওয়েবসাইটটি মূল ফ্রন্ট পেজ ডাউনলোড করে নকল ওয়েবসাইটটি তৈরি করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বুধবার রাত ১টায় কোরিয়ায় যাওয়ার জন্য আশকোনার বাসা থেকে রাত ১০টার দিকে বের হয়েছিল পিএইচডি গবেষক এনামুল হক। এসময় তার বন্ধুর ছোট ভাই তাকে রিকশায় উঠিয়ে বিদায় নেন। এরপর থেকেই নিখোঁজ ছিল এনামুল। এনামুল নিখোঁজ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার স্বজন ও বন্ধুরা স্ট্যাটাস দেয়। সেখানে মোবাইল নম্বরও দেওয়া হয়। এরপর বৃহস্পতিবার তাদের নম্বরে অপহরণকারী পরিচয় ফোন আসে।

এনামুলের পরিবার দাবি করেছে, ঘটনার পরদিন বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ‘অপহরণকারী’ পরিচয়ে তার স্বজনদের ফোন দেয় একটি চক্র। তারা দেড় লাখ টাকা দাবি করে। ওই নম্বরে তারা একলাখ টাকাও পাঠিয়ে দেয়। তবে তারপরও ফেরত আসেনি এনামুল। এরপর শুক্রবার দক্ষিণখান থানায় নিখোঁজের একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করে পরিবার।

নিখোঁজ এনামুল ময়মনসিংহে অবস্থিত বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা শেষ করে বৃত্তি নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার কিওংপুক ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে (কেএনইউ) পিএইচডি করছে। তার গ্রামের বাড়ি পাবনা।

এনামুলের স্ত্রী নাজমিন সুলতানা জানান, আমরা শুনতে পেরেছি র‌্যাব তাকে আটক করেছে। তবে, আমারা ঠিকভাবে এখনও জানি না কেন, কি জন্য তাকে আটক করা হয়েছে। গত ২৩ অক্টোবর দেশে এসেছিল এনামুল।

রাজধানীর দক্ষিণখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তপন চন্দ্র সাহা বলেন, ‘র‌্যাব তাকে আটক করেছে, বলে আমরাও শুনতে পেরেছি।’

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

রাবিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান, ৪ ঘণ্টা পর অবমুক্ত উপাচার্য

Adds Banner_2024

গণমাধ্যমের ওয়েবসাইট নকলকারী র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার

আপডেটের সময় : ০৮:৩৬:২৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৫ নভেম্বর ২০১৮

ঢাকা প্রতিনিধি: ২২টি গণমাধ্যমের ওয়েবসাইট নকল করার অভিযোগে একজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। তার নাম এনামুল হক। শনিবার বিকালে র‌্যাব-২ এর কোম্পানি কমান্ডার মহিউদ্দিন ফারুকী এই তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ‘তার বিরুদ্ধে কমলাপুর রেলওয়ে থানায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।’

গত বুধবার (২১ নভেম্বর) থেকে এনামুল হক নিখোঁজ ছিলেন বলে পরিবার দক্ষিণখান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিল। তিনি আশকোনা থেকে নিখোঁজ হন।

Trulli

র‌্যাব কর্মকর্তা মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, ‘এনামুল হক কোরিয়াতে বসে , বিবিসি বাংলা, প্রথম আলোসহ অন্তত ২২টি খ্যাতনামা গণমাধ্যমের ওয়েবসাইট নকল করেছিল। বাংলাদেশে বসে তার মাস্টার কার্ড ব্যবহার করে ডোমেইন কিনতো, এরপর কোরিয়াতে বসে নকল সাইট তৈরি করতো। এনামুল হক ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করেছে। তখন সে ছাত্রশিবিরের রাজনীতিতে জড়িত ছিল। বৃত্তি পেয়ে কোরিয়ায় পিএইচডি গবেষণায় চলে যায়। সেখানে বসে এসব নকল সাইট তৈরি করে। এসব নকল সাইট তৈরির সঙ্গে বাংলাদেশ, কোরিয়া ও ইতালিতে বিশাল একটি চক্র আছে।’

