রাজশাহী , বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা ছাত্রশিবির-ছাত্রদল এবং বহিরাগতরা ঢাবির হলে তাণ্ডব চালিয়েছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী হল ছাড়বেন না রাবি শিক্ষার্থীরা, তিন দাবিতে বিক্ষোভ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা ঢাবির সব হল সাধারণ শিক্ষার্থীদের দখলে এবার সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হামলার ভয়ে হল ছাড়ছেন রাবি শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কার আন্দোলন: বৃহস্পতিবারের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত দেশের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা রাবির বঙ্গবন্ধু হলে অগ্নিসংযোগ, শহরে খণ্ড খণ্ড বিক্ষোভ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাবিতে বিক্ষোভ, বঙ্গবন্ধু হলে ভাঙচুর, বাইকে আগুন রাজশাহীতে ৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন রাবিতে হলে ঢুকে মোটরসাইকেলে আগুন, ব্যাপক ভাঙচুর চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম, বগুড়া ও রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাল বাংলাদেশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী কোটা আন্দোলনকারীদের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা এবার ঢামেকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা হলে ফেরার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান আন্দোলনকারীদের

বিসিএস’র ফরম পূরণে প্রতারণার শিকার রাবি শিক্ষার্থীরা: আটক ৩

  • আপডেটের সময় : ০২:০২:৪৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮
  • ২৫৫ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

নিজস্ব প্রতিবেদক,রাবিঃ ৪০তম বিসিএস পরীক্ষার ফরম পূরণের নাম করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রায় দুই লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এক দোকানি। প্রতারণার মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় সাড়ে ৩শ জন আবেদনকারীর ফরমে প্রতারণা করে প্রত্যেকের কাছ থেকে ছয়শ করে টাকা হাতিয়ে নেয়। বিষয়টি জানাজানি হওয়ায় বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে তাকে আটক করে রাজশাহীর মতিহার থানা পুলিশ। এসময় প্রতারণায় সম্পৃক্ততার সন্দেহে আরও ২ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের উদ্দেশ্যে আটক করা হয়।

আটক ওই দোকানির নাম মোস্তফা আহমেদ মামুন। সে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন মার্কেটের স্পন্দন কম্পিউটার নামের দোকানের মালিক। অন্যদিকে, প্রতারণায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটকরা হলেন- আরিফ হোসেন ও রফিকুল ইসলাম। উভয়েই ‘ভাই ভাই কম্পিউটার’ নামের দোকানের মালিক।

Trulli

জানা গেছে, সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) থেকে বিসিএস ফরম পূরণের ক্ষেত্রে সাধারণ প্রার্থীদের আবেদনের জন্য সাতশ টাকা এবং প্রতিবন্ধী, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী ও তৃতীয় লিঙ্গের প্রার্থীদের জন্য একশ টাকা ফরমের দাম নির্ধারণ করা হয়। মামুনের দোকানে প্রতিদিনই পঁচিশ-ত্রিশজনের মতো শিক্ষার্থী বিসিএস পরীক্ষার জন্য আবেদন করতে আসতেন। ফরম পূরণে দীর্ঘ সময় দরকার হয়, এমন অজুহাতে সে আবেদনকারীদের রোল/রেজিস্ট্রেশন নম্বর ও আবেদন বাবদ ৭০০ টাকা রেখে পরদিন প্রবেশপত্র সংগ্রহ করে নিয়ে যেতে বলে।

পরে মামুন ওয়েবসাইটে শিক্ষার্থীদের যাবতীয় তথ্য প্রদানের আগে একটি নকল আবেদনপত্রের কপি বের করে প্রার্থীদের দেয়। এরপর সে আবেদনকারীদের প্রতিবন্ধী দেখিয়ে ওয়েবসাইটে তাদের ফরম পূরণ করে আবেদন বাবদ ১০০ টাকা জমা দেয়। এতোদিন এভাবে প্রতারণা করে সে প্রায় সাড়ে ৩শ শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ৬শ করে টাকা হাতিয়ে নেয়।

