রাজশাহী , বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
আগামীকাল সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা আন্দোলনকারীদের প্রাণহানির প্রতিটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত হবে : প্রধানমন্ত্রী হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা নেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী অহেতুক কতগুলো মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী আন্দোলনকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সহযোগিতা করেছে: প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ

সৌদি আরব যুক্তরাষ্ট্রের একটি নিকট মিত্র: ট্রাম্প

  • আপডেটের সময় : ০৫:০৫:১৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮
  • ৯৬ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024
আন্তর্জাতিক  ডেস্ক: গত মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সাফ সাফ জানিয়ে দেন, জামাল খাসোগিকে যদি সৌদি যুবরাজ সালমানের নির্দেশে হত্যা করে হয়ে থাকে, তবু যুক্তরাষ্ট্র সৌদি আরবের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে না। যে ১১০ বিলিয়ন ডলারের অস্ত্র বিক্রির চুক্তি সৌদির সঙ্গে হয়েছে, সেটি আমেরিকার জন্য অধিক গুরুত্বপূর্ণ।

গতকাল বুধবার তিনি এক কদম এগিয়ে এসে সৌদি আরবকে ধন্যবাদ জানালেন, কারণ, তাদের জন্যই তেলের দাম এখন নিম্নগামী। এক টুইটে ট্রাম্প তেলের দর হ্রাস পাওয়ার ঘটনাকে গত বছর মার্কিন কংগ্রেসে গৃহীত কর হ্রাস আইনের সঙ্গে তুলনা করে বলেন, ধন্যবাদ সৌদি আরব, তবে দামটা আরও কমাতে হবে।

এই হত্যাকাণ্ড যুবরাজ সালমানের নির্দেশ ছাড়া অসম্ভব ছিল, সিআইএর এমন সিদ্ধান্তের পরেও ট্রাম্প যেভাবে সৌদি আরবের পক্ষ নিয়েছেন, তাতে বিভিন্ন মহলে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। কোনো রকম নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতার পক্ষে যুক্তি দিয়ে ট্রাম্প বলেছিলেন, সৌদি আরব যুক্তরাষ্ট্রের একটি নিকট মিত্র। সে কথা উল্লেখ করে ট্রাম্পের সমালোচক হিসেবে পরিচিত বিদায়ী রিপাবলিকান সিনেটর জেফ ফ্লেক বলেছেন, মি. প্রেসিডেন্ট, নিকট মিত্ররা সাংবাদিকদের হত্যা করে না, নিকট মিত্ররা নিজ দেশের নাগরিকদের ফাঁদে ফেলে তাদের হত্যা করে না।

Trulli

ট্রাম্পের আরেক সমালোচক ফ্লোরিডার রিপাবলিকান সিনেটর মার্কো রুবিও বলেছেন, মানবাধিকারের পক্ষে দাঁড়ানো যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতির অন্যতম ভিত্তি। ট্রাম্প সে পথ থেকে সরে আসছেন।

হাওয়াই থেকে নির্বাচিত ডেমোক্রেটিক কংগ্রেস সদস্য তুলসি গ্যাবার্ড অবশ্য অত রেখেঢেকে বলার বদলে এক টুইটে সরাসরিই বলে বসেছেন, ট্রাম্প আসলে সৌদি আরবের বাঁধা কুকুর (‘বিচ’)। তিনি যা করছেন, তাঁকে ‘আমেরিকা ফার্স্ট’ বলা যায় না।

সিনেটে রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেটিক পার্টির কয়েকজন সদস্যর উত্থাপিত এক প্রস্তাবে এই খুনের তদন্ত ও অপরাধীর শাস্তির পরামর্শ দিয়ে যে খসড়া প্রস্তাব বিলি করা হয়েছে, তার প্রতি সমর্থন বাড়ছে। সালমান ও হত্যার সঙ্গে জড়িত অন্যদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গৃহীত না হলে সরকারের বাজেট বরাদ্দ আইন পাস না করারও হুমকি দিয়েছেন কেউ কেউ। তাঁদের অন্যতম হলেন ট্রাম্পের নিকট মিত্র হিসেবে পরিচিত সিনেটর লিন্ডসি গ্রাহাম। তিনি বলেছেন, শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ ছাড়া বাজেট বরাদ্দের সম্ভাবনা তিনি দেখেন না। সৌদি আরবে অস্ত্র বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে একটি দ্বিদলীয় খসড়া প্রস্তাবের অন্যতম প্রস্তাবক হলেন গ্রাহাম।

উল্লেখ্য, ডিসেম্বরের ৭ তারিখের মধ্যে বাজেট বরাদ্দসংক্রান্ত সিদ্ধান্ত কংগ্রেসকে নিতে হবে। তা গ্রহণে ব্যর্থ হলে কেন্দ্রীয় সরকারের কাজকর্ম বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকার প্রকাশক ও প্রধান নির্বাহী এক তীব্র সমালোচনাপূর্ণ উপসম্পাদকীয়তে বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ব্যবসায়িক স্বার্থের ভিত্তিতে যে বৈদেশিক নীতি অনুসরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাতে বিশ্বের একনায়ক ও স্বেচ্ছাচারী শাসকদের অত্যন্ত ক্ষতিকর একটি বার্তা পাঠানো হচ্ছে। তা হলো এই প্রেসিডেন্টের সামনে নগদ কড়ি ফেলা হলে তিনি খুনখারাবিসহ যেকোনো অপরাধ উপেক্ষা করতে রাজি আছেন।

