রাজশাহী , শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
রাজশাহীতে র‌্যাবের জালে ২৪ জুয়াড়ি লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর আরাফাত ময়দান পবিত্র হজ আজ এমপি আনার হত্যা: আ.লীগ নেতা গ্যাস বাবুর দোষ স্বীকার টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছে রাজশাহীর কামাররা রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৭৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যুগান্তর পত্রিকায় মেয়রসহ তার পরিবারকে নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা কাল থেকে টানা ৫ দিনের ছুটিতে যাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বগুড়ায় ব্যাংকের সিন্দুক কেটে ২৯ লাখ টাকা লুট বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে চলবে যাত্রীবাহী ফেরি শেখ হাসিনাকে ‘কোয়ালিশন অব লিডার্স’-এ চায় গ্লোবাল ফান্ড তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি : প্রধানমন্ত্রী দুর্যোগ মোকাবিলায় ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানালেন প্রধানমন্ত্রী বেনজীর পরিবারের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বড় দুঃসংবাদ পেলেন সাকিব পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী কুয়েতে ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত অন্তত ৩৯ আনার হত্যাকাণ্ড : ডিবি কার্যালয়ে ঝিনাইদহ আ. লীগ সম্পাদক মিন্টু যাদের জমিসহ ঘর করে দেওয়া হয়েছে, তাদের জীবন বদলে গেছে: প্রধানমন্ত্রী

চলন্ত খুনি

  • আপডেটের সময় : ০৬:৫৬:২৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০১৯
  • ৬৬ টাইম ভিউ
Adds Banner_2024

জনপদ ডেস্ক: চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে ময়মনসিংহের গফরগাঁও বাসুটিয়া গ্রাম এলাকায় ছিনতাইয়ের পর মুকুল নামে এক রাজমিস্ত্রিকে দেওয়ানগঞ্জগামী চলন্ত কমিউটার ট্রেন থেকে ফেলে হত্যা করে দুবর্ৃৃত্তরা। ওই ঘটনায় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে আহত হন আরও ৪ থেকে ৫ যাত্রী। জাতীয় নির্বাচনের ছুটি কাটিয়ে কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর থেকে ‘এগারো সিন্ধুর গোধূলি’ ট্রেনে চেপে কর্মস্থলে ফিরছিল দুই কিশোর বন্ধু রফিকুল ইসলাম মনির ও সাব্বির হোসেন। রাজধানীর কাপ্তানবাজারের একটি জুতার কারখানায় কাজ করে দুজন। রাজধানীর তেজগাঁও এলাকায় পৌঁছতেই

গণছিনতাইয়ের মুখে পড়েন ছাদের যাত্রীরা। সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে ৫ থেকে ৬ যুবক আচমকা লাঠি-চাকু নিয়ে বগির ছাদে উঠে এলোপাতাড়ি পিটুনি শুরু। চলন্ত ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলে দেওয়ার হুমকি দিয়ে দুর্বৃত্তরা প্রত্যেকের মোবাইল ফোন ও মানিব্যাগ কেড়ে নেয়। বাধা দিলে সাব্বিরের পায়ে ছুরিকাঘাত করে তার মানিব্যাগ ও মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে যায়। এ সময় তাকে রক্ষায় মনির এগিয়ে এলে তার পেটে ছুরিকাঘাত করে ছাদ থেকে ফেলে দেয় ছিনতাইকারীরা। পরে ট্রেনের যাত্রীরা তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

Trulli

শুধু মনির, সাব্বির আর মুকুলই নন, চলন্ত ট্রেনে চলন্ত খুনরা সক্রিয়। এরা ছিনতাই করে যাত্রীদের সর্বস্ব লুটে নিচ্ছে। বাধা দিলে নিচ্ছে তারা প্রাণ। পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, কয়েক বছর আগে বিভিন্ন স্থানে লাশ পাওয়া যেত। আজ একটি, তো কাল দুটি। কোনোটি দ্বিখি ত। কোনোটি কয়েক খ । আবার কোনোটি তিন বা চার ভাগ করা। রেললাইনের ওপর পড়ে থাকা এসব লাশের অপমৃত্যু মামলা হচ্ছে। তদন্তের সেখানেই শেষ হয়ে যায়। কিন্তু, প্রশ্ন ওঠে লাশগুলোর একটি কমন বিষয় রয়েছে। সেটি হচ্ছে প্রত্যেকের গলা কাটা। বিষয়টি গোয়েন্দাদের নজরে আসার পর নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। সত্যি তো! গলা কাটা কেন থাকবে। রেলে কাটা মানুষের খ দেহ মিলে। গলা কাটাও থাকতে পারে। কিন্তু ‘প্রত্যেক লাশের গলা কেন কাটা থাকবে?