ভুক্তভোগী আবেদনকারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত বুধবার রাতে এক আবেদনকারী তার প্রবেশপত্রের সঙ্গে মোবাইলে আসা ইউজার আইডি কোডের সাথে প্রবেশ পত্রের মিল না থাকায় বিষয়টি তার এক বন্ধুকে জানায়। পরে তারা বেশ কয়েকজনের সঙ্গে কথা বললে তাদের একই সমস্যা দেখতে পান। পরে বৃহস্পতিবার সকালে তারা মামুনের দোকানে এসে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরকে খবর দেয়। মামুনের প্রতারণার বিষয়টি টের পেয়ে শিক্ষার্থীরা ঔদ্ধত হয়ে ওঠেন এবং তাকে চড়-থাপ্পর মারেন। এ সময় মামুনকে আটক করে প্রক্টর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়।

আবেদনকারীরা বিষয়টির সমাধান দাবি করলে প্রক্টর পিএসসির সঙ্গে যোগাযোগ করেন। পরে বিষয়টি বিবেচনা করে কর্ম কমিশন থেকে শিক্ষার্থীদেরকে পুনরায় আবেদনের সুযোগ দেওয়া হয়।

প্রতারণার ব্যাপারে মামুন বলেন, ‘আমি ইচ্ছা করে অতিরিক্ত মুনাফা লাভের আশায় এ কাজ করেছি। আমার ভুল হয়েছে। আমি সব টাকা ফিরিয়ে দেবো।’ পরে প্রক্টর দপ্তরে সে নগদ ৮০ হাজার টাকা ফেরত দেয় এবং বাকি টাকা শীঘ্রই পরিশোধ করবে বলে জানায়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘মামুন যেটি করেছে তা গুরুতর অপরাধ। বিষয়টি নজরে না আসলে অসংখ্য শিক্ষার্থী অনিশ্চয়তায় পড়ে যেতো। আমি বিষয়টি জানার সঙ্গে সঙ্গে পিএসসি-তে যোগাযোগ করেছি। তারা শিক্ষার্থীদের পুনরায় আবেদন করার সুযোগ দিয়েছে।’

জানতে চাইলে মতিহার থানার ওসি শাহাদত হোসেন বলেন, ‘প্রক্টর দপ্তর থেকে আমরা মামুন নামের এক দোকানিকে প্রতারণার ঘটনায় আটক করেছি। সে এখন থানায় আছে। কেউ এখনও মামলা করেনি। মামলা করলে আমরা তার বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেবো।’

Adds Banner_2024
Adds Banner_2024

দাবি না মানায় রাবি উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা

Adds Banner_2024

বিসিএস’র ফরম পূরণে প্রতারণার শিকার রাবি শিক্ষার্থীরা: আটক ৩

আপডেটের সময় : ০২:০২:৪৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক,রাবিঃ ৪০তম বিসিএস পরীক্ষার ফরম পূরণের নাম করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রায় দুই লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এক দোকানি। প্রতারণার মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় সাড়ে ৩শ জন আবেদনকারীর ফরমে প্রতারণা করে প্রত্যেকের কাছ থেকে ছয়শ করে টাকা হাতিয়ে নেয়। বিষয়টি জানাজানি হওয়ায় বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে তাকে আটক করে রাজশাহীর মতিহার থানা পুলিশ। এসময় প্রতারণায় সম্পৃক্ততার সন্দেহে আরও ২ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের উদ্দেশ্যে আটক করা হয়।

আটক ওই দোকানির নাম মোস্তফা আহমেদ মামুন। সে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন মার্কেটের স্পন্দন কম্পিউটার নামের দোকানের মালিক। অন্যদিকে, প্রতারণায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটকরা হলেন- আরিফ হোসেন ও রফিকুল ইসলাম। উভয়েই ‘ভাই ভাই কম্পিউটার’ নামের দোকানের মালিক।

