বর্ষাকাল  - মঙ্গলবার | ৮ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি | ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বর্ষাকাল  - মঙ্গলবার | ৮ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

পশ্চিমবঙ্গ বিজেপিতে বাড়ছে বিভেদ

জনপদ ডেস্কঃ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে হেরে এখন বিজেপিতে শুধু ভাঙনেরই সুর। শুধু তাই নয়, বাড়ছে বিভেদও। যারা এক সময় ক্ষমতার লোভে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন তারাই এখন সমালোচনা করছেন মোদি-অমিত শাহদের। আর সাফাই গাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। যা নিয়ে চরম অস্বস্তিতে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব।

নন্দীগ্রামে নিজ আসনে বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর কাছে হারলেও পুরো রাজ্যে আগের চেয়ে বেশি আসন পেয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল। এতে তৃতীয়বারের মতো মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন মমতা। তাই বিজেপির এই হারকে অনেকেই ‘গো-হারা’ বলে আখ্যায়িত করছেন।

এই হার-জিতের হিসেব-নিকেষের মধ্যেই এক সময়ের তৃণমূলের প্রভাবশালী নেতা ও সাবেক মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় মঙ্গলবার ফেসবুক পোস্টে জানিয়েছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হেয় করা ও কথায় কথায় রাজ্যে প্রেসিডেন্ট শাসনের মতো হুমকি পশ্চিমবঙ্গের মানুষ মেনে নেয়নি।

তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যাওয়া আরেক নেতা সব্যসাচী দত্ত বলেছেন, আসলে বাংলা ভাষা না জানার কারণেই বিজেপির এমন অবস্থা হয়েছে।

এদিকে বিজেপির বর্ষীয়ান নেতা মুকুল রায়, তার ছেলে শুভ্রাংশ রায়কে নিয়েও জল্পনা শুরু হয়েছে। মুকুল রায় দলের একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে যোগ দেননি। সম্প্রতি শুভ্রাংশ রায়ও তৃণমূল নেত্রীর প্রশংসা করে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন। এ অবস্থায় আবার মুকুল রায়ের অসুস্থ স্ত্রীকে হাসপাতালে দেখতে যান তৃণমূল নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

তৃণমূল নেতাদের অনেকেই দাবি করছেন, কয়েকজন সংসদ সদস্য ও বহু বিধায়ক রয়েছেন যারা এখন তৃণমূলে ফিরতে চাইছেন। যার মধ্যে অনেকেই আছেন যারা তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দিয়ে দলের ভালো অবস্থানে রয়েছেন।

RELATED ARTICLES

সর্বাধিক পঠিত