গোয়েন্দারা মাঠে নামে। শুরু হয় তদন্ত। ২০১১ সালে পুলিশ প্রশাসনের পিলে কেঁপে ওঠে এমন অসংখ্য গলা কাটা লাশ উদ্ধারের পর। যাত্রীবাহী ট্রেনে ভয়ঙ্কর আতঙ্ক ছিল আম্মাজান। এটি একটি ছোরার নাম। অত্যন্ত ধারালো ছোরা। সর্বস্ব কেড়ে নেওয়ার পর ওই ছোরা দিয়ে গলা কেটে চলন্ত ট্রেন থেকে ফেলে দেওয়া হয় যাত্রীদের। প্রয়াত চিত্রনায়ক মান্না ‘আম্মাজান’ ছবিতে একটি বিশেষ ছোরা ব্যবহার করেন। ওই ছোরা দেখতে যেমন ছিল সে ধরনের ছোরা ব্যবহার করে এ গ্রুপের সদস্যরা।

এ কারণেই তাদের গ্রুপের নাম আম্মাজান। ছোরার নাম অনুসারে এ দুর্বৃত্ত চক্রের নাম হয়েছে আম্মাজান গ্রুপ। এ গ্রুপের প্রধান জীবন ওরফে অসহায় জীবন গ্রেফতার হওয়ার পর বেরিয়ে আসে তাদের নৃশংসতার নানা তথ্য। তবে গলা কাটার সেই তৎপরতাও কমে। পুলিশ বলছে, এ চক্রের হাতে এ পর্যন্ত নিহত হয়েছে শতাধিক যাত্রী। গন্তব্যে পৌঁছার আগেই ঘাতক চক্রের হাতে নিহত হওয়ায় এসব যাত্রীর লাশও পাচ্ছেন না স্বজনরা। রেলওয়ে পুলিশের তথ্যানুযায়ী, ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ এবং ঢাকা থেকে টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত প্রায় ১৪২ কিলোমিটার রেলপথেই গত ৯ বছরে (২০১০ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত) রেললাইনে কাটা পড়ে ২৬৬৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন প্রায় একই সংখ্যক মানুষ। গত বছর মৃত্যু হয়েছে ৩০৫ জনের। আর চলতি বছরের গত ১০ দিনে রেলে কাটা ও ধাক্কায় মারা গেছে ১৬ জন, আহত হয়েছেন ৮ জন। গত সপ্তাহে ঢামেক মর্গে এসেছে ট্রেনে কাটা পড়া দুই লাশ।

রাজধানীর বিমানবন্দরের কাওলা এলাকায় সাগর কুমার সেনগুপ্ত নামে এক কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার এবং টঙ্গী স্টেশন এলাকায় অচেনা এক যুবক নির্মমভাবে মারা যান। এসব ঘটনায় ৯৫ শতাংশের ক্ষেত্রেই অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রেলপথে প্রকৃত মৃত্যুর সংখ্যা এ পরিসংখ্যানের অন্তত দ্বিগুণ হবে। রেল পুলিশের ঊর্ধŸতন এক কর্মকর্তা জানান, ট্রেনের দুর্বৃত্তরা এতটাই বেপরোয়া যে, ঝুঁকি এড়াতে তারা অনেক সময় যাত্রীদের চলন্ত ট্রেন থেকে ফেলে দিচ্ছে। ট্রেনের নিচে পড়লে লাশ বীভৎস হয়ে যাওয়ার ফলে প্রাথমিকভাবে ধরে নেওয়া হয় কাটা পড়েই মৃত্যু হয়েছে ভিকটিমের। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এসব লাশের নাম উঠে যাচ্ছে অপমৃত্যুর খাতায়। অনেক ক্ষেত্রে হত্যার ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতেও লাশ ফেলে দেওয়া হচ্ছে রেললাইনে। ফলে হত্যাকান্ড কে দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দিতে রেলপথকে নিরাপদ মনে করছে দুর্বৃত্তরা। সাম্প্রতিক সময়ে চলন্ত