Trulli

জানা গেছে, সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) থেকে বিসিএস ফরম পূরণের ক্ষেত্রে সাধারণ প্রার্থীদের আবেদনের জন্য সাতশ টাকা এবং প্রতিবন্ধী, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী ও তৃতীয় লিঙ্গের প্রার্থীদের জন্য একশ টাকা ফরমের দাম নির্ধারণ করা হয়। মামুনের দোকানে প্রতিদিনই পঁচিশ-ত্রিশজনের মতো শিক্ষার্থী বিসিএস পরীক্ষার জন্য আবেদন করতে আসতেন। ফরম পূরণে দীর্ঘ সময় দরকার হয়, এমন অজুহাতে সে আবেদনকারীদের রোল/রেজিস্ট্রেশন নম্বর ও আবেদন বাবদ ৭০০ টাকা রেখে পরদিন প্রবেশপত্র সংগ্রহ করে নিয়ে যেতে বলে।

পরে মামুন ওয়েবসাইটে শিক্ষার্থীদের যাবতীয় তথ্য প্রদানের আগে একটি নকল আবেদনপত্রের কপি বের করে প্রার্থীদের দেয়। এরপর সে আবেদনকারীদের প্রতিবন্ধী দেখিয়ে ওয়েবসাইটে তাদের ফরম পূরণ করে আবেদন বাবদ ১০০ টাকা জমা দেয়। এতোদিন এভাবে প্রতারণা করে সে প্রায় সাড়ে ৩শ শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ৬শ করে টাকা হাতিয়ে নেয়।

ভুক্তভোগী আবেদনকারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত বুধবার রাতে এক আবেদনকারী তার প্রবেশপত্রের সঙ্গে মোবাইলে আসা ইউজার আইডি কোডের সাথে প্রবেশ পত্রের মিল না থাকায় বিষয়টি তার এক বন্ধুকে জানায়। পরে তারা বেশ কয়েকজনের সঙ্গে কথা বললে তাদের একই সমস্যা দেখতে পান। পরে বৃহস্পতিবার সকালে তারা মামুনের দোকানে এসে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরকে খবর দেয়। মামুনের প্রতারণার বিষয়টি টের পেয়ে শিক্ষার্থীরা ঔদ্ধত হয়ে ওঠেন এবং তাকে চড়-থাপ্পর মারেন। এ সময় মামুনকে আটক করে প্রক্টর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়।

আবেদনকারীরা বিষয়টির সমাধান দাবি করলে প্রক্টর পিএসসির সঙ্গে যোগাযোগ করেন। পরে বিষয়টি বিবেচনা করে কর্ম কমিশন থেকে শিক্ষার্থীদেরকে পুনরায় আবেদনের সুযোগ দেওয়া হয়।

প্রতারণার ব্যাপারে মামুন বলেন, ‘আমি ইচ্ছা করে অতিরিক্ত মুনাফা লাভের আশায় এ কাজ করেছি। আমার ভুল হয়েছে। আমি সব টাকা ফিরিয়ে দেবো।’ পরে প্রক্টর দপ্তরে সে নগদ ৮০ হাজার টাকা ফেরত দেয় এবং বাকি টাকা শীঘ্রই পরিশোধ করবে বলে জানায়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘মামুন যেটি করেছে তা গুরুতর অপরাধ। বিষয়টি নজরে না আসলে অসংখ্য শিক্ষার্থী অনিশ্চয়তায় পড়ে যেতো। আমি বিষয়টি জানার সঙ্গে সঙ্গে পিএসসি-তে যোগাযোগ করেছি। তারা শিক্ষার্থীদের পুনরায় আবেদন করার সুযোগ দিয়েছে।’

জানতে চাইলে মতিহার থানার ওসি শাহাদত হোসেন বলেন, ‘প্রক্টর দপ্তর থেকে আমরা মামুন নামের এক দোকানিকে প্রতারণার ঘটনায় আটক করেছি। সে এখন থানায় আছে। কেউ এখনও মামলা করেনি। মামলা করলে আমরা তার বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেবো।’