র‌্যাব কর্মকর্তা মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, ‘এসব নকল সাইট ভিজিট থেকে যে আয় হতো, তার ৭০ শতাংশ ছাত্রশিবিরের তহবিলে জমা হতো।’

মহিউদ্দিন ফারুকী বলেন, ‘এই ঘটনায় কমলাপুর রেলওয়ে থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা প্রক্রিয়াধীন।’

গত ১৪ নভেম্বর হুবহু প্রায় একই নামে একটি ওয়েবসাইট অনলাইন পত্রিকাটির কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। বিষয়টি সঙ্গে সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জানানো হয়। এরপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এই চক্রটিকে আটকে কাজ শুরু করে। ওই ঘটনার ১০ দিন পর ধরা পড়লো চক্রের মূলহোতা এনামুল হক।

www.banglatribune.com-এর আদলে অতিরিক্ত একটি ইংরেজি অক্ষর ‘আই’ যোগ করে ওই ওয়েবসাইটটি খোলা হয়। সংঘবদ্ধ অপরাধীচক্রটি সকল কন্টেন্ট কপি করে ভুয়া ওয়েবসাইটে প্রকাশ করছে। এছাড়া বাংলা ট্রিবিউন সম্পাদক জুলফিকার রাসেল ও প্রকাশক কাজী আনিস আহমেদের নামও হুবহু ব্যবহার করে।

র‌্যাব জানিয়েছে, এই চক্রটি ২০১৩ সাল থেকে এই জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত। তবে গত তিনমাস ধরে তারা ব্যাপকহারে বাংলা ভাষার গণমাধ্যমগুলো নকল করা শুরু করে। গত ১৯ সেপ্টেম্বর ফেক ওই ওয়েবসাইটটির নিবন্ধন নেয়। এক বছর মেয়াদি নিবন্ধন নেওয়া ওয়েবসাইটটি মূল ফ্রন্ট পেজ ডাউনলোড করে নকল ওয়েবসাইটটি তৈরি করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বুধবার রাত ১টায় কোরিয়ায় যাওয়ার জন্য আশকোনার বাসা থেকে রাত ১০টার দিকে বের হয়েছিল পিএইচডি গবেষক এনামুল হক। এসময় তার বন্ধুর ছোট ভাই তাকে রিকশায় উঠিয়ে বিদায় নেন। এরপর থেকেই নিখোঁজ ছিল এনামুল। এনামুল নিখোঁজ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার স্বজন ও বন্ধুরা স্ট্যাটাস দেয়। সেখানে মোবাইল নম্বরও দেওয়া হয়। এরপর বৃহস্পতিবার তাদের নম্বরে অপহরণকারী পরিচয় ফোন আসে।

এনামুলের পরিবার দাবি করেছে, ঘটনার পরদিন বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ‘অপহরণকারী’ পরিচয়ে তার স্বজনদের ফোন দেয় একটি চক্র। তারা দেড় লাখ টাকা দাবি করে। ওই নম্বরে তারা একলাখ টাকাও পাঠিয়ে দেয়। তবে তারপরও ফেরত আসেনি এনামুল। এরপর শুক্রবার দক্ষিণখান থানায় নিখোঁজের একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করে পরিবার।

নিখোঁজ এনামুল ময়মনসিংহে অবস্থিত বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা শেষ করে বৃত্তি নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার কিওংপুক ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে (কেএনইউ) পিএইচডি করছে। তার গ্রামের বাড়ি পাবনা।

এনামুলের স্ত্রী নাজমিন সুলতানা জানান, আমরা শুনতে পেরেছি র‌্যাব তাকে আটক করেছে। তবে, আমারা ঠিকভাবে এখনও জানি না কেন, কি জন্য তাকে আটক করা হয়েছে। গত ২৩ অক্টোবর দেশে এসেছিল এনামুল।

রাজধানীর দক্ষিণখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তপন চন্দ্র সাহা বলেন, ‘র‌্যাব তাকে আটক করেছে, বলে আমরাও শুনতে পেরেছি।’