ট্রেনের ছাদে অহরহই যাত্রীরা ছিনতাইয়ের শিকার। ফলে রেলযাত্রাকে এখন অনেকটাই ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছেন ছাদে চড়া যাত্রীরা। এদিকে চলন্ত ট্রেনে গামছা পার্টি, অজ্ঞান পার্টি, টানা পার্টি, পকেটমার ছাড়াও আম্মাজান, কৃষ্ণমালা, সুইসগিয়ার, ঝুলন্ত ছিনতাই পার্টি, এমন সব সংঘবদ্ধ চক্রের দৌরাত্ম্য হালে এতটাই বেড়েছে যে, তাদের কাছে অসহায় হয়ে পড়েছেন খোদ আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কাজে নিয়োজিত বাহিনীর সদস্যরা। লাগাতার অভিযান চালিয়েও তাদের রোধ করা যাচ্ছে না। বরং দিন দিন তাদের দুর্বৃত্তপনা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠছে। শুধু রাতের অন্ধকারেই নয়, ভয়ঙ্কর এসব চক্র দিনের বেলায়ও যাত্রীরা কিছু বোঝার আগেই তাদের গলায় গামছা, মাফলার অথবা বেল্ট পেঁচিয়ে ডাকাতি-ছিনতাই করছে। কেউ বাধা দিলে তাদের নির্দয়ভাবে ছুড়ে ফেলে দিচ্ছে চলন্ত ট্রেন থেকে।
Share

Adds Banner_2024

চলন্ত খুনি

আপডেটের সময় : ০৬:৫৬:২৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০১৯

জনপদ ডেস্ক: চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে ময়মনসিংহের গফরগাঁও বাসুটিয়া গ্রাম এলাকায় ছিনতাইয়ের পর মুকুল নামে এক রাজমিস্ত্রিকে দেওয়ানগঞ্জগামী চলন্ত কমিউটার ট্রেন থেকে ফেলে হত্যা করে দুবর্ৃৃত্তরা। ওই ঘটনায় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে আহত হন আরও ৪ থেকে ৫ যাত্রী। জাতীয় নির্বাচনের ছুটি কাটিয়ে কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর থেকে ‘এগারো সিন্ধুর গোধূলি’ ট্রেনে চেপে কর্মস্থলে ফিরছিল দুই কিশোর বন্ধু রফিকুল ইসলাম মনির ও সাব্বির হোসেন। রাজধানীর কাপ্তানবাজারের একটি জুতার কারখানায় কাজ করে দুজন। রাজধানীর তেজগাঁও এলাকায় পৌঁছতেই

গণছিনতাইয়ের মুখে পড়েন ছাদের যাত্রীরা। সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে ৫ থেকে ৬ যুবক আচমকা লাঠি-চাকু নিয়ে বগির ছাদে উঠে এলোপাতাড়ি পিটুনি শুরু। চলন্ত ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলে দেওয়ার হুমকি দিয়ে দুর্বৃত্তরা প্রত্যেকের মোবাইল ফোন ও মানিব্যাগ কেড়ে নেয়। বাধা দিলে সাব্বিরের পায়ে ছুরিকাঘাত করে তার মানিব্যাগ ও মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে যায়। এ সময় তাকে রক্ষায় মনির এগিয়ে এলে তার পেটে ছুরিকাঘাত করে ছাদ থেকে ফেলে দেয় ছিনতাইকারীরা। পরে ট্রেনের যাত্রীরা তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

Trulli

শুধু মনির, সাব্বির আর মুকুলই নন, চলন্ত ট্রেনে চলন্ত খুনরা সক্রিয়। এরা ছিনতাই করে যাত্রীদের সর্বস্ব লুটে নিচ্ছে। বাধা দিলে নিচ্ছে তারা প্রাণ। পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, কয়েক বছর আগে বিভিন্ন স্থানে লাশ পাওয়া যেত। আজ একটি, তো কাল দুটি। কোনোটি দ্বিখি ত। কোনোটি কয়েক খ । আবার কোনোটি তিন বা চার ভাগ করা। রেললাইনের ওপর পড়ে থাকা এসব লাশের অপমৃত্যু মামলা হচ্ছে। তদন্তের সেখানেই শেষ হয়ে যায়। কিন্তু, প্রশ্ন ওঠে লাশগুলোর একটি কমন বিষয় রয়েছে। সেটি হচ্ছে প্রত্যেকের গলা কাটা। বিষয়টি গোয়েন্দাদের নজরে আসার পর নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। সত্যি তো! গলা কাটা কেন থাকবে। রেলে কাটা মানুষের খ দেহ মিলে। গলা কাটাও থাকতে পারে। কিন্তু ‘প্রত্যেক লাশের গলা কেন কাটা থাকবে?