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

রাবিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান, ৪ ঘণ্টা পর অবমুক্ত উপাচার্য

Adds Banner_2024

সৌদি আরব যুক্তরাষ্ট্রের একটি নিকট মিত্র: ট্রাম্প

আপডেটের সময় : ০৫:০৫:১৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮
আন্তর্জাতিক  ডেস্ক: গত মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সাফ সাফ জানিয়ে দেন, জামাল খাসোগিকে যদি সৌদি যুবরাজ সালমানের নির্দেশে হত্যা করে হয়ে থাকে, তবু যুক্তরাষ্ট্র সৌদি আরবের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে না। যে ১১০ বিলিয়ন ডলারের অস্ত্র বিক্রির চুক্তি সৌদির সঙ্গে হয়েছে, সেটি আমেরিকার জন্য অধিক গুরুত্বপূর্ণ।

গতকাল বুধবার তিনি এক কদম এগিয়ে এসে সৌদি আরবকে ধন্যবাদ জানালেন, কারণ, তাদের জন্যই তেলের দাম এখন নিম্নগামী। এক টুইটে ট্রাম্প তেলের দর হ্রাস পাওয়ার ঘটনাকে গত বছর মার্কিন কংগ্রেসে গৃহীত কর হ্রাস আইনের সঙ্গে তুলনা করে বলেন, ধন্যবাদ সৌদি আরব, তবে দামটা আরও কমাতে হবে।

এই হত্যাকাণ্ড যুবরাজ সালমানের নির্দেশ ছাড়া অসম্ভব ছিল, সিআইএর এমন সিদ্ধান্তের পরেও ট্রাম্প যেভাবে সৌদি আরবের পক্ষ নিয়েছেন, তাতে বিভিন্ন মহলে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। কোনো রকম নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতার পক্ষে যুক্তি দিয়ে ট্রাম্প বলেছিলেন, সৌদি আরব যুক্তরাষ্ট্রের একটি নিকট মিত্র। সে কথা উল্লেখ করে ট্রাম্পের সমালোচক হিসেবে পরিচিত বিদায়ী রিপাবলিকান সিনেটর জেফ ফ্লেক বলেছেন, মি. প্রেসিডেন্ট, নিকট মিত্ররা সাংবাদিকদের হত্যা করে না, নিকট মিত্ররা নিজ দেশের নাগরিকদের ফাঁদে ফেলে তাদের হত্যা করে না।

Trulli

ট্রাম্পের আরেক সমালোচক ফ্লোরিডার রিপাবলিকান সিনেটর মার্কো রুবিও বলেছেন, মানবাধিকারের পক্ষে দাঁড়ানো যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতির অন্যতম ভিত্তি। ট্রাম্প সে পথ থেকে সরে আসছেন।

হাওয়াই থেকে নির্বাচিত ডেমোক্রেটিক কংগ্রেস সদস্য তুলসি গ্যাবার্ড অবশ্য অত রেখেঢেকে বলার বদলে এক টুইটে সরাসরিই বলে বসেছেন, ট্রাম্প আসলে সৌদি আরবের বাঁধা কুকুর (‘বিচ’)। তিনি যা করছেন, তাঁকে ‘আমেরিকা ফার্স্ট’ বলা যায় না।

সিনেটে রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেটিক পার্টির কয়েকজন সদস্যর উত্থাপিত এক প্রস্তাবে এই খুনের তদন্ত ও অপরাধীর শাস্তির পরামর্শ দিয়ে যে খসড়া প্রস্তাব বিলি করা হয়েছে, তার প্রতি সমর্থন বাড়ছে। সালমান ও হত্যার সঙ্গে জড়িত অন্যদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গৃহীত না হলে সরকারের বাজেট বরাদ্দ আইন পাস না করারও হুমকি দিয়েছেন কেউ কেউ। তাঁদের অন্যতম হলেন ট্রাম্পের নিকট মিত্র হিসেবে পরিচিত সিনেটর লিন্ডসি গ্রাহাম। তিনি বলেছেন, শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ ছাড়া বাজেট বরাদ্দের সম্ভাবনা তিনি দেখেন না। সৌদি আরবে অস্ত্র বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে একটি দ্বিদলীয় খসড়া প্রস্তাবের অন্যতম প্রস্তাবক হলেন গ্রাহাম।

উল্লেখ্য, ডিসেম্বরের ৭ তারিখের মধ্যে বাজেট বরাদ্দসংক্রান্ত সিদ্ধান্ত কংগ্রেসকে নিতে হবে। তা গ্রহণে ব্যর্থ হলে কেন্দ্রীয় সরকারের কাজকর্ম বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকার প্রকাশক ও প্রধান নির্বাহী এক তীব্র সমালোচনাপূর্ণ উপসম্পাদকীয়তে বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ব্যবসায়িক স্বার্থের ভিত্তিতে যে বৈদেশিক নীতি অনুসরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাতে বিশ্বের একনায়ক ও স্বেচ্ছাচারী শাসকদের অত্যন্ত ক্ষতিকর একটি বার্তা পাঠানো হচ্ছে। তা হলো এই প্রেসিডেন্টের সামনে নগদ কড়ি ফেলা হলে তিনি খুনখারাবিসহ যেকোনো অপরাধ উপেক্ষা করতে রাজি আছেন।