গোয়েন্দারা মাঠে নামে। শুরু হয় তদন্ত। ২০১১ সালে পুলিশ প্রশাসনের পিলে কেঁপে ওঠে এমন অসংখ্য গলা কাটা লাশ উদ্ধারের পর। যাত্রীবাহী ট্রেনে ভয়ঙ্কর আতঙ্ক ছিল আম্মাজান। এটি একটি ছোরার নাম। অত্যন্ত ধারালো ছোরা। সর্বস্ব কেড়ে নেওয়ার পর ওই ছোরা দিয়ে গলা কেটে চলন্ত ট্রেন থেকে ফেলে দেওয়া হয় যাত্রীদের। প্রয়াত চিত্রনায়ক মান্না ‘আম্মাজান’ ছবিতে একটি বিশেষ ছোরা ব্যবহার করেন। ওই ছোরা দেখতে যেমন ছিল সে ধরনের ছোরা ব্যবহার করে এ গ্রুপের সদস্যরা।

এ কারণেই তাদের গ্রুপের নাম আম্মাজান। ছোরার নাম অনুসারে এ দুর্বৃত্ত চক্রের নাম হয়েছে আম্মাজান গ্রুপ। এ গ্রুপের প্রধান জীবন ওরফে অসহায় জীবন গ্রেফতার হওয়ার পর বেরিয়ে আসে তাদের নৃশংসতার নানা তথ্য। তবে গলা কাটার সেই তৎপরতাও কমে। পুলিশ বলছে, এ চক্রের হাতে এ পর্যন্ত নিহত হয়েছে শতাধিক যাত্রী। গন্তব্যে পৌঁছার আগেই ঘাতক চক্রের হাতে নিহত হওয়ায় এসব যাত্রীর লাশও পাচ্ছেন না স্বজনরা। রেলওয়ে পুলিশের তথ্যানুযায়ী, ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ এবং ঢাকা থেকে টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত প্রায় ১৪২ কিলোমিটার রেলপথেই গত ৯ বছরে (২০১০ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত) রেললাইনে কাটা পড়ে ২৬৬৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন প্রায় একই সংখ্যক মানুষ। গত বছর মৃত্যু হয়েছে ৩০৫ জনের। আর চলতি বছরের গত ১০ দিনে রেলে কাটা ও ধাক্কায় মারা গেছে ১৬ জন, আহত হয়েছেন ৮ জন। গত সপ্তাহে ঢামেক মর্গে এসেছে ট্রেনে কাটা পড়া দুই লাশ।

রাজধানীর বিমানবন্দরের কাওলা এলাকায় সাগর কুমার সেনগুপ্ত নামে এক কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার এবং টঙ্গী স্টেশন এলাকায় অচেনা এক যুবক নির্মমভাবে মারা যান। এসব ঘটনায় ৯৫ শতাংশের ক্ষেত্রেই অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রেলপথে প্রকৃত মৃত্যুর সংখ্যা এ পরিসংখ্যানের অন্তত দ্বিগুণ হবে। রেল পুলিশের ঊর্ধŸতন এক কর্মকর্তা জানান, ট্রেনের দুর্বৃত্তরা এতটাই বেপরোয়া যে, ঝুঁকি এড়াতে তারা অনেক সময় যাত্রীদের চলন্ত ট্রেন থেকে ফেলে দিচ্ছে। ট্রেনের নিচে পড়লে লাশ বীভৎস হয়ে যাওয়ার ফলে প্রাথমিকভাবে ধরে নেওয়া হয় কাটা পড়েই মৃত্যু হয়েছে ভিকটিমের। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এসব লাশের নাম উঠে যাচ্ছে অপমৃত্যুর খাতায়। অনেক ক্ষেত্রে হত্যার ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতেও লাশ ফেলে দেওয়া হচ্ছে রেললাইনে। ফলে হত্যাকান্ড কে দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দিতে রেলপথকে নিরাপদ মনে করছে দুর্বৃত্তরা। সাম্প্রতিক সময়ে চলন্ত

ট্রেনের ছাদে অহরহই যাত্রীরা ছিনতাইয়ের শিকার। ফলে রেলযাত্রাকে এখন অনেকটাই ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছেন ছাদে চড়া যাত্রীরা। এদিকে চলন্ত ট্রেনে গামছা পার্টি, অজ্ঞান পার্টি, টানা পার্টি, পকেটমার ছাড়াও আম্মাজান, কৃষ্ণমালা, সুইসগিয়ার, ঝুলন্ত ছিনতাই পার্টি, এমন সব সংঘবদ্ধ চক্রের দৌরাত্ম্য হালে এতটাই বেড়েছে যে, তাদের কাছে অসহায় হয়ে পড়েছেন খোদ আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কাজে নিয়োজিত বাহিনীর সদস্যরা। লাগাতার অভিযান চালিয়েও তাদের রোধ করা যাচ্ছে না। বরং দিন দিন তাদের দুর্বৃত্তপনা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠছে। শুধু রাতের অন্ধকারেই নয়, ভয়ঙ্কর এসব চক্র দিনের বেলায়ও যাত্রীরা কিছু বোঝার আগেই তাদের গলায় গামছা, মাফলার অথবা বেল্ট পেঁচিয়ে ডাকাতি-ছিনতাই করছে। কেউ বাধা দিলে তাদের নির্দয়ভাবে ছুড়ে ফেলে দিচ্ছে চলন্ত ট্রেন থেকে